ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০২০ ১৬:৪৫ Asia/Dhaka
  • ওমর আবদুল্লাহ (গৃহবন্দী হওয়ার আগে ও পরে)
    ওমর আবদুল্লাহ (গৃহবন্দী হওয়ার আগে ও পরে)

সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাহ'র মুক্তির বিষয়ে তাঁর বোনের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে জম্মু ও কাশ্মীর প্রশাসনকে নোটিশ দিয়েছে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। আগামী দু’সপ্তাহের মধ্যে এই নোটিশের জবাব দিতে হবে। একইসঙ্গে জননিরাপত্তা আইনের (পিএসএ) আওতায় ওমর আবদুল্লাহকে বন্দি রাখার বিষয়টি আদৌ বৈধ কিনা তা নিয়েও তদন্ত করবে শীর্ষ আদালত।

সারার আইনজীবী ও সাবেক আইনমন্ত্রী কপিল সিব্বলের করা জরুরি শুনানির আবেদন খারিজ করে দিয়ে সুপ্রিম কোর্ট আজ (শুক্রবার) জানিয়েছে, আগামী ২ মার্চ মামলাটির পরবর্তী শুনানি হবে। 

আজকের শুনানির পর ওমর আবদুল্লাহ'র বোন সারা আবদুল্লাহ পাইলট বলেন, “আশা করছি, অতি শীঘ্রই (ওমরের) মুক্তি হবে। বিচার ব্যবস্থার ওপর আমাদের পূর্ণ আস্থা রয়েছে। আশা করি, ভারতের বাকি অংশের মতোই কাশ্মীরের মানুষজনও সমান অধিকার পাবেন। সে দিনের অপেক্ষায় রয়েছি।”

এর আগে জননিরাপত্তা আইনে ওমর আবদুল্লাহকে বন্দি করার কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন তাঁর বোন সারা আবদুল্লাহ পাইলট। তিনি অবিলম্বে জম্মু ও কাশ্মীরের প্রাক্তন এই মুখ্যমন্ত্রীকে মুক্তি দিতে শীর্ষ আদালতে আবেদন জানান।

গত বছরের ৫ আগস্ট জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা রদ করে সেখানকার বিশেষ রাজ্যের সুবিধা প্রত্যাহার করে কেন্দ্রীয় সরকার। আর তখন থেকেই ওমর আবদুল্লাহ, মেহবুবা মুফতিসহ জম্মু ও কাশ্মীরের রাজনৈতিক নেতাদের গৃহবন্দি করে রাখা হয়। সম্প্রতি তাঁদের ওপর জননিরাপত্তা আইনটিও চাপিয়ে দেওয়া হয়।

এরপর সুপ্রিম কোর্টে দাখিল করা আবেদনে সারা আবদুল্লাহ পাইলট অভিযোগ করেন যে, তাঁর ভাইকে এভাবে গ্রেফতার করায় বাকস্বাধীনতার সাংবিধানিক অধিকার লঙ্ঘিত হয়েছে। এ ধরণের পদক্ষেপ আসলে 'রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বীদেরকে দমিয়ে রাখার লক্ষ্যে ধারাবাহিক ও সম্মিলিত প্রচেষ্টার অংশ।'#   

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/১৪

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

 

ট্যাগ

মন্তব্য