অক্টোবর ২০, ২০২১ ১৯:২০ Asia/Dhaka
  • বাংলাদেশে সহিংস ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ভারতে ফের ‘সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন’বাস্তবায়নের দাবি উঠল

বাংলাদেশে সাম্প্রতিক সহিংসতার পরিপ্রেক্ষিতে বিজেপি এমপি জগন্নাথ সরকার নয়া নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) দ্রুত কার্যকর করার দাবি তুলেছেন। গতকাল (রোববার) প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে তিনি এ ব্যাপারে চিঠি দিয়েছেন। এরআগে ওই আইন বাস্তবায়নের চেষ্টা করলেও কার্যত বিরোধীদের চাপের মুখে সরকার কিছুটা পিছিয়ে যায়। ফলে এখনও এ সংক্রান্ত কোনও বিধি তৈরি করা সম্ভব হয়নি।

এদিকে আজ (বুধবার) পশ্চিমবঙ্গের বিজেপি সভাপতি সুকান্ত মজুমদার বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে কী কথা বলেছে না বলেছে  আপনারা ভবিষ্যতে ঠিক জানতে পারবেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের দেশের একটি আইন ‘সিএএ’নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলতে পারেন যে তিনি রাষ্ট্রপুঞ্জে যাবেন, সে ক্ষেত্রে তার পার্শ্ববর্তী দেশ যেখানে নাকি বাঙালিরাই থাকে সেই জায়গায় এত বড় ঘটনা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী কিছু বলছেন না, এটা খুব চিন্তার বিষয় বলে আমার মনে হয়।’

এদিকে, বাংলাদেশের সাম্প্রতিক ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন ভারতের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী নিশীথ প্রামাণিক। বাংলাদেশের ঘটনা অত্যন্ত উদ্বেগজনক বলে মনে করছেন তিনি। তিনি বলেন, প্রয়োজন হলে বাংলাদেশ  সরকারের সঙ্গে কথা আলোচনা করতে পারে ভারত সরকার।

দ্বিতীয় বার ক্ষমতায় এসে নাগরিকত্ব আইনে সংশোধনী আনে কেন্দ্রীয়  বিজেপি সরকার। সংশোধিত নয়া নাগরিকত্ব আইনে বলা হয়, আফগানিস্তান, পাকিস্তান ও বাংলাদেশে ধর্মীয় অত্যাচারের শিকার হয়ে ছ’টি ধর্মাবলম্বী (হিন্দু, বৌদ্ধ, শিখ, পার্সি, জৈন ও খ্রিস্টান) ব্যক্তিরা যদি ২০১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে ভারতে আশ্রয় নিয়ে থাকেন, কেন্দ্রীয় সরকার তাদের এ দেশের নাগরিকত্ব প্রদান করবে। 

কিন্তু এভাবে ধর্মের ভিত্তিতে হওয়া আইনে সে সময়ে প্রতিবাদ জানিয়েছিল কংগ্রেসসহ অন্য বিভিন্ন বিরোধী দল ও সামাজিক সংগঠন। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও ‘সিএএ’আইনের তীব্র বিরোধী।#

        

পার্সটুডে/এমএএইচ/এমবিএ/২০

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ