অক্টোবর ০৭, ২০২২ ১৯:১২ Asia/Dhaka
  • দিল্লির আম্বেদকর ভবনে গণধর্মান্তরণ কর্মসূচি
    দিল্লির আম্বেদকর ভবনে গণধর্মান্তরণ কর্মসূচি

হিন্দুদের অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগে দিল্লির ক্ষমতাসীন আম আদমি পার্টির নেতৃত্বাধীন সরকারের মন্ত্রী রাজেন্দ্র পাল গৌতমকে বরখাস্ত করার দাবি জানিয়েছে হিন্দুত্ববাদী দল বিজেপি। একইসঙ্গে বিজেপির পক্ষ থেকে মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে দেশবাসীর সামনে কান ধরে ক্ষমা চাওয়ার দাবি জানানো হয়েছে।

গত (বুধবার) দিল্লির আম্বেদকর ভবনে গণধর্মান্তরণ কর্মসূচি ছিল। বৌদ্ধ ধর্ম গ্রহণের সেই অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন কমপক্ষে ১০ হাজার মানুষ। সেখানকার একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। ওই ভিডিওতে প্রকাশ, সেখানে দিল্লির মন্ত্রী রাজেন্দ্র পাল গৌতমের উপস্থিতিতে সেখানে উপস্থিত সকলের উদ্দেশ্যে বলা হচ্ছে, ‘আমার ব্রহ্মা, বিষ্ণু, মহেশ্বরে আর কোনও বিশ্বাস থাকবে না। আমি তাদের পুজোও করব না। রাম এবং কৃষ্ণতেও আমার কোনও বিশ্বাস থাকবে না, যাদের ঈশ্বর রূপে দেখা হয়। আমি তাদের পুজোও করব না।’ 

এরপরেই দিল্লি সরকারের মন্ত্রী ও আম আদমি পার্টির নেতা রাজেন্দ্র পাল গৌতমের বিরুদ্ধে হিন্দু দেব-দেবীর অবমাননার অভিযোগ তুলেছে বিজেপি। দিল্লি বিজেপির সভাপতি আদেশ গুপ্তার অভিযোগ- দশেরা উৎসব উপলক্ষে করোলবাগে আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে হাজার হাজার মানুষের উপস্থিতিতে গৌতম হিন্দু দেব-দেবীদের প্রতি 'অসম্মান' প্রদর্শন করেছেন। 

মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল

আজ (শুক্রবার) বিজেপি নেতা আদেশ গুপ্তা বলেন, ‘এটা প্রথম ঘটনা নয়। হিন্দু দেব-দেবীদের অপমান ও অসম্মান করা আম আদমি পার্টির স্বভাব। আমরা অরবিন্দ কেজরিওয়ালের কাছে অবিলম্বে তার মন্ত্রিসভা থেকে গৌতমকে বরখাস্ত করার দাবি জানাচ্ছি।’  

ওই বিষয়ে বিজেপির মুখপাত্র গৌরব ভাটিয়া বলেছেন, কেজরিওয়ালের নির্দেশেই এই সব হয়েছে। তিনি বলেন, ‘কেজরিওয়ালজী, আপনি হিন্দুদের অনুভূতিতে আঘাত করেছেন। এ জন্য কান ধরে দেশবাসীর কাছে ক্ষমা চাওয়া উচিত। হিন্দুরা তার ঈশ্বরের অবমাননা সহ্য করবে না। আমরা দাবি করছি, এই ধরনের মন্ত্রী, যারা বিদ্বেষ ছড়াচ্ছে, যারা দাঙ্গা ঘটাতে চাইছে, তাদের অবিলম্বে বরখাস্ত করা হোক। আপনাকে অগ্নি পরীক্ষা দিতে হবে। আপনি যদি এটা না করেন তাহলে ধরে নেওয়া হবে ওই কথাগুলো মন্ত্রীর হতে পারে, তার পেছনে আপনি আছেন।’ 

বিজেপি নেতা মনোজ তিওয়ারি এমপিও গৌতমকে মন্ত্রীর পদ থেকে বরখাস্ত করার দাবি জানিয়েছেন। তার দাবি- গৌতমের কর্মকাণ্ড হিন্দু ও বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের মধ্যে শত্রুতা সৃষ্টি করতে পারে। গৌতম সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন যেখানে বৌদ্ধ ধর্মে ধর্মান্তরিত ব্যক্তিরা ভগবান বুদ্ধের শিক্ষা অনুসরণ করার এবং হিন্দু দেবতাদের পুজো ত্যাগ করার সঙ্কল্প গ্রহণ করেছিলেন বলে অভিযোগ।  

অন্যদিকে, দিল্লি সরকারের সমাজকল্যাণ মন্ত্রী রাজেন্দ্র পাল গৌতম বিজেপির করা হিন্দু দেব-দেবীদের অবমাননার অভিযোগের বিষয়ে সাফাইতে বলেছেন, ‘তাদের (বিজেপি) কোনও ইস্যু নেই, যদি তাদের কোনও ইস্যু থাকত তবে তারা এই ধরণের রাজনীতি করত না। বিষয়টিকে অহেতুক গুরুত্ব দেওয়ার চেষ্টা করছে দলটি। প্রত্যেক বছর এই দীক্ষা অনুষ্ঠান হয় এবং বিজেপির মন্ত্রীরাও এতে অংশ নেন।

রাজেন্দ্র পাল গৌতম আরও বলেন, গতকালের আগের দিন নিতিন গড়করি এবং রামদাস আতাওয়ালেও নাগপুরে দীক্ষার অনুরূপ একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন। এটি একটি ধর্মীয় অনুষ্ঠান।’ 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রাজেন্দ্র এক বার্তায় বলেন, বুদ্ধর উদ্দেশে এই অভিযান। অশোকা বিজয়দশমীতে ১০ হাজারেরও বেশি বিদ্বজ্জন জাতপাত এবং অস্পৃশ্যতামুক্ত ভারত গড়ার অঙ্গীকার নিয়েছেন, যা ‘জয় ভীম’ কর্মসূচি নামে পরিচিত।#   

পার্সটুডে/এমএএইচ/এমএআর/৭ 

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ