জুলাই ৩০, ২০২১ ১৮:০৭ Asia/Dhaka
  • ভারতে ‘পেগাসাস’ ইস্যুতে আগামী সপ্তাহে শুনানি হবে সুপ্রিম কোর্টে

ইহুদিবাদী ইসরাইলি পেগাসাস স্পাইওয়্যারের সাহায্যে ফোনে আড়ি পাতা ইস্যুতে আগামী সপ্তাহে সুপ্রিম কোর্টে শুনানি হবে। আজ (শুক্রবার) প্রধান বিচারপতি এনভি রমনার বেঞ্চে বিষয়টি উত্থাপিত হয়। যার উপর প্রধান বিচারপতি বলেন, তিনি আগামী সপ্তাহে বিষয়টি শুনবেন।

আজ বেসরকারি হিন্দি টিভি চ্যানেল ‘আজতক’ জানিয়েছে,  সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী কপিল সিব্বল আজ (শুক্রবার) প্রধান বিচারপতি এনভি রমনার সামনে বিষয়টি উত্থাপন করেন। তিনি সিনিয়র সাংবাদিক এন রামের দায়ের করা আবেদনের বিষয়ে উল্লেখ করেন এবং ওই বিষয়ে দ্রুত শুনানির আবেদন জানান। প্রধান বিচারপতি আগামী সপ্তাহে বিষয়টি শুনবেন বলে মন্তব্য করেন।       

সুপ্রিম কোর্টে দায়ের করা আবেদনে বলা হয়েছে, ‘পেগাসাস’ ইস্যুটি সুষ্ঠুভাবে তদন্ত করা উচিত। ওই তদন্তের নেতৃত্ব দিতে হবে সুপ্রিম কোর্টের একজন বর্তমান অথবা অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতিকে। সরকারি এজেন্সিগুলো ‘পেগাসাস’ স্পাইওয়্যারের সাহায্যে সাংবাদিক, বিচারপতি এবং অন্যদের উপরে   গুপ্তচরবৃত্তি করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।  

গণমাধ্যম ‘দ্য ওয়্যার’-এর রিপোর্টে প্রকাশ, পেগাসাস স্পাইওয়্যার ব্যবহার করে দেশের কেন্দ্রীয় মন্ত্রী, বিরোধী দলীয় নেতা-নেত্রী, শিল্পপতি, ব্যবসায়ীসহ তিনশোর বেশি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব এবং এরমধ্যে কমপক্ষে ৪০ জন সাংবাদিকের ফোনে আড়ি পাতা হয়েছে। বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই দেশজুড়ে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে।   

কেন্দ্রীয় তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব অবশ্য ফোনে আড়ি পাতা কাণ্ডের বিষয়ে সরকারের কোনও সম্পর্ক নেই বলে সাফাই দিয়েছেন। 

অন্যদিকে, পেগাসাস ইস্যুতে সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্টের হস্তক্ষেপ চেয়ে প্রধান বিচারপতি এনভি রমনাকে চিঠি দিয়েছেন ৫০০ বিশিষ্ট নাগরিক। তাঁদের মতে এটা সাইবার যুদ্ধ ছাড়া আর কিছু নয়। সেজন্য দেশে যেন অবিলম্বে পেগাসাস স্পাইওয়্যারের কেনাবেচা, লেনদেন, ব্যবহার বন্ধ করার নির্দেশ দেওয়া হয়। ওই চিঠিতে আরও বলা হয়েছে, পেগাসাস সংক্রান্ত যাবতীয় প্রশ্নের উত্তর কর্তৃপক্ষের কাছে চাইতে হবে সুপ্রিম কোর্টকে। কেন্দ্রীয় সরকারকে জবাবদিহি করতে হবে আদালতের কাছে। 

সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী ও তৃণমূল সভানেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়  ‘পেগাসাস’ ইস্যুতে উদ্বেগ প্রকাশ করে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিদের তত্ত্বাবধানে তদন্তের দাবি জানিয়েছিলেন। তিনি বলেন, ‘পেগাসাস আসলে এক ভয়ঙ্কর ভাইরাস! এটা আমাদের, আপনাদের সবার সুরক্ষা ও নিরাপত্তা শেষ করে দিতে পারে। সুপ্রিম কোর্টের উপরে আমার আস্থা রয়েছে। তাঁদের কর্মরত বিচারপতিরা মিলে বিষয়টি তদন্ত করুন, সত্যিটা সামনে আসুক। আমরা সংসদে বিষয়টি তুলছি, কিন্তু সরকার তাতে কর্ণপাত করছে না!’ কেন্দ্রীয় সরকার মানুষের মৌলিক অধিকারে হস্তক্ষেপ করছে বলেও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মন্তব্য করেন।#

পার্সটুডে/এমএএইচ/ আবুসাঈদ/৩০

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ