জুলাই ১৫, ২০২০ ১২:০৫ Asia/Dhaka

করোনা চিকিৎসার নামে প্রতারণার দায়ে অভিযুক্ত রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহেদ ওরফে সাহেদ করিম অবৈধভাবে সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করার সময় গ্রেফতার হয়েছেন। পরিচয় আড়াল করতে বোরকা পরিহিত অবস্থায় নৌকাযোগে সীমান্ত পাড়ি দেওয়ার সময় তাকে গ্রেফতার করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

র‌্যাব-৬ এর সাতক্ষীরা ক্যাম্পের অধিনায়ক সিনিয়র এএসপি বজলুর রশিদ জানিয়েছেন, আজ (বুধবার) ভোর সাড়ে ৫টার দিকে দেবহাটা সীমান্তবর্তী কোমরপুর গ্রামের লবঙ্গবতী নদীর তীর থেকে একটি গুলিভর্তি পিস্তলসহ তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের পর একটি হেলিকপ্টারে করে সাহেদকে নিয়ে সকাল ৯টার দিকে ঢাকার পুরাতন বিমানবন্দরে পৌঁছান র‌্যাব সদস্যরা। পরে তাকে বিপুল নিরাপত্তার মধ্যে নিয়ে যাওয়া হয় উত্তরায় র‌্যাব সদরদপ্তরে।

সাহেদকে হেলিকপ্টার থেকে নামানোর পর এক সংক্ষিপ্ত সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন) কর্নেল তোফায়েল মোস্তফা সারোয়ার বলেন, ‘সাহেদকে গ্রেফতারের জন্য আমরা আগে থেকেই সীমান্ত এলাকাগুলোতে নজরদারি বাড়িয়েছিলাম। তারই ধারাবাহিকতায় আজ ভোরে তার অবস্থান নিশ্চিত হওয়ার পর তাকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হই।’

সাতক্ষীরা থেকে গ্রেফতারের পর সাহেদকে নিয়ে আজ সকাল ৯টায় র‌্যাবের অভিযানিক দল হেলিকপ্টার যোগে ঢাকায় পৌঁছেন। 

তিনি জানান, ‘র‌্যাবের গোয়েন্দা শাখার পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল সারওয়ার বিন কাশেমের নেতৃত্বে পরিচালিত অভিযানে প্রতারক সাহেদকে নৌকা যোগে সীমান্ত পেরিয়ে যাওয়ার সময় গ্রেফতার করা হয়। নিজেকে আড়াল করতে সাহেদ বোরকা পরিহিত অবস্থায় ছিলেন। তিনি সম্পূর্ণ অবৈধভাবে অনুপ্রবেশের চেষ্টা করছিলেন।’

এ সময় তার কাছ থেকে একটি বিদেশি পিস্তল ও গুলি ভর্তি একটি ম্যাগাজিন উদ্ধার করা হয় বলেও জানান তিনি।

সাহেদ উঁচুমানের প্রতারক উল্লেখ করে আশিক বিল্লাহ বলেন, ‘সাহেদ বিভিন্ন পন্থা অবলম্বন করে ছদ্মবেশ ধারণ করে আত্মগোপনের চেষ্টা করছিলেন। তার বাড়ি সাতক্ষীরা হলেও তিনি বাড়ি না গিয়ে বিভিন্ন গাড়ি পরিবর্তন করে আশে-পাশে ঘুরছিলেন। তাকে ধরতে র‌্যাব সারাদেশব্যপী সম্ভাব্য সকল জায়গায় নজরদারি করছিল।’

এই নৌকা যোগেই অস্ত্রসহ সীমান্ত পেরিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন সাহেদ।  

গত ৬ ও ৭ জুলাই উত্তরার রিজেন্ট হাসপাতাল এবং রিজেন্ট গ্রুপের প্রধান দপ্তরে র‌্যাবের অভিযানের পর থেকে সাহেদ লাপাত্তা ছিলেন।

অভিযানে করোনাভাইরাস পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্ট, করোনাভাইরাস চিকিৎসার নামে রোগীদের কাছ থেকে অর্থ আদায়সহ নানা অনিয়মের প্রমাণ পাওয়ার পর রিজেন্ট হাসপাতালের উত্তরা ও মিরপুর শাখা বন্ধ করে দেওয়া হয়।

র‌্যাবের ওই অভিযানের পর রিজেন্টের মালিক মোহাম্মদ সাহেদের নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির খবরও সংবাদমাধ্যমে আসতে শুরু করে। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সহসম্পাদক পরিচয়ে ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে কীভাবে তিনি নানা অপকর্ম চালিয়ে আসছিলেন, সেসব তথ্যও এখন গণমাধ্যমে আসছে।

রিজেন্ট হাসপাতালে অভিযানের পর ৭ জুলাই উত্তরা পশ্চিম থানায় প্রতারণার অভিযোগে সাহেদকে এক নম্বর আসামি করে ১৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা করে র‌্যাব। সাহেদের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দিয়ে তার ব্যাংক হিসাবও জব্দ করা হয়।#

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/১৫

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

 

ট্যাগ

মন্তব্য