জানুয়ারি ১৮, ২০২১ ২০:৩৬ Asia/Dhaka
  • চীনের বিরুদ্ধে ভারতের অরুণাচল প্রদেশে গ্রাম তৈরির অভিযোগে চাঞ্চল্য

ভারত ও চীনের মধ্যে পূর্ব লাদাখে চলমান সীমান্ত সংঘাতের আবহে এবার ভারতের অরুণাচল প্রদেশের মধ্যে চীন একটি নয়া বসতি স্থাপন করেছে বলে জানা গেছে। আজ (সোমবার) এনডিটিভি হিন্দি ওয়েবসাইটে ওই তথ্য প্রকাশ্যে আসায় কার্যত একটি নয়া উদ্বেগের সৃষ্টি হয়েছে। এনডিটিভি যে এক্সক্লুসিভ স্যাটেলাইট ছবি পেয়েছে, তাতে প্রকাশ, চীন অরুণাচল প্রদেশে তাসরি চু নদীর তীরে একটি নয়া গ্রাম প্রতিষ্ঠা করেছে, যেখানে কমপক্ষে ১০১ টি বাড়ি রয়েছে।

২০২০ সালের ১ নভেম্বর তোলা ওই ছবিগুলো সম্পর্কে এনডিটিভি বেশ কিছু  বিশেষজ্ঞের সাথে যোগাযোগ করলে তারা নিশ্চিত করেছেন যে ওই গ্রামটি ভারতের প্রকৃত সীমান্তের মধ্যে ৪.৫ কিলোমিটার অবধি রয়েছে এবং এটি ভারতের জন্য অত্যন্ত উদ্বেগের বিষয় হবে। 

২০১৯ সালের তোলা ছবিতে জঙ্গলাকীর্ণ তাসরি চু নদীর তীরে জনবসতির কোনও চিহ্ন নেই। কিন্তু মাত্র আড়াই  মাস আগে তোলা স্যাটেলাইট ছবিতে দেখা যাচ্ছে বাড়ির সারি। ওই এলাকার  অবস্থান প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা ‘এলএসি’ থেকে কমপক্ষে সাড়ে ৪ কিলোমিটার ভিতরে, ভারতীয় ভূখণ্ডে বলে দাবি করা হয়েছে।  

কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে প্রকাশিত খবরের সরাসরি বিরোধিতা করা হয়নি। চীনের সামনে কূটনৈতিকভাবে বিষয়টি উল্লেখ করা হয়েছে কী না সেই প্রশ্নের সরাসরি জবাব না দিয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ‘গত কয়েকবছরে চীন ‘এলএসি’ বরাবর পরিকাঠামো  উন্নয়নের কাজ করছে। এ বিষয়ে সাম্প্রতিক কিছু রিপোর্টও এসেছে’। 'সরকার ভারতের সুরক্ষা সম্পর্কিত প্রতিটি উন্নয়ন নিয়মিত পর্যবেক্ষণ করে এবং নিজেদের আঞ্চলিক অখণ্ডতা বজায় রাখতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করে বলেও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে মন্তব্য করা হয়েছে।     

প্রসঙ্গত, গত ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে অরুণাচল প্রদেশের বিজেপি সংসদ সদস্য টাপির গাও অভিযাগ করেছিলেন, ‘এলএসি’ পেরিয়ে চীনা সেনারা ভারতীয় এলাকায় ঢুকে একটি ঝুলন্ত সেতু নির্মাণ করেছে। তাঁর এধরণের অভিযোগকে কেন্দ্র করে সেসময়ে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়। কিন্তু ভারতীয় সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে তাঁর ওই দাবিকে খারিজ করে দেওয়া হয়েছিল।#

পার্সটুডে/এমএএইচ/এমিবএ/১৮

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

 

        

 

 

ট্যাগ