জানুয়ারি ২০, ২০২১ ১৮:০৩ Asia/Dhaka
  • বোলারদের নৈপুণ্যে জিতল বাংলাদেশ
    বোলারদের নৈপুণ্যে জিতল বাংলাদেশ

দীর্ঘ ৫৬৪ দিন পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলতে নেমে ফেরাটাকে স্মরণীয় করে রাখলেন বাংলাদেশি অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। বল হাতে মাত্র ৮ রানে ৪ উইকেটের পর ব্যাট হাতে ১৯ রানের ইনিংস খেলে বাংলাদেশের সহজ জয় নিশ্চিত করেন তিনি। অনাকাঙ্ক্ষিত ভুলে ২০১৯ সালের ২৯ অক্টোবর সব ধরনের ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন সাকিব।

গেল বছর ২৮ অক্টোবর শেষ হয় তাঁর নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ। নিষেধাজ্ঞামুক্ত হওয়ার পরপরই শ্রীলঙ্কা সফর দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার কথা ছিল তাঁর। কিন্তু কোয়ারেন্টিন ইস্যুতে লঙ্কা সফর স্থগিত হয়ে যায় বাংলাদেশের। তাই অপেক্ষা বাড়ে সাকিবেরও। 

আজ (বুধবার) মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে প্রথমে ব্যাট করা ক্যারিবীয়রা সাকিব-মাহমুদদের দাপুটে বোলিংয়ে মাত্র ১২২ রানে গুটিয়ে যায়। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৩৩.৫ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্যে (১২৫) পৌঁছায় স্বাগতিকরা। মাত্র ১২৩ রানের স্বল্প লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশ ভালো শুরু করে। বাংলাদেশের দুই ওপেনার তামিম ইকবাল এবং লিটন দাস পাওয়ার প্লের ১০ ওভারে কোনো উইকেট না হারিয়ে তোলেন ৩৯ রান। এরপর দলীয় ৪৭ রানে ১৪ রান করা লিটন দাসকে বোল্ড করে ফেরান আকিল হোসেইন। ওয়ান ডাউনে নামা ১ রান করা নাজমুল হোসেন শান্তকেও ফিরিয়েছেন এই ক্যারিবীয় স্পিনার। তিন শান্ত মিড উইকেট দিয়ে উড়িয়ে মারতে গিয়ে জেসন মোহাম্মদের হাতে ক্যাচ দিয়েছেন।

তামিম জেসনের বলে ব্যক্তিগত ৪৪ রানে স্টাম্পিং হয়ে আউট হয়ে ফেরেন। এই রান করতে তামিম খেলেছেন ৬৯ বল। ৪৩ বলে ১৯ রান করা সাকিবকে বোল্ড করে নিজের তৃতীয় উইকেট তোলেন ক্যারিবীয় স্পিনার আকিল হোসেনতবে মুশফিকুর রহিম ১৯ ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ৯ রানে অপরাজিত থেকে দলকে জেতান।

এর আগে এই ম্যাচে টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন তামিম ইকবাল। বল হাতে নেমে অধিনায়কের সিদ্ধান্তকে সঠিক প্রমাণ করেছে বাংলাদেশের বোলাররা।

ইনিংসের শুরুতেই প্রতিপক্ষ শিবিরে জোড়া আঘাত হেনে বাংলাদেশকে শুভসূচনা এনে দেন মুস্তাফিজুর রহমান। সুনীল অ্যামব্রিসকে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলে বিদায় করেন এই পেসার। এছাড়া, মোস্তাফিজুর রহমান ৬ ওভারে ২০ রান খরচায় নিয়েছেন দুই উইকেট।

খানিক পর গালিতে লিটন দাসের অসাধারণ এক ক্যাচে ফিরে যান জশুয়া ডি সিলভা। ১২ রান করা ম্যাকার্থিকে বোল্ড করেন সাকিব। ১৭ রান করা ক্যারিবিয়ান অধিনায়ক জেসন মোহাম্মদ ফিরে যান এই অলরাউন্ডারের ওভারেই।

সাকিব আল হাসান

এছাড়া বোনারকেও ০ রানে ফেরান এই অলরাউন্ডার। এরপর বোলিংয়ে এসে জোড়া উইকেট নিয়ে অভিষেকেই হ্যাটট্রিকের আশা জাগান হাসান মাহমুদ। তবে তিন উইকেট নিয়েই অভিষেকে আলো ছড়ান তিনি। শেষ ব্যাটসম্যানকে বিদায় করে সাকিব তুলে নেন চতুর্থ উইকেট। সাকিব এদিন ৭.২ ওভারে ৮ রানে ৪ উইকেট তুলে নেন। ছিল ২টি মেডেন। ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে এ যাবৎ খেলা ওয়ানডেতে এটি বাংলাদেশি কোনো বোলারের সেরা বোলিং। ম্যাচ সেরাও হয়েছেন এই তারকা।

এদিন অভিষিক্ত হাসান মাহমুদ  ৬ ওভারে এক মেডেনসহ ২৮ রানে ৩ উইকেট নেন। টাইগারদের অভিষিক্ত কোনো বোলারের এটি দ্বিতীয় সেরা বোলিং।#

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/২০

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ