জুন ২৬, ২০২২ ১৮:৪৯ Asia/Dhaka
  • ত্রিপুরায় উপনির্বাচনে জয়ী বিজেপি-কংগ্রেস, জামানত বাজেয়াপ্ত তৃণমূলের

ভারতের বিজেপিশাসিত ত্রিপুরায় বিধানসভার উপনির্বাচনে ৩টি আসনে বিজেপি এবং ১ টিতে কংগ্রেস দল জয়ী হয়েছে। অন্যদিকে, তৃণমূল নেতারা এই নির্বাচনে তেড়েফুঁড়ে মাঠে নামলেও সবক’টি আসনেই তাদের প্রার্থীদের জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। এছাড়া বামফ্রন্টও পারেনি খাতা খুলতে।

ত্রিপুরায় ২০২৩ সালে অনুষ্ঠিতব্য বিধানসভার নির্বাচনকে সামনে রেখে তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এমপি’র নেতৃত্বে দলটি চমকপ্রদ সাফল্যের আশায় ব্যাপক প্রচারণা চালিয়েছিল। মিমি চক্রবর্তীর মতো চিত্র তারকা থেকে শুরু করে আসানসোলের তৃণমূল এমপি ও সাবেক অভিনেতা শত্রুঘ্ন  সিনহাকেও মাঠে নামানো হয়েছিল। কিন্তু তাতে কোনও ফল হয়নি তৃণমূলের। আজ (রোববার) নির্বাচনের ফল প্রকাশে দেখা যাচ্ছে দলটি তৃতীয় স্থানেও উঠে আসতে পারেনি।

ত্রিপুরায় গত ২৩ জুন আগরতলা, টাউন বড়দোয়ালি, সুরমা এবং যুবরাজনগরে উপনির্বাচন হয়। প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন বিভিন্ন দলের মোট ২২ জন প্রার্থী। চার আসনের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ আগরতলা কেন্দ্রটি বিজেপির কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়ে সেখানে জয়ী হয়েছেন কংগ্রেস প্রার্থী সুদীপ রায় বর্মণ। 

ভোটের হারও খুব নগণ্য। মাত্র ২.৮৫ শতাংশ ভোট পেয়েছে তৃণমূল। অন্যদিকে, বিরোধী কংগ্রেস ভোট পেয়েছে ২০.১০ শতাংশ এবং  সিপিএম পেয়েছে ১৯.৭৫ শতাংশ। শাসকদল বিজেপি পেয়েছে ৪৪.৯০ শতাংশ ভোট।  

ত্রিপুরা বিধানসভার উপনির্বাচনের ফল প্রসঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেছেন, ‘এরকম ভাবার কোনও কারণ নেই যে, তৃণমূল কংগ্রেস হতাশ এবং কোনোভাবে এটাকে নেতিবাচক হিসেবে দেখছে। উপনির্বাচনে ঢালাও সন্ত্রাস করেছে বিজেপি। ঢালাও ছাপ্পা ভোট করেছে। তৃণমূলের ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তায় উদ্বিগ্ন বিজেপি এবং তাকে বাম এবং কংগ্রেস হাতে হাত মিলিয়ে তৃনমূলকে রোখার চেষ্টা করেছে।’ ‘তৃণমূল কংগ্রেস আছে, থাকবে এবং ২০২৩ সালে বিকল্প সরকারের তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব দেবে’ বলেও মন্তব্য করেন রাজ্য তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক কুণাল ঘোষ।  

অন্যদিকে, পশ্চিমবঙ্গের বিজেপি বিধায়ক ও বিধানসভার বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী তৃনমূলকে কটাক্ষ করে বলেছেন, ‘যা বলেছিলাম, তাই হয়েছে, ‘তোলামূল’ চতুর্থ হয়েছে। আর সবগুলো আসনে জামানত জব্দ হয়েছে। চোর, কোরাপ্ট,  তোষণবাজ, ফ্যামিলি পার্টিকে কেউ কোথাও গ্রহণ করতে পারে না’ বলেও মন্তব্য করেন বিধানসভার বিরোধী দলনেতা ও বিজেপি বিধায়ক শুভেন্দু অধিকারী। #    

 

পার্সটুডে/এমএএইচ/বাবুল আখতার/২৫

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ