জানুয়ারি ২৯, ২০২২ ২০:০৭ Asia/Dhaka
  • নন্দকিশোর গুর্জর
    নন্দকিশোর গুর্জর

ভারতের উত্তর প্রদেশে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের মুখে বিধায়ক এবং বিজেপি প্রার্থী নন্দকিশোর গুর্জর বিতর্কিত মন্তব্য করে বলেছেন, যারা আলীর নাম নেবে তাদের পাকিস্তানে যেতে হবে। আজ (শনিবার) হিন্দি গণমাধ্যম ‘আজতক’-এর ওয়েবসাইটে ওই তথ্য প্রকাশ্যে এসেছে।  

বিজেপি বিধায়ক নন্দকিশোর গুর্জরের দাবি, সন্ত্রাসবাদী সংগঠন হিজবুল মুজাহিদীনের সাথে সমাজবাদী পার্টির (সপা) সম্পর্ক রয়েছে। লোনি কেন্দ্রের বহেতা হাজীপুর গ্রামে নির্বাচনী প্রচারণার সময়ে তিনি এ ধরণের বিতর্কিত মন্তব্য করেন।   

লোনি কেন্দ্রের ভোটারদের উদ্দেশে নন্দকিশোর গুর্জর বলেন, ‘যারা আলীর নাম নেবে, তাদের লোনি ছেড়ে চলে যেতে হবে। এই নির্বাচনের পর লোনিতে সম্পূর্ণ রামরাজ্য হবে।’ তার দাবি, সমাজবাদী পার্টি একটি পাকিস্তানি দল।

তার এ ধরণের বক্তব্য নিয়ে কথা হলে তিনি বলেন, আমার বক্তব্যের জন্য আমার কোনো অনুশোচনা নেই। গুর্জর বলেন, আলীর অনুসারীদের জন্য একটি পৃথক দেশ তৈরি করা হয়েছিল। এর ভিত্তিতে ভারতকে বিভক্ত করা হয়। যারা আলীর নাম নেয় তাদের পাকিস্তানে চলে যাওয়া উচিত। যারা ‘ভারত মাতা’ এবং ‘ভগবান রাম’-এ বিশ্বাস করে তাদেরই ভারতে থাকা উচিত।  

বিজেপি নেতা নন্দকিশোর গুর্জরকে সম্প্রতি তার ‘না আলী, না বাহুবলী, লোনি মে সিরফ বজরঙ্গবলী’ বক্তব্যের জন্য নির্বাচন কমিশন নোটিশ দিয়েছে। কিন্তু গাজিয়াবাদের লোনি কেন্দ্রের বিধায়ক নন্দ কিশোর গুর্জর নির্বাচন কমিশনের সতর্কতাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষমূলক প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন। নির্বাচনী প্রচারে স্লোগান তুলছেন ‘না আলী, না বাহুবলী, কেবল বজরঙ্গবলী’। সরাসরি বলছেন, হিন্দুদের একজোট হয়ে তাকে ভোট করতে হবে। এ সব নিয়ে নির্বাচন কমিশনের নোটিসের পরেও তাকে পাত্তা না দিয়ে ভোট বাক্স ভরাতে সরাসরি সাম্প্রদায়িক জিগির ছড়িয়ে মেরুকরণের রাস্তায় নেমেছেন তিনি।  

লোনি গাজিয়াবাদের পাঁচটি বিধানসভা কেন্দ্রের একটি অংশ। গুর্জর ২০১৭ সালের বিধানসভা নির্বাচনে ৪০ হাজার ভোটের ব্যবধানে জিতেছিলেন। কিন্তু ২০২২ সালের এবারের নির্বাচনে তিনি সমাজবাদী পার্টি এবং রাষ্ট্রীয় লোকদলের যৌথ প্রার্থী মদন ভাইয়ার কাছ থেকে কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে পারেন বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

লোনি কেন্দ্রে ৫ লাখেরও বেশি ভোটার, যার মধ্যে দেড় লাখেরও বেশি মুসলিম সম্প্রদায়ের। গুর্জর এবার ক্ষমতাবিরোধী ঢেউয়ের মুখোমুখি হচ্ছেন। এর পাশাপাশি  বিজেপি’র বিদ্রোহী এবং জাট সম্প্রদায় থেকে আসা লোনি পৌরসভার সভাপতি রজনীতা ধামা নন্দকিশোর গুর্জরের বিরুদ্ধে নির্বাচনী এবং ব্যক্তিগত লড়াইয়ের কথা বলেছেন। এখন নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে, নির্বাচনী ময়দানে কঠিন প্রতিদ্বন্দ্বিতার মুখে পড়ছেন নন্দকিশোর গুর্জর।   

উত্তর প্রদেশের মোট ৪০৩ টি বিধানসভা আসনে সাত দফায় নির্বাচন হবে। প্রথম দফার নির্বাচন হবে আগামে ১০ ফেব্রুয়ারি। নির্বাচনের ফল ঘোষণা হবে আগামী ১০ মার্চ।#

পার্সটুডে/এমএএইচ/২৯

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।              

 

ট্যাগ