জুলাই ২৬, ২০২২ ১৬:৪৬ Asia/Dhaka
  • গুজরাটে বিষ মদের তাণ্ডব, মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩৫,তদন্ত কমিটি গঠিত

ভারতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির রাজ্য গুজরাটে বিষ মদের কারণে মৃতের সংখ্যা ৩৫ জনে পৌঁছেছে। অন্যদিকে, ৪৭ জনের শারীরিক অবস্থা খুবই খারাপ। তারা ভাবনগর আহমদাবাদ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এরফলে মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

বিষ মদের ঘটনাকে আমলে নিয়ে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী হর্ষ সাঙ্ঘভি ২৪ ঘণ্টার মধ্যে রিপোর্ট চেয়েছেন। প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের গুজরাটের সভাপতি জগদীশ ঠাকুর একটি প্রতিনিধি দল নিয়ে রোজিদ গ্রামে পৌঁছেছেন ক্ষতিগ্রস্তদের সঙ্গে সাক্ষাত করতে।  গত (রোববার) রাতে বোটাদেতে বিষাক্ত মদ পানের পর কমপক্ষে ৪ ডজন লোকের  শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়, যাদেরকে সোমবার সকালে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।  সন্ধ্যা নাগাদ বিষাক্ত মদের কারণে মানুষের মৃত্যুর খবর আসতে থাকে।

ভাবনগর রেঞ্জের আইজি অশোক যাদব ঘটনার তদন্তে একটি বিশেষ তদন্ত দল (সিট) গঠন করেছেন। এর নেতৃত্বে থাকবেন ডেপুটি সুপারিনটেনডেন্ট অব পুলিশ। 

বিষ মদ কাণ্ডের জেরে ক্ষমতাসীন বিজেপির বিরুদ্ধে বিরোধীদের পক্ষ থেকে দুর্নীতির অভিযোগ করে বলা হয়েছে,  গান্ধীজির গুজরাটে মদে নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও প্রত্যেকটি গ্রামেই বেআইনি মদের দোকান খোলা হয়েছে। রাজনৈতিক নেতা ও পুলিশ কর্মকর্তার যোগসাজশে চলছে অবৈধ মদের ব্যবসা।  

ভাবনগর রেঞ্জের পুলিশের আইজি অশোক যাদব তদন্তের জন্য গান্ধীনগর থেকে ‘এফএসএল’ টিমকে ডেকেছেন এবং ‘এফএসএল’ টিম মদের নমুনা নেবে এবং এতে  রাসায়নিক মেশানো আছে কী না তা পরীক্ষা করবে। ঘটনার খবর পেয়ে এটিএস-এর ডিআইজি দীপেন ভদ্রনও রোজিদ গ্রামে পৌঁছান।

গুজরাট সফরে যাওয়া দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী ও আম আদমি পার্টির প্রধান অরবিন্দ কেজরিওয়াল ওই ঘটনায় প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেন, গুজরাটে মদ নিষিদ্ধ। তা সত্ত্বেও এ ধরনের ঘটনা দুর্ভাগ্যজনক! নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও রাজ্যে বেআইনিভাবে মদ  বিক্রি হয় তা সকলেই জানেন, কিন্তু কার প্রশ্রয়ে নির্ভয়ে চলে অবৈধ মদের ব্যবসা? কংগ্রেসের মুখপাত্র মনীশ দোশি এবং মুখপাত্র মনোহর প্যাটেল বিজেপি সরকারকে দোষারোপ করেছেন এবং বলেছেন, সরকারের ভ্রষ্ট নীতির কারণে রাজ্যে গ্রাম থেকে গান্ধীনগর পর্যন্ত দুর্নীতি ছড়িয়ে পড়েছে। সাধারণ মানুষের জীবন দুর্বিষহ হয়ে পড়েছে, মাফিয়া এবং অবৈধ মদের ব্যবসা করা লোকজন পুলিশ কর্মকর্তাদেরও হুমকি দিতে শুরু করেছে। গান্ধীজির গুজরাটে রাজ্য প্রতিষ্ঠার সাথে সাথে মদ নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করা হয়েছিল, কিন্তু বিজেপির ভ্রষ্ট নীতির কারণে আজ মদের ব্যবসা রমরমা হচ্ছে। কংগ্রেসের অভিযোগ-অবৈধ মদের কারণে কোটি কোটি টাকা রাজনৈতিক নেতা এবং কর্মকর্তাদের কাছে পৌঁছায়, তাই এটি বন্ধ করার জন্য কোনও ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে না। # 

পার্সটুডে/এমএএইচ/মো.আবুসাঈদ/২৬

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ