ডিসেম্বর ১৪, ২০১৯ ২৩:৩৯ Asia/Dhaka
  • ফারুক আব্দুল্লাহ
    ফারুক আব্দুল্লাহ

ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু ও কাশ্মীরের তিনবারের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও লোকসভার বর্তমান সদস্য ফারুক আবদুল্লাহর আটকের মেয়াদ আরও তিন মাস বাড়ানো হয়েছে। ৮২ বছর বয়সী এই রাজনীতিবিদের হৃদযন্ত্র ও কিডনিতে সমস্যা রয়েছে।

ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার ৫ অগাস্ট জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করে রাজ্যটিকে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ভাগের ঘোষণা দিয়ে সেদিনই ফারুক আব্দুল্লাহসহ বহু কাশ্মীরী নেতা আটক করে। শ্রীনগরের নিজ বাড়িতে ফারুক আব্দুল্লাহকে গৃহবন্দি করে বাড়িটিকে সাব-জেল ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ।

কাশ্মীরের জননিরাপত্তা আইনের অধীনে যে কোনো ব্যক্তিকে বিনাবিচারে দুই বছর পর্যন্ত আটক রাখা যায়। এই প্রথম ভারতের কোনো সাবেক মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে এ আইনটি ব্যবহার করা হলো। এই আইনটি সাধারণত সন্ত্রাসী, বিচ্ছিন্নতাবাদী ও নিরাপত্তা বাহিনীর দিকে পাথর নিক্ষেপকারীদের গ্রেপ্তারের পর তাদের আটক রাখতে ব্যবহার করা হয়।  

চলতি মাসের প্রথমদিকে এক চিঠিতে ফারুক আবদুল্লাহ তাকে পার্লামেন্টের শীতকালীন অধিবেশনে যোগ দিতে না দেওয়ায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সরকারের সমলোচনা করেন। ভারতের লোকসভার শীতকালীন অধিবেশন শুক্রবার শেষ হয়।

ওই চিঠিতে আবদুল্লাহ বলেন, “পার্লামেন্টের একজন জ্যেষ্ঠ সদস্য ও একটি রাজনৈতিক দলের নেতার সঙ্গে ব্যবহারের রীতি এটা নয়। আমরা অপরাধী না।”

ফারুক আবদুল্লাহর আটকের মেয়াদ বাড়ানোর সমালোচনা করে একে ‘অসাংবিধানিক’ বলে মন্তব্য করেছেন পশ্চিম বঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

ফারুক আবদুল্লাহর পাশাপাশি তার ছেলে ও সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাহ, জম্মু-কাশ্মীরের আরেক সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও পিডিপির নেত্রী মেহবুবা মুফতি ও কয়েকশত স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাকে গৃহবন্দি করে রাখা হয়েছে।#

পার্সটুডে/এসএ/১৪

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।   

ট্যাগ

মন্তব্য