মে ২৫, ২০২২ ১৯:০৭ Asia/Dhaka
  • সাবেক কংগ্রেস নেতা কপিল সিব্বল
    সাবেক কংগ্রেস নেতা কপিল সিব্বল

ভারতের প্রখ্যাত আইনজীবী, সাবেক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী কপিল সিব্বল কংগ্রেস ত্যাগ করে সমাজবাদী পার্টির সমর্থনে নির্দলীয় প্রার্থী হিসেবে রাজ্যসভার প্রার্থী হয়েছেন। আজ (বুধবার) ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক মহলে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।

পশ্চিমবঙ্গে ক্ষমতাসীন তৃণমূলের সিনিয়র নেতা অধ্যাপক সৌগত রায় এমপি আজ এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘আমি এই দলবদলের খবরে খুশি নই। কপিল সিব্বল দেশের সবচেয়ে বড় আইনজীবীদের মধ্যে একজন। তিনি তো আর তৃণমূল স্তরে রাজনীতি করে উঠে আসেননি। কংগ্রেসে ছিলেন, কংগ্রেস তাকে ১০ বছরের জন্য মন্ত্রী করে ছিল। কিন্তু এবার ওর রাজ্যসভার মেয়াদ শেষ হয়ে আসছিল তাই উনি বেসুরো হচ্ছিলেন। উনি নিজের ভবিষ্যৎটাই দেখেছেন। এনাদের কোনও রাজনৈতিক প্রতিশ্রুতি থাকে না।'  

অন্যদিকে, ওই ইস্যুতে পশ্চিমবঙ্গে কংগ্রেসের সভাপতি ও লোকসভায় কগ্রেসের দলনেতা অধীর রঞ্জন চৌধুরী এমপি বলেন, ‘উনার রাজ্যসভার টিকিটের দরকার। কংগ্রেসের  হাতে টিকিট নেই তাই উনি চলে গেছেন। কংগ্রেসের যখন ক্ষমতা ছিল তখন ওনাকে মন্ত্রী-সান্ত্রি সবই করা হয়েছিল। রাজ্যসভার সদস্যও করা হয়েছিল। বর্তমানে কংগ্রেসের হাতে অত বিধায়ক না থাকায় রাজ্যসভার টিকিট নিশ্চিত করতে পারছে না। যেখানে টিকিট নিশ্চিত উনি সেখানে গেছেন। কে প্রবীণ নেতা? ছাড়ুন ওসব’ বলেও কটাক্ষ করেন রাজ্য কংগ্রেসের সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী এমপি। 

অন্যদিকে, কপিল সিব্বলকে সমর্থন করার প্রশ্নে, সমাজবাদী পার্টির প্রধান ও উত্তর প্রদেশের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদব বলেছেন, ‘কপিল সিব্বল সমাজবাদী পার্টির সমর্থনে রাজ্যসভায় যাচ্ছেন। কপিল সিব্বল একজন সিনিয়র আইনজীবী। দেশের বহুলালোচিত অনেক মামলা লড়েছেন। এবং তার রাজনৈতিক ক্যারিয়ারও রয়েছে। আইনজীবী হিসেবে তিনি বেশ সফল।’ 

সাম্প্রতিক অতীতে দেশের মুসলিমদের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট গুরুত্বপূর্ণ মামলার সঙ্গে কপিল সিব্বল যুক্ত রয়েছেন। ‘সিএএ’, ‘এনআরসি’, তিন তালাক, বুলডোজার মামলা, হিজাব ইত্যাদি ইস্যুতে কপিল সিব্বল বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে মুসলিমদের পক্ষে সুপ্রিম কোর্টে মামলা লড়েছেন। 

এরআগে ২০০২ সালে গুজরাট দাঙ্গায় নিহত সাবেক কংগ্রেস এমপি এহসান জাফরির স্ত্রী জাকিয়া জাফরির মামলা, বাবরি মসজিদ-রাম মন্দির মামলা, মহারাষ্ট্রের মন্ত্রী নবাব মালিকের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং মামলার বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে সাফাই দিয়েছেন কপিল সিব্বল।   

কপিল সিব্বল মুসলিম অধ্যুষিত এলাকাতেই নির্বাচনী সাফল্য পেয়েছেন। তিনি ২০০৪ এবং ২০০৯ সালে পরপর দু’বার দিল্লির চাঁদনি চক লোকসভা আসন থেকে এমপি নির্বাচিত হন। এটি সেই এলাকা যেখানে শুধু ঐতিহাসিক জামে মসজিদই নয়, পুরানো দিল্লির মতো এলাকাও রয়েছে, যেখানে মুসলিম ভোটারদের সংখ্যা একটি নির্ধারক ভূমিকায় রয়েছে।  

কপিল সিব্বল আজ বলেন, ‘আমরা বিরোধী দলে থেকে এমন একটি জোট গঠন করতে চাই যেন ২০২৪ সালে এমন পরিবেশ তৈরি হয় যাতে মোদী সরকারের ত্রুটিগুলো জনগণের সামনে আনা যায়।’ কপিল সিব্বলকে নিয়ে সমাজবাদী পার্টি প্রধান অখিলেশ যাদবের এই কৌশল দলটির জন্য রাজনৈতিক সুবিধা বয়ে আনতে পারে কী না সেটিই এখন দেখার। #    

পার্সটুডে/এমএএইচ/আবুসাঈদ/২৫

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ