সেপ্টেম্বর ২০, ২০২০ ২০:২৬ Asia/Dhaka
  • বাংলাদেশে পেঁয়াজ রপ্তানি আবার বন্ধ করে দিয়েছে ভারত

টানা পাঁচ দিন বন্ধ থাকার পর পেঁয়াজ বোঝাই কয়েকটি ট্রাক গতকাল স্থলবন্দর দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশের সূযোগ দেওয়া হলেও আজ রোববার থেকে আবার তা বন্ধ করে দিয়েছে সীমান্তের ওপারের প্রতিবেশী দেশ ভারত। ফলে বাংলাদেশি ব্যবসায়িদের এলসিতে কেনা পেঁয়াজ বাংলাদেশে প্রবেশ করতে পারে নি।

এদিকে শনিবার ট্রাক বোঝাই পেঁয়াজ বাংলাদেশে পৌঁছালে দেখা যায় বস্তাবন্দী পেঁয়াজের বেশীরভাগই গত ক’দিনের বৃষ্টিতে ভিজে পচে গেছে। ফলে লোকসানের মুখে পড়েছেন বাংলাদেশী অমদানীকারকরা।  

হিলি বন্দরের আমদানিকারক গ্রুপের সভাপতি হারুনুর রশিদ বলেছেন, ৫ দিন ধরে ট্রাক দেশে প্রবেশ করতে না পারায় অতিমাত্রার গরম ও বৃষ্টিতে ভিজে পেঁয়াজ বস্তার ভেতরেই পঁচে নষ্ট হয়ে গেছে। প্রতি ট্রাকের ৭৫ শতাংশ পেঁয়াজ পঁচে নষ্ট হয়ে গেছে বলে জনিয়েছে বন্দরের ব্যবসায়ীরা। এদিকে, সীমান্ত পথে পেঁয়াজের চালান আসার খবরে রাজধানী সহ বিভিন্ন বাজারে দাম কিছুটা কমলেও তা স্বাভাবিকের চেয়ে দ্বিগুণ দামে বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে, বর্তমানে সংকটময় পরিস্থিতি বিবেচনায় আগামী বছরের মার্চ পর্যন্ত পেঁয়াজের উপর আরোপিত ৫ শতাংশ আমদানি শুল্ক প্রত্যাহার করা হয়েছে। রোববার (২০ সেপ্টেম্বর) অর্থমন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা গাজী তৌহিদুল ইসলাম অর্থমন্ত্রীর পক্ষে এক বার্তায় এ তথ্য জানান।

দেশে প্রায় ২৬ লক্ষ মেট্রিক টনের চাহিদার বিপরীতে এ বছর দেশে মোট উৎপাদিত পেঁয়াজের পরিমাণ ১৯ লাখ ১১ হাজার মেট্রিক টন। বাকি সাত লাখ টন পেঁয়াজের ঘাটতি মেটাতে ভারত থেকেই আমদানি করতে হয়। ভারত গতবারের মতো এ বছর আবারো পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দিলে বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা বিকল্প হিসেবে দ্রুত মিয়ানমার ও তুরস্ক থেকে আমদানির উদ্যোগ নেয়। বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুন্সী আজ  জানিয়েছেন, মিয়ানমারের পেঁয়াজ স্থল পথে চট্রগ্রামে আসতে শুরু করেছে এবং তুরস্ক থেকে পেঁয়াজ জাহাজযোগে আগামী মাসে এসে পৌঁছাবে। এ অবস্থায় তিনি ক্রেতা সাধারণকে আতংকিত হয়ে বাজারে না ছোটার পরামর্শ দিয়েছেন।#

পার্সটুডে/আব্দুর রহমান খান/ বাবুল আখতার/ ২০

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

 

ট্যাগ

মন্তব্য