আগস্ট ০৪, ২০২১ ১৮:২২ Asia/Dhaka

বাংলাদেশে ১৮ বছরের উর্ধ্বে কেউ ১১ আগস্টের পর টিকা ছাড়া বাইরে বের হলে শাস্তির সন্মুখীন হতে হবে; প্রয়োজনে আধ্যাদেশ জারী করে এরকম শাস্তি কার্যকর করা হবে- গতকাল এমন ঘোষণা দিয়ে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তা প্রত্যাহার করে নিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

গতকাল মঙ্গলবার মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হকের সভাপতিত্বে সরকারের উচ্চপর্যায়ের এক বৈঠকে করোনাভাইরাসের ঊর্ধ্বগতি রোধে চলমান কঠোর বিধিনিষেধ আরও পাঁচ দিন বাড়িয়ে আগামী ১০ আগস্ট পর্যন্ত রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সচিবালয়ে বৈঠক শেষে  মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী গণমাধ্যমকে বলেন, আগামী ১১ আগস্ট থেকে দোকানপাটসহ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান খোলা হবে এবং কেউ কর্মস্থলে আসতে চাইলে টিকা নিয়ে আসতে হবে। ভ্যাকসিন ছাড়া ১৮ বছরের বেশি বয়সের কোনো মানুষ মুভমেন্ট করলে শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে বিবেচনা করা হবে। দরকার হলে অধ্যাদেশ জারি করেও শাস্তি দেওয়া হতে পারে। যেহেতু এখন সংসদ অধিবেশন নেই, তাই অধ্যাদেশ জারি করা হতে পারে।

মন্ত্রী আরও বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সাত দিনে এক কোটি মানুষকে ভ্যাকসিনের ব্যবস্থা করেছে। সুতরাং ভ্যাকসিন ছাড়া ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে কেউ রাস্তায় বের হলে শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে।

এ বিষয়টি  নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং গণমাধ্যমে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়। এর পর রাতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তার পাঠানো এক বার্তায় বলা হয়, টিকা নেওয়া ছাড়া ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে কেউ বাইরে বের হতে পারবে না- বলে যে সংবাদটি প্রচার হচ্ছে, তা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়নি। প্রচারিত এ তথ্য সঠিক নয়।

টিকা ছাড়া বাইরে বের হলে শাস্তি প্রদানের বিষয়ে সাংবাদিকরা জানতে চাইলে আজ (বুধবার) দুপুরে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেছেন, (গতকালের আন্তঃমন্ত্রণালয়) বৈঠকে বেশিরভাগ অনলাইনে সংযুক্ত ছিলেন, আমিও অনলাইনে সংযুক্ত ছিলাম। সেখানে আসলে এ ধরনের কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি যে, ১৮ বছরের বেশি বয়সের কেউ (টিকা না নিয়ে) বের হলে শাস্তিযোগ্য অপরাধ হবে।

অতঃপর আজ মন্ত্রী মোজাম্মেল হক নিজেই তাঁর পুর্বের  বক্তব্য প্রত্যাহার করে নিলেন। মন্ত্রী তার ব্যাখ্যায় আজ জানিয়েছেন, টিকা ছাড়া চলাচলের ক্ষেত্রে কবে থেকে শাস্তি আরোপ করা হবে, সেই তারিখ আমরা পরে জানাব। আপতত সিদ্ধান্তটি প্রত্যাহার করা হয়েছে। তার আগে দেশের সবাইকে টিকার আওতায় আনা হবে।

এর আগে স্বাস্থ্যমন্ত্রী  জাহিদ মালেক জানিয়েছেন, টিকার জন্য যারা নাম রেজিস্ট্রেশন করাতে পারেন নি তাদেরকে এনআইডি কার্ড দেখে  টিকা দেওয়া হবে। আর যাদের এনআইডি কার্ড নেই, তাদেরকেও টিকা দেওয়া হবে।

 হাসপাতালে শয্যা খালি নেই

এদিকে রাজধানীর করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে শয্যা খালি নেই নোটিশ টাঙিয়ে দেওয়া হয়েছে। মুগদা জকেনারেল হাসপাতালের পরিচালক ডাক্তার অসীম কুমার নাথ জানিয়েছেন, ত্যাঁদড় হাসপাতালে যে পরিমাণ শয্যা বাড়ানো হয়েছে তার চেয়ে বেশি রোগী  আসায় স্থান সংকুলান হচ্ছেনা। এ অবস্থায় সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করা এবং টিকা প্রদানের বিকল্প নেই।

এদিকে  আজ সকাল পর্যন্ত ঢাকার বাইরে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ১৫৭ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিটে গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ২২ জনের মৃত্যু হয়েছে। দে ছাড়া , রাজশাহী বিভাগে ২৮ জন, খুলনা বিভাগে ৩৬ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ৩৩ জন, ঢাকা বিভাগে ১৬ জন, বরিশালে ১৫ জন ও রংপুরে ৭ জনের মৃত্যুর তথ্য পাওয়া গেছে।

মেশিনে ছড়াল ভাইরাস, নমুনা পরীক্ষা বন্ধ

নমুনা পরীক্ষার ল্যাবে করোনা ছড়িয়ে পড়ায় গাজীপুরে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনার নমুনা পরীক্ষা কার্যক্রম সাময়িকভাবে বন্ধ রাখা হয়েছে।

হাসপাতালের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগ ও ল্যাব প্রধান সহকারী অধ্যাপক মো. সাইফুল ইসলাম  আজ  ( বুধবার) এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান,  পিসিআর ল্যাবে ভাইরাস সংক্রমিত হয়ে পড়লে মঙ্গলবার থেকে নমুনা পরীক্ষার কাজ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

মো. সাইফুল ইসলাম জানান, সোমবার বিকেলে পিসিআর মেশিনে করোনা পরীক্ষার জন্য ১২৩টি নমুনা দেওয়া হয়। এতে ১১৫টি পজেটিভ ও ৮টি নেগেটিভ ফল আসে। পরীক্ষার এ ফলাফল নিয়ে আমাদের সন্দেহ হয়। এ ছাড়া পিসিআর টিউবে যেখানে ভাইরাসের উপস্থিতি একেবারেই থাকার কথা নয় সেখানেও ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়ায় বিষয়টি আরও পরিষ্কার হয়। পরে আমরা সকল স্যাম্পল পুনঃপরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠিয়েছি। তিনি বলেন, আশা করছি শুক্রবারের মধ্যে যন্ত্রাংশ এবং ল্যাবটি সম্পূর্ণ জীবাণুমুক্ত করে আবার নমুনা পরীক্ষা করা যাবে।#

পার্সটুডে/ আব্দুর রহমান খান/ বাবুল আখতার/ ৪

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

 

 

 

 

 

ট্যাগ