সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২০ ১৯:০২ Asia/Dhaka
  • তিতাসের ৮ জনের ২ দিনের রিমাণ্ড
    তিতাসের ৮ জনের ২ দিনের রিমাণ্ড

বাংলাদেশের নারায়ণগঞ্জ শহরের পশ্চিম তল্লা এলাকায় মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় দগ্ধ আরও দুজনের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়।

এই দুজন হলেন আবদুল আজিজ (৪০) ও ফরিদ মিয়া (৪০)। আবদুল আজিজ পশ্চিম তল্লা এলাকার বাসিন্দা। আর ফরিদ মিয়ার বাড়ি ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার ডাঙ্গুরিয়া এলাকায়। তিনি নিজ গ্রামের ওমেদ আলী মসজিদের খাদেম ছিলেন। পশ্চিম তল্লা এলাকায় মেয়ের বাড়িতে বেড়াতে গিয়েছিলেন।

নারায়ণগঞ্জের পশ্চিম তল্লা এলাকার বাইতুস সালাত জামে মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় এ নিয়ে  আজ শনিবার পর্যন্ত মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক হান্নান সাউদ,ইমাম আবদুল মালেকসহ ৩৩ জনের মৃত্যু হলো।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে এখনো  চিকিৎসাধীন আছেন ৩ জন। তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন কর্তব্যরত  চিকিৎসকরা।

তিতাসের ৪ কর্মকর্তাসহ ৮ জনের দুই দিনের রিমান্ড 

নারায়ণগঞ্জের মসজিদে বিস্ফোরণে হতাহতের ঘটনায় গ্যাস লিকেজে অবহেলা প্রমাণিত হওয়ায় গ্রেপ্তার তিতাস গ্যাসের চার কর্মকর্তাসহ ৮ জনের দুই দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) শনিবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কাওসার আলমের আদালতে হাজির করে তাদের ৫ দিন করে রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করে। আদালত শুনানি শেষে  দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে।

মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় তিতাস গ্যাসের তদন্তে চার কর্মকর্তাসহ ৮ জনের দায়িত্বে অবহেলার তথ্য পাওয়া যায়। এ কারণে তাদের সাময়িকভাবে বরখাস্ত করে তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ। সিআইডি প্রাথমিক তদন্ত ও সাক্ষ্য প্রমাণে তাদের বিরুদ্ধে অবহেলার প্রমাণ পেয়েছে। মামলার মূল রহস্য উদ্‌ঘাটন করার জন্য সিআইডি তাদের ৫ দিন করে রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন জানায়। পরে আদালত দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে।

উল্লেখ্য,গত ৪ সেপ্টেম্বর রাতে এশার নামাজ চলাকালে পশ্চিম তল্লা বাইতুস সালাত মসজিদে বিস্ফোরণ হয়। মসজিদের নিচে গ্যাসের লাইনে লিকেজ থেকে গ্যাস বের হয়ে বিস্ফোরণ ঘটে বলে জানিয়েছেন তিতাসের তদন্ত কমিটি। পরে এ ঘটনায় তিতাসের এই আট কর্মকর্তা কর্মচারীকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।#

পার্সটুডে/আবদুর রহমান খান/গাজী আবদুর রশীদ/১৯

 

 

ট্যাগ

মন্তব্য