সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২২ ২০:৫০ Asia/Dhaka
  • বনধে ক্ষয়ক্ষতির জন্য পিএফআইকে ৫ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশ দিল কেরালা হাইকোর্ট

ভারতের কেরালা হাইকোর্ট রাজ্যে ধর্মঘটের কারণে ক্ষতিপূরণ হিসাবে ৫ কোটি টাকা প্রদানের নির্দেশ দিয়েছে পপুলার ফ্রন্ট অফ ইণ্ডিয়া বা পিএফআইকে। আজ (বৃহস্পতিবার) পিএফআই নেতাদের বিরুদ্ধে স্বতঃপ্রণোদিত পদক্ষেপ গ্রহণ করে ওই নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

পিএফআই নেতাদের আগামী ২ সপ্তাহের মধ্যে এই পরিমাণ অর্থ জমা করতে হবে। পিএফআইকে দু’সপ্তাহের মধ্যে স্বরাষ্ট্র দফতরের অতিরিক্ত মুখ্য সচিবের কাছে ৫.২০ কোটি টাকা জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। রাজ্যের সরকারি/বেসরকারি সম্পত্তির ক্ষতির জন্য পিএফআইকে ৫ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে রাজ্য সরকারের পাশাপাশি কেরালা স্টেট রোড ট্রান্সপোর্ট কর্পোরেশন বা কেএসআরটিসি দাবি জানিয়েছিল। আদালত পিএফআইকে ভর্ৎসনা করে বলেছে এভাবে সাধারণ নাগরিকদের জীবন ঝুঁকিতে ফেলা যায় না।    

পপুলার ফ্রন্ট অফ ইন্ডিয়ার (পিএফআই) নেতাদের গ্রেফতার ও তাদের বিভিন্ন ঠিকানায় তল্লাশি অভিযানে জাতীয় তদন্তকারী ‘এনআইএ’র পদক্ষেপ গ্রহণের প্রতিবাদে গত ২৩ সেপ্টেম্বর রাজ্যে ধর্মঘটের ডাক দিয়েছিল। 

বিচারপতি একে জয়শঙ্করন নাম্বিয়ার এবং বিচারপতি মুহাম্মাদ নিয়াস সিপির একটি বেঞ্চ ধর্মঘটের তীব্র নিন্দা করেছে। তারা বলেন, রাজ্যে নাগরিকদের জীবন এভাবে বিপদে ফেলা যায় না। বেঞ্চ বলেছে, এটা স্পষ্ট যে কেউ যদি এটি করে তবে তাকে এর ফল ভোগ করতে হবে। 

আদালত বলেছে, আপনি প্রতিবাদ করতে পারেন এবং সংবিধানও এর অনুমতি দেয়, কিন্তু আপনি আচমকা ধর্মঘট করতে পারেন না। আদালত ২০১৯ সালের একটি আদেশে বলেছিল, কেউ যদি সাত দিনের গণবিজ্ঞপ্তির প্রক্রিয়া ছাড়াই ধর্মঘটের ডাক দেয় তবে তা অসাংবিধানিক বলে বিবেচিত হবে। আদালত আরও বলেছিল কোনও ব্যক্তি বা রাজনৈতিক দল এই ধরনের ধর্মঘটের ডাক দিলে তাকে বিরূপ পরিণতির মুখোমুখি হতে হবে।   

আদালত পিএফআইয়ের ধর্মঘটের নিন্দা করে এর বিরুদ্ধে স্বতঃপ্রণোদিত পদক্ষেপ গ্রহণ করা শুরু করেছে। কেরালা স্টেট রোড ট্রান্সপোর্ট কর্পোরেশনও পপুলার ফ্রন্ট অফ ইন্ডিয়ার বিরুদ্ধে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার জন্য নির্দেশনা চেয়ে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিল। আদালত বলেছে, সাধারণ নাগরিকদের মধ্যে হরতাল শব্দের অর্থ অন্য কিছু। আদালত আরও বলেছে মানুষ আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে। এর সঙ্গে সাধারণ মানুষের কী সম্পর্ক? সাধারণ মানুষ কেন কষ্ট পাচ্ছে এবং কীসের জন্য?’  ধর্মঘটের সময় রাজ্যে ঘটে যাওয়া ঘটনার তীব্র নিন্দা করে আদালত বলেছে এই বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ নিশ্চিত করবে যে কেউ পুনরায় একই কাজ করার সাহস করবে না। বেঞ্চ আরও বলেছে তারা দায়রা এবং ম্যাজিস্ট্রেট আদালতকে নির্দেশ দেবেন যে, যেখানেই পিএফআই কর্মীদের জামিনের আবেদন করা হবে সেখানে জামিনের শর্তে সম্পত্তির ক্ষতির জন্য ক্ষতিপূরণের উপরে জোর দিতে হবে।     

পার্সটুডে/এমএএইচ/এমএআর/২৯

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ