জুলাই ১২, ২০২০ ১৯:৪৬ Asia/Dhaka
  • শরদ পাওয়ার
    শরদ পাওয়ার

ভারতের সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী ও মহারাষ্ট্রের এনসিপি প্রধান শরদ পাওয়ার বলেছেন, ভারতের জন্য পাকিস্তানের চেয়ে বড় বিপদ হল চীন। তিনি শিবসেনা দলের মুখপত্র ‘সামনা’য় দেওয়া সাক্ষাৎকারে ওই মন্তব্য করেছেন। 

শরদ পাওয়ার বলেন, ‘চীন অর্থনৈতিক দিক থেকে শক্তিশালী হয়ে গেছে। এবার তাদের টার্গেট ভারত। মোদি সাহেব সেখানে গিয়ে ওদের সঙ্গে বন্ধুত্ব করেছিলেন। ওঁকে (শি জিনপিং) এখানে এনে দোলনা ঝুলেছিলেন। এসব করে আমরা যেন বড় কিছু করেছি এমন দৃশ্য তৈরি করেছি। একে অন্যের সঙ্গে করমর্দন করে আলিঙ্গন করে দু’দেশের মধ্যে বন্ধুত্ব হচ্ছে এমন দৃশ্য তৈরি করা হয়েছে। আলিঙ্গন করা করমর্দন করা ঠিক আছে কিন্তু এভাবে দু’দেশের সমস্ত সমস্যা সমাধান হয় না। এটা এখন আমরা বুঝতে পারছি।’

তিনি বলেন, ‘এটা সত্য যে পাকিস্তান আমাদের স্বার্থের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ গ্রহণ করে। কিন্তু দীর্ঘমেয়াদী দৃষ্টিকোণ থেকে, কেবলমাত্র চীনেরই আমাদের স্বার্থের ক্ষেত্রে সঠিক সংকট তৈরি করার শক্তি,  দৃষ্টিভঙ্গি এবং কার্যক্রম রয়েছে। চীন আমাদের দেশের দৃষ্টিকোণ থেকে একটি বড় সংকট।’

তিনি বলেন, ‘চীন আমাদের কাছ থেকে ভারতের চারপাশের প্রতিটি দেশকে দূরে সরিয়ে দিয়েছে। পাকিস্তান আগেই তাঁদের সঙ্গে গিয়েছে। সবসময় আমাদের সাথে থাকা নেপাল এখন অনেক দূরে চলে গেছে। মোদি সাহেব প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পরে প্রথমবারের মতো নেপালে গিয়েছিলেন। তিনি সেখানকার পশুপতিনাথ মন্দিরে পুজো করেছিলেন। তাঁদেরকে ভারতের বন্ধু ও প্রথম হিন্দু রাষ্ট্র হিসেবে উল্লেখ করেছিলেন। কিন্তু এখন নেপালও আমাদের সাথে নেই। তারা এখন চীনের সাথে রয়েছে। পাশে বাংলাদেশ দেখুন। বাংলাদেশ গঠনের জন্য আমরা কত কষ্ট ভোগ করেছি! কিন্তু বাংলাদেশও এখন তাদের সঙ্গে রয়েছে। অর্থাৎ পাকিস্তান, নেপাল, বাংলাদেশ এবং শ্রীলঙ্কা চারদিক থেকে আমাদের প্রতিবেশী। এদের সবাইকে চীন তার পক্ষে করে নিয়েছে। এদের মধ্যে থেকে আমরা ভারতবিরোধী সুর শুনতে পাচ্ছি।’ এই অবনতিশীল সম্পর্ক সাম্প্রতিক সময়ের একটি অবদান বলেও শরদ পাওয়ার মন্তব্য করেন। 

এ প্রসঙ্গে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের দেওয়ান আব্দুল গণি কলেজের অধ্যাপক ও সমাজকর্মী ড. মুহাম্মাদ ইসমাইল আজ (রোববার) রেডিও তেহরানকে বলেন, ‘শরদ পাওয়ার বা মুলায়ম সিং যাদব থেকে শুরু করে জর্জ ফার্নান্ডেজ যারা চীনকে প্রধান বিপদ বলেছেন তা একদম ঠিক। কারণ পাকিস্তানের থেকে আমাদের বড় শত্রু হল চীন। পাকিস্তান একটা ছোটো দেশ, আমাদের যা পরিকাঠামো বা প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা তাতে পাকিস্তান কখনওই আমাদের প্রতিপক্ষ নয়। আর্থিক দিক থেকে, সামরিক দিক থেকে, বিজ্ঞান প্রযুক্তির দিক থেকে আমাদের সাথে মোকাবিলা করার মতো শক্তি কোনও অংশেই পাকিস্তানের নেই। ভারতের বিভিন্ন রাজনৈতিক দল যারা বিশেষ করে যারা ‘ধর্মীয় রাজনীতি’ নিয়ে খেলা করে তাঁরাই এটা নিয়ে মানুষের মধ্যে উন্মাদনা সৃষ্টি করে। এবং পাকিস্তান যেহেতু আমাদের একটা অংশ ছিল, দুটো ভাইয়ের মতো জায়গা ছিল সেখান থেকে ভাই যখন বিচ্ছেদ হয়েছে তখন দীর্ঘ শত্রুতা শুরু হয়েছে। সেই শত্রুতাকে জিইয়ে রাখার জন্য একটা কলাকৌশল মাত্র। চীন যে আমাদের প্রধান শত্রু সেটা আমরা সকলেই জানি। কারণ আর্থিক দিক থেকে, প্রতিরক্ষা দিক থেকে চীন অনেক এগিয়ে রয়েছে। চীন যেভাবে আমাদের সমস্ত বাজার দখল করছে এবং আমাদের বাজারের দেশীয় বিভিন্ন জিনিষ একপ্রকার অপ্রাসঙ্গিক হয়ে পড়ছে! এত সস্তা এবং ভালো জিনিষের ফলে চীনা পণ্য ধীরে ধীরে ভারতীয় বাজারকে সম্পূর্ণভাবে গ্রাস করে ফেলেছে।’

ড. মুহাম্মাদ ইসমাইল

তিনি বলেন, ‘চীন সীমান্তে বর্তমানে যেসব কার্যকলাপ চলছে তা অপ্রত্যাশিত। যেহেতু আমাদের মতোই শক্তি রয়েছে চীনের, সেজন্য খুব বেশি আমরা চীনের বিরুদ্ধে কথা বলতে পারি না। অথচ পাকিস্তানের বিরুদ্ধে আমরা সহজেই বলতে পারি কারণ তাদের সেই পরিকাঠামো নেই, খুব সহজেই আমরা তাদের মোকাবিলা করতে পারব। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনলে তা বৈধ স্তর পর্যন্ত পৌঁছে যাবে। বা অনেকেই ভারতের  অভিযোগ নিয়ে চিন্তাভাবনা করবে। কিন্তু চীনের বিরুদ্ধে আমরা যেকোনো অভিযোগ সহজেই নিয়ে আসতে পারি না কারণ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তার একটা গ্রহণযোগ্যতা  রয়েছে।’

‘মুলায়ম সিং যাদব বলুন, শরদ পাওয়ার বলুন এঁদের প্রত্যেকের সঙ্গে সহমত পোষণ করছি যে চীন আমাদের দেশের পক্ষে ‘প্রধান শত্রু’ বলেও অধ্যাপক ড. মুহাম্মাদ ইসমাইল মন্তব্য করেন।

প্রসঙ্গত, শরদ পাওয়ারের আগে বিভিন্ন সময়ে সাবেক প্রতিরক্ষা মন্ত্রী মুলায়ম সিং যাদব, জর্জ ফার্নান্ডেজও চীন ভারতের ‘প্রধান শত্রু’ বলে মন্তব্য করেছেন।#

পার্সটুডে/এমএএইচ/এআর/১২

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ

মন্তব্য