মার্চ ০১, ২০২১ ১৩:২৩ Asia/Dhaka
  • পুলিশ-ছাত্রদল সংঘর্ষের ঘটনায় ৪৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা, সেলিমপুত্রের অব্যাহতি

বাংলাদেশের রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সমাবেশে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনায় ৪৭ জন নেতাকর্মীকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

পুলিশ বাদী হয়ে (পুলিশ অ্যাসল্ট) হত্যাচেষ্টা ও হামলা ও ভাঙচুর চালানোর অভিযোগে রোববার দিবাগত গভীর রাতে শাহবাগ থানায় এই মামলাটি দায়ের করে। মামলায় ৪৭ জন নামধারী নেতাকর্মীসহ অজ্ঞাতনামা ২০০/২৫০ জনকে আসামি। সংঘর্ষের ঘটনায় ১২ জনকে গ্রেফতার দেখিয়েছে পুলিশ। মামলায় বাকি আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলেও জানিয়েছে পুলিশ।

আজ (সোমবার) সকাল শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মামুন-অর-রশীদ বিষয়টি নিশ্চিত করে গণমাধ্যমকে বলেন, গ্রেফতার আসামিদের আদালতে উপস্থাপন করা হবে।

তিনি জানান, গতকাল সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশের বেশ কয়েকজন সদস্য আহত হয়েছে। সংঘর্ষের সময় প্রেসক্লাব সংলগ্ন অস্থায়ী পুলিশ বক্সের জানালা ভাংচুরসহ পুলিশের ওপর হামলা চালায় ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা।

মাদক মামলায়ও ইরফান সেলিমকে অব্যহতি

সেলিমপুত্রের অব্যাহতি

ওদিকে, ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) হাজী মোহাম্মদ সেলিমের ছেলে ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ৩০ নম্বর ওয়ার্ড (বরখাস্ত) কাউন্সিলর ইরফান সেলিমকে মাদক মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়েছে আদালত।

আজ ঢাকা মহানগর হাকিম শাহিনুর রহমান চূড়ান্ত প্রতিবেদন গ্রহণ করে এ মামলা থেকে তাকে অব্যাহতি দেন।

এর আগে, গত ১৮ ফেব্রুয়ারি অস্ত্র মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয় ইরফান সেলিমকে। সেই সঙ্গে অন্য দুই মামলায় তার জামিন মঞ্জুর করেছে আদালত।

গত ২৫ অক্টোবর রাতে ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী মোহাম্মদ সেলিমের ‘সংসদ সদস্য’ লেখা সরকারি গাড়ি থেকে নেমে নৌবাহিনীর লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ আহমেদ খানকে মারধর করা হয়। এ ঘটনায় ২৬ অক্টোবর সকালে ইরফান সেলিম, তার বডিগার্ড মো. জাহিদুল মোল্লা, এ বি সিদ্দিক দিপু এবং গাড়িচালক মিজানুর রহমানসহ অজ্ঞাত ২/৩ জনকে আসামি করে ওয়াসিফ আহমদ খান বাদী হয়ে ধানমন্ডি থানায় মামলা করেন।

ওই দিনই পুরান ঢাকার বড় কাটরায় ইরফানের বাবা হাজী সেলিমের বাড়িতে দিনভর অভিযান চালায় র‌্যাব। এ সময় র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত মাদক রাখার দায়ে ইরফান সেলিমকে এক বছর কারাদণ্ড দেন। ইরফানের দেহরক্ষী জাহিদকে ওয়াকিটকি বহন করার দায়ে ছয় মাসের সাজা দেন। পরে ৫ জানুয়ারি অস্ত্র ও মাদক মামলায় ইরফান সেলিমকে অব্যাহতির সুপারিশ করে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়েছে পুলিশ।

তবে তার দেহরক্ষী জাহিদুল মোল্লাকে অভিযুক্ত করে এই দুই মামলায় চার্জশিট দিয়েছে পুলিশ।#

পার্সটুডে/আবদুর রহমান খান/আশরাফুর রহমান/১

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ