অক্টোবর ১৯, ২০২১ ১৯:১৪ Asia/Dhaka

বাংলাদেশের বিভিন্ন জায়গায় সাম্প্রদায়িক সহিংসতা এবং পুজো মণ্ডপে হামলার প্রতিবাদে পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী কোলকাতায় একাধিক গণসংগঠনের পক্ষ থেকে প্রতিবাদ কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

বাংলাদেশের ঘটনাকে কেন্দ্র করে সাম্প্রদায়িক শক্তি উভয় দেশে অশান্তি সৃষ্টির অপচেষ্টা চালাচ্ছে বলে প্রতিবাদ কর্মসূচির আয়োজকরা মনে করছেন। এর প্রতিবাদে গতকাল (সোমবার) বিকেলে কোলকাতার অ্যাকাডেমি অফ ফাইন আর্টস-এর সামনে বিভিন্ন গণসংগঠনের প্রতিনিধি ও নেতারা অবস্থান-বিক্ষোভ করেন।   

জামায়াতে ইসলামী হিন্দের বিভাগীয় রাজ্য সম্পাদক সাদাব মাসুম তাঁর বক্তব্যে বলেন, ‘আজকে বাংলাদেশে যারাই ওই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত থাকুক, আমরা তাঁর বিরোধিতা করছি। এবং আমরা বলতে চাই তারা যদি ইসলামের নাম নিয়ে এসব কাজ করে থাকে তাহলে ইসলামের সঙ্গে তাদের কোনও সম্পর্ক নেই। ওদের নামের সঙ্গে ইসলাম বা অন্যকিছু যুক্ত থাকলেও ইসলামের সঙ্গে তাদের কোনও সম্পর্ক থাকতে পারে না।’  

বাংলাদেশে সংখ্যালঘুদের ধর্মীয় স্থানে কোনোভাবেই আক্রমণ করা যাবে না, সংখ্যালঘুদের উপরে আক্রমণ করা যাবে না। যারা এসব ঘটনায় যুক্ত তাদেরকে যেন বাংলাদেশ সরকার কঠোর শাস্তি দেয়’ বলেও জামায়াত নেতা সাদাব মাসুম দাবি জানান।   

ওই প্রতিবাদ সভায় বিভিন্ন সংগঠনের বক্তারা বাংলাদেশের সাম্প্রতিক সহিংসতার তীব্র প্রতিবাদ জানান। তাঁরা ওই ঘটনার সঠিক তদন্ত করে নেপথ্যের ষড়যন্ত্রকে উদ্ঘাটন করে দোষীদের উপযুক্ত শাস্তির দাবি তোলেন। ওই প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন মানবাধিকার সংস্থা ‘বন্দিমুক্তি কমিটি’র সম্পাদক ছোটন দাস, জামায়াতে ইসলামী হিন্দের বিভাগীয় রাজ্য সম্পাদক সাদাব মাসুম, ‘বাংলা বাঁচাও, সংবিধান বাঁচাও মঞ্চ’র ভানু সরকার,  যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ভাস্কর গুপ্ত, ‘ভাষা ও চেতনা সমিতি’র সম্পাদক ও কোলকাতার প্রেসিডেন্সি কলেজের সাবেক অধ্যাপক ড. ইমানুল হক, ফ্রেন্ড অফ ডেমোক্রেসির পার্থ বোস, জামায়াতে ইসলামী হিন্দের রাজ্য  দফতর সম্পাদক সাবির আলি, জনসংযোগ বিভাগের সহকারী সুজাউদ্দিন আহমেদ, অনন্য সাংস্কৃতিক অঙ্গনের এস.নওয়াজ প্রমুখ।#     

পার্সটুডে/এমএএইচ/এমবিএ/১৯

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ