জুলাই ২৭, ২০২১ ১৮:৩৪ Asia/Dhaka
  • অসম-মিজোরাম সীমান্ত সংঘাত
    অসম-মিজোরাম সীমান্ত সংঘাত

ভারতের অসম ও মিজোরাম রাজ্যের মধ্যে সীমান্ত বিবাদকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের জেরের মিজোরাম পুলিশের গুলিবর্ষণ ও দুর্বৃত্তদের হামলায় অসমের ৫ পুলিশ সদস্যসহ ৬ জন নিহত ও কমপক্ষে ৭০ জন আহত হয়েছেন।

এ সম্পর্কে আজ (মঙ্গলবার) কংগ্রেসের সাবেক সভাপতি রাহুল গান্ধী এমপি এবং তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এমপি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে এক বার্তায় কেন্দ্রীয় সরকারের তীব্র সমালোচনা করেন।  

রাহুল গান্ধী এক বার্তায় বলেন, ‘নিহতদের পরিবারকে সমবেদনা জানাই। আশা করছি আহতরা দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবেন। মানুষের জীবনে ঘৃণা ও হিংসার যে বীজ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক বপন করেছে, তা আরও একবার দেশের নাম খারাপ করল। ভারত এখন তার ভয়ঙ্কর ফল ভোগ করছে।’    

অন্যদিকে, আজ পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল নেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এক  বার্তায় বলেন, ‘অসম, মিজোরাম সীমান্তে সহিংসতার ঘটনায় হতবাক ও স্তম্ভিত! মৃতদের পরিবারকে জানাই সমবেদনা। বিজেপি সরকারের অধীনে এই ধরনের ঘটনা গণতন্ত্রের মৃত্যু ঘটাচ্ছে।’    

সংঘর্ষে আহতদের দেখতে আজ (মঞ্চলবার) শিলচর হাসপাতালে যান অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্তবিশ্ব শর্মা। পরে গণমাধ্যমে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘এই সংঘর্ষ দুটি রাজনৈতিক দলের মধ্যে হয়নি। হয়েছে দু’টি রাজ্যের মধ্যে। অসমে যখন কংগ্রেস ক্ষমতায় ছিল তখনও সংঘর্ষ হয়েছে। আমরা শান্তি চাই। সেজন্য যা পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হয় করব। কিন্তু এক ইঞ্চি জমিও দেবো না। ওদের এলাকা দখলও করতে যাব না।’ 

সোমবার বিকেলে কাছাড়-মিজোরাম সীমান্তের লায়লাপুরে ভয়াবহ ওই ঘটনায় নিহতরা হলেন নজরুল হোসেন লস্কর, এন হুসেইন, সামসুজ্জামান বড়ভুঁইয়া, মাজহারুল হোসেন বড়ভুঁইয়া, লিটন শুক্ল বৈদ্য এবং স্বপন কুমার রায়। ওই সংঘর্ষে পুলিশ সদস্য ও গ্রামবাসীসহ কমপক্ষে ৭০ জন আহত হয়েছেন।

অসম সরকারের পক্ষ থেকে নিহতদের স্মরণে রাজ্যে তিন দিনের জন্য শোকপালনের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্তবিশ্ব শর্মা বলেন, 'মিজোরাম পুলিশ ও দুর্বৃত্তরা অসমের ৫ পুলিশ সদস্যকে হত্যা ও বহু লোককে আহত করার পরে উদযাপন করছে। এটা খুব দুঃখজনক ও ভয়াবহ। মিজোরাম পুলিশ অসম পুলিশের উপরে এলএমজি’র সাহায্যে গুলিবর্ষণ করেছে বলেও অসম সরকারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা  হয়েছে।#

পার্সটুডে/এমএএইচ/ মো.আবুসাঈদ /২৭

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ