জুন ০১, ২০২০ ১৯:৪৭ Asia/Dhaka
  • উত্তর প্রদেশের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও বহুজন সমাজ পার্টির প্রধান মায়াবতী
    উত্তর প্রদেশের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও বহুজন সমাজ পার্টির প্রধান মায়াবতী

ভারত ও নেপালের মধ্যে সীমান্ত বিবাদ ইস্যুতে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন উত্তর প্রদেশের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও বহুজন সমাজ পার্টির প্রধান মায়াবতী। তিনি আজ (সোমবার) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ওই বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে কেন্দ্রীয় সরকারকে বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে ভাবার আহ্বান জানিয়েছেন।

মায়াবতী আজ বলেন, ‘নেপাল তার দেশের একটি নয়া  মানচিত্র তৈরি করেছে এবং কালাপানিসহ ভারতের ৩৭০ কিলোমিটার এলাকায় দাবী জানিয়ে ভারতকে অবশ্যই একটি নয়া কঠিন পরিস্থিতিতে ফেলেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এমন পরিস্থিতিতে প্রতিবেশী দেশ নেপালের এই অপ্রত্যাশিত পদক্ষেপের বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকারকে অবশ্যই গুরুত্বের সাথে ভাবতে হবে।’

ভারত ও নেপালের মধ্যে সীমান্ত বিবাদের আবহে নেপালের সংসদে ‘ম্যাপ আপডেট বিল’ পেশ করা হয়েছে। গতকাল (রোববার) এ সংক্রান্ত বিল সংসদের নিম্নকক্ষ ‘হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভস’-এ পেশ করেছেন নেপালের আইনমন্ত্রী শিব মায়া তুম্বাহাম্ফি।

নয়াদিল্লির ঘনিষ্ঠ হিসেবে বিরোধী নেপালি কংগ্রেসও বিতর্কিত ওই বিল সমর্থন করার সিদ্ধান্ত নেওয়ায় নেপালি পার্লামেন্টে দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতায় ওই সংবিধান সংশোধনী বিল পাশ হয়ে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।

নেপালি পার্লামেন্টে সংবিধান সংশোধনী বিল পাশ করাতে সাধারণত একমাস সময় লাগে। কিন্তু এক্ষেত্রে দেশবাসীর আবেগের কথা মাথায় রেখে বেশ কিছু প্রক্রিয়া এড়িয়ে আগামী ১০ দিনের মধ্যে ওই বিল পাশ করানো হতে পারে বলে বিশ্লেষকরা মনে করছেন।

নেপালের তৈরি নয়া ম্যাপে ভারত-নেপাল সীমান্তের লিমপিয়াধুরা, কালাপানি ও লিপুলেখকে নেপালের অংশ বলে দাবি করা হয়েছে কিন্তু ভারতের দাবি, ওই তিনটি অংশই ভারতের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ এবং উত্তরাখণ্ড রাজ্যের পিথোরাগড় জেলার অন্তর্ভূক্ত।ভারতের পক্ষ থেকে সম্প্রতি লিপুলেখ গিরিপথ থেকে কৈলাস-মানস সরোবরে যাওয়ার সড়ক উদ্বোধন করেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংহ। এরপরেই প্রতিবাদ জানায় নেপাল সরকার। নয়া মানচিত্র প্রকাশে উদ্যোগী হয় তারা।

নেপালের দাবি, ওই রাস্তার অংশ নেপালের ভূখণ্ডের মধ্যে দিয়ে গেছে। এরপরেই নেপালের ভূমি মন্ত্রণালয় দেশের সংশোধিত নতুন ম্যাপ প্রকাশ করলে তীব্র বিতর্ক শুরু হয়েছে। নয়া মানচিত্রে ভারতের লিপুলেখ গিরিপথ, লিমপিয়াধুরা ও কালাপানিকে নেপালের অংশ হিসেবে দেখানো হয়েছে। ভারত ও নেপালের মধ্যে সীমান্ত বিবাদ ইস্যুতে এই প্রথম কোনও কোনও রাজ্যের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও রাজনীতিবিদ উদ্বেগ প্রকাশ করলেন।

বহুজন সমাজ পার্টির নেত্রী মায়াবতী কেন্দ্রীয় মোদি সরকারের দ্বিতীয় মেয়াদের প্রথম বছর সম্পূর্ণ করার বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের নিজেদের নীতিমালা ও কর্মপদ্ধতিকে পর্যালোচনা করা উচিত বলে মন্তব্য করেছেন।#

পার্সটুডে/এমএএইচ/এমবিএ/১

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

 

ট্যাগ

মন্তব্য