সেপ্টেম্বর ০৬, ২০২১ ১১:২৮ Asia/Dhaka
  • বিএসএফের হাতে আটক বনানী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সোহেল রানা
    বিএসএফের হাতে আটক বনানী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সোহেল রানা

ভারতে পালিয়ে যাওয়ার সময় বিএসএফের হাতে আটক ঢাকার বনানী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সোহেল রানাকে অবশেষে বরখাস্ত করা হয়েছে। ইতোমধ্যে তার স্থলে নতুন কর্মকর্তাকেও বদলি করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম আজ (সোমবার) সকালে গণমাধ্যমকে বলেছেন, সোহেল রানা ভারতে পালিয়ে গেছেন, গুলশান পুলিশের পক্ষ থেকে এমন রিপোর্ট আসার পর তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। গতকালই তার স্থলে নতুন কর্মকর্তাকে বদলি করা হয়েছে।

বনানী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সোহেল রানা

বিএসএফের হাতে আটক সোহেল রানা গ্রাহকের কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎকারী বহুল আলোচিত ই–কমার্স প্রতিষ্ঠান ই–অরেঞ্জের পৃষ্ঠপোষক। বনানী থানার এই পুলিশ পরিদর্শকের বোন ও ভগ্নিপতি ই–কমার্স প্রতিষ্ঠান ‘ই–অরেঞ্জ’ পরিচালনা করতেন। অর্থ আত্মসাতের মামলায় তাঁর বোন সোনিয়া মেহেজাবিন ও ভগ্নিপতি মাসুকুর রহমান এখন কারাগারে। তাঁর চতুর্থ স্ত্রী নাজনীন নাহার (বীথি) পলাতক। সবশেষ গত বৃহস্পতিবার ই-অরেঞ্জের আরেক গ্রাহকের মামলায় আসামি করা হয় সোহেল রানাকে। ওই রাতেই তিনি পালিয়ে যান।

শুরু থেকেই ই–অরেঞ্জের সঙ্গে নিজের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ অস্বীকার করে আসছিলেন সোহেল রানা। তবে অরেঞ্জ বাংলাদেশ নামে প্রতিষ্ঠান খুলতে নেওয়া টিআইএন সনদে পরিচালক হিসেবে তার নাম দেখা যায়। প্রতিষ্ঠানটি থেকে বিভিন্ন সময়ে আড়াই কোটি টাকা তুলে নেওয়ার অভিযোগও রয়েছে সোহেল রানার বিরুদ্ধে।

ই-অরেঞ্জের গ্রাহকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগের মধ্যে দেশ ছেড়ে পালিয়ে ভারত-নেপাল সীমান্তবর্তী কোচবিহার জেলার চ্যাংরাবান্ধা থেকে শুক্রবার বিকেলে বিএসএফ কর্তৃক আটক হন বনানী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সোহেল রানা।

ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম

গতকাল (রোববার) ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ২১ পরিদর্শক (নিরস্ত্র) পদমর্যাদার কর্মকর্তাকে বদলি করা হয়। তাদের মধ্যে সোহেল রানাকে সরিয়ে উত্তরা পূর্ব থানার ওসি (তদন্ত) আলমগীর গাজীকে একই পদে বনানী থানায় বদলী করা হয়। এ আদেশ দ্রুত বাস্তবায়ন করা হবে।

এরআগে ৫ সেপ্টেম্বর বিকেলে ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম জানান, বনানী থানার ওসি তদন্ত সোহেল রানার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। পাশাপাশি যেহেতু তিনি ভারতে বিএসএফ কর্তৃক আটক রয়েছেন, সেখানেও তার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এজন্য তাকে সরিয়ে নতুন কর্মকর্তা সেখানে বদলি করা হয়েছে। সোহেল রানার বিরুদ্ধে পুলিশ রিপোর্টের অপেক্ষা করছি। রিপোর্ট পেলেই তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এর আগে রোববার দুপুরে তিনি বলেন, যেহেতু ভারতে মামলা হয়েছে এ কারণে তাকে ফিরিয়ে আনা যাবে কি-না সেটি নিশ্চিত না। তবে ফিরিয়ে আনার রাস্তা রয়েছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে বিএসএফকে চিঠি দিয়ে ফিরিয়ে আনা সম্ভব। এটি অনেক সময় করা হয়। আমরা চেষ্টা করছি ফিরিয়ে আনার জন্য। যদি এ মাধ্যমে ফিরিয়ে আনা সম্ভব না হয় তাহলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তাকে ফেরত আনার চেষ্টা করবে। তার ব্যাপারে গুলশান বিভাগ পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে রিপোর্ট পেলে শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে।#

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/৬

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ