এপ্রিল ২৮, ২০২১ ১৮:১৪ Asia/Dhaka

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে ক্ষমতাসীন তৃণমূলের সিনিয়র নেতা অধ্যাপক সৌগত রায় (এমপি) বলেছেন, করোনা ভ্যাকসিন ইস্যুতে কেন্দ্রীয় সরকার মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করেছে। তারা রাজ্যের সঙ্গেও প্রতারণা করেছে।

তিনি আজ (বুধবার) পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী কোলকাতায় রাজ্য তৃণমূল ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে ওই মন্তব্য করেন। অধ্যাপক সৌগত রায় বলেন, ‘কেন্দ্রীয় সরকার ভ্যাকসিনের দু’রকম দাম ঠিক করেছে। কেন্দ্রীয় সরকার বলেছিল ১৮/৪৫ বছরের মধ্যে সবাই ভ্যাকসিন পাবে। কিন্তু আজকে বলল, রাজ্য সরকারের কাছে যে ভ্যাকসিন আছে তাতে কেবলমাত্র ৪৫ বছরের উপরে যারা তাঁদের ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। তারা মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করছে। রাজ্যের সঙ্গেও প্রতারণা করেছে। এখন বিরাট লাইন হচ্ছে। রাত ২ টা থেকে লোকে ভ্যাকসিনের জন্য লাইন দিচ্ছে। এ জন্য সম্পূর্ণভাবে দায়ী কেন্দ্রীয় সরকার।’

অধ্যাপক সৌগত রায় সাম্প্রতিক রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনে করোনা বৃদ্ধি প্রসঙ্গে নির্বাচন কমিশন ও কেন্দ্রীয় সরকারের ভূমিকার তীব্র সমালোচনা করে বলেন, ‘আমরা বলি সুপার স্প্রেডার আছে অনেক। কেন্দ্রীয় সরকার এবং নির্বাচন কমিশন হচ্ছে সুপার স্প্রেডার। মাদ্রাজ হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি এ নিয়ে বলেছেন।’ 

তিনি বলেন, ‘এপ্রিল মাসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বাংলায় বিধানসভা নির্বাচন উপলক্ষে পঞ্চাশটি জনসভা করেছেন। একদিনে দু’টির বেশি জনসভা হয়েছে। এক্ষেত্রে কোনও কোভিড সুরক্ষা বিধি মানা হয় নি। প্রথমদিন থেকে তৃণমূল কংগ্রেস বলে এসেছে যে রাজ্যে ৮ দফায় নির্বাচন নয়। এজন্য অনেক চিঠি লেখা হয়েছে। কিন্তু নির্বাচন কমিশন শোনে নি। তৃণমূল সর্বশেষ গত ১৯ তারিখে বলেছিল যে শেষ তিন দফার নির্বাচন একসঙ্গে করা হোক। নির্বাচন কমিশন তাও শোনেনি। সেজন্য বিভিন্ন হাইকোর্ট নির্বাচন কমিশনকে দায়ী করেছে।’

‘মানুষের রক্ত নির্বাচন কমিশন ও কেন্দ্রীয় সরকারের হাতে লেগে আছে। বাংলায় করোনা বৃদ্ধির জন্য কেন্দ্রীয় সরকার ও নির্বাচন কমিশন দায়ী’ বলেও অধ্যাপক সৌগত রায় এমপি মন্তব্য করেন।#

পার্সটুডে/এমএএইচ/আবুসাঈদ/২৮

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ