জুন ১৩, ২০২১ ১৭:৪৩ Asia/Dhaka
  • ভারতের মধ্য প্রদেশের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও কংগ্রেসের সিনিয়র নেতা দিগ্বিজয় সিং এমপি
    ভারতের মধ্য প্রদেশের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও কংগ্রেসের সিনিয়র নেতা দিগ্বিজয় সিং এমপি

ভারতের মধ্য প্রদেশের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও কংগ্রেসের সিনিয়র নেতা দিগ্বিজয় সিং এমপি বলেছেন, আগামী নির্বাচনে কংগ্রেস যদি কেন্দ্রে ক্ষমতায় আসে, জম্মু-কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা বিলোপের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করে দেখা হবে।

তাঁর ওই মন্তব্য প্রসঙ্গে বিজেপি বলেছে এটাই তো পাকিস্তান চায়।  

দিগ্বিজয় সিং তাঁর সাফাইতে বলেছেন, অহেতুক তার মন্তব্য নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি  করা হচ্ছে। তিনি বলেন, ‘কিছু করে দেখানো এবং ভাবনাচিন্তা করার মধ্যে পার্থক্য রয়েছে। যেভাবে ৩৭০ ধারা বিলোপ করা হয়, শুরুতেই সংসদে তার  বিরোধিতা করে কংগ্রেস। কারণ এ নিয়ে উপত্যকার মানুষের মতামত নেওয়াকে ধর্তব্যের মধ্যেই আনা হয়নি।’ 

আজ (রোববার) কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ ৩৭০ ধারা ইস্যুতে কংগ্রেস নেতৃত্বের কাছে তাঁদের অবস্থান স্পষ্ট করতে বলেছেন। কংগ্রেস দিগ্বিজয় সিংয়ের মতো ৩৭০ ধারা পুনর্বহাল করতে চায় কী না সেই প্রশ্নও করেছেন কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী। 

সম্প্রতি একটি অনলাইন বৈঠকে অংশ নিয়েছিলেন কংগ্রেস নেতা দিগ্বজয় সিং। সেখানে এক পাকিস্তানি সাংবাদিক ছাড়াও অন্য ব্যক্তিরাও ছিলেন। ওই পাক সাংবাদিক জম্মু-কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা বিলোপ নিয়ে দিগ্বিজয়ের মতামত জানতে চাইলে দিগ্বিজয় সিং ওই মন্তব্য করেন। 

এর পরেই দিগ্বিজয় এবং ওই সাংবাদিকের অনলাইন চ্যাটের একটি অডিয়ো রেকর্ডিং নেটমাধ্যমে তুলে ধরেন বিজেপি’র আইটি সেলের প্রধান অমিত মালব্য। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী গিরিরাজ সিংয়ের অভিযোগ, ‘কংগ্রেসের প্রথম ভালোবাসা হল পাকিস্তান। দিগ্বিজয় সিং ৩৭০ ধারা নিয়ে যা বলেছেন, আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রেও পাকিস্তান একই কথা বলে থাকে।’   

অমিত মালব্য বলেছেন, ‘রাহুল গান্ধীর বিশ্বস্ত দিগ্বিজয় সিং পাকিস্তানি সাংবাদিককে জানিয়েছেন, কংগ্রেস ক্ষমতায় এলে ৩৭০ ধারা বিলোপের সিদ্ধান্ত  পুনর্বিবেচনা করে দেখা হবে। একই কথা তো পাকিস্তান বলে থাকে।’ 

বিমান পরিবহণ মন্ত্রী হরদীপ সিং পুরীর অভিযোগ, দিগ্বিজয় সিং কাশ্মীরে অশান্তিতে উসকানি দিচ্ছেন।

মধ্য প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী ও বিজেপি নেতা শিবরাজ সিং চৌহানের দাবি, কংগ্রেস পাকিস্তানের ভাষায় কথা বলছে।    

বিজেপি’র সর্বভারতীয় মুখপাত্র সম্বিত পাত্রের বক্তব্য, ‘ভারতের বিরুদ্ধে বিষ ছড়িয়ে বেড়াচ্ছেন দিগ্বিজয়।’ 

কাশ্মীর উপত্যকার সাবেক উপ-মুখ্যমন্ত্রী ও বিজেপি নেতা কবীন্দ্র গুপ্তর মতে, ‘দিগ্বিজয়ের বক্তব্য লজ্জাজনক।’   মধ্য প্রদেশের বিজেপি নেতা বিষ্ণু দত্ত শর্মা এমপি কংগ্রেস নেতা দিগ্বিজয় সিংয়ের বিরুদ্ধে জাতীয় তদন্ত সংস্থা ‘এনআইএ’ তদন্ত করার দাবি জানিয়েছেন। তিনি এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহকে চিঠি লিখেছেন।  

অন্যদিকে, আজ (রোববার) পাল্টা জবাবে দিগ্বিজয় সিং আরএসএসের শীর্ষ এক নেতার পুরোনো মন্তব্যকে অস্ত্র করে বিজেপিকে পাল্টা প্রশ্ন করে  বলেছেন, ‘মোহন ভাগবতজিকেও কী পাকিস্তানে পাঠানো হবে এবং তাঁর বিরুদ্ধেও কী এনআইএ তদন্ত হবে?’ দিগ্বিজয় এব্যাপারে ৬ বছরের একটি  পুরনো খবরকে উদ্ধৃত করে বলেন, আরএসএসের পক্ষ থেকে পাকিস্তানকে ভাইয়ের মতো উল্লেখ করা হয়েছিল বলে মন্তব্য করেন।       

কংগ্রেসের দাবি, যেভাবে কাশ্মীর উপত্যকার বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নেওয়া হয়েছে, শুরু থেকেই তার বিরোধিতা করে আসছে তারা। এর সঙ্গে পাকিস্তানকে জুড়ে দেওয়া আসলে বিজেপি’র চাল।

অন্যদিকে, দিগ্বিজয় সিংয়ের মন্তব্যকে স্বাগত জানিয়েছেন জম্মু-কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও ন্যাশনাল কনফারেন্সের প্রধান ডা. ফারুক আবদুল্লাহ। তিনি বলেন,  ‘৩৭০ ধারা নিয়ে মুখ খোলার জন্য ওঁকে ধন্যবাদ।    বিজেপি’রও বিষয়টি ভেবে দেখা  উচিত। অটলবিহারী বাজপেয়ী (প্রয়াত  সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিজেপির সাবেক শীর্ষ নেতা) কাশ্মীরকে মানবিকতা, গণতন্ত্রের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। ২০১৯ সালে যা হয়েছে তা গণতন্ত্রের মধ্যে পড়ে না। আমরা পাকিস্তানি নই, ভারতীয়। ভারতের একটি দল আমরা। আমাদের পাকিস্তানি বলবেন না।’    

ভারতের কেন্দ্রীয় বিজেপি সরকার ২০১৯ সালের আগস্টে জম্মু-কাশ্মীরের বাসিন্দাদের জন্য বিশেষ সুবিধা সম্বলিত ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার করে নিয়েছে। ওই ইস্যুতে সেখানকার মানুষজনের মধ্যে তীব্র অসন্তোষ রয়েছে।#

পার্সটুডে/এমএএইচ/আবুসাঈদ/১২

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ