নভেম্বর ২২, ২০২১ ০০:৪৪ Asia/Dhaka
  • বক্তব্য রাখছেন রেডিও তেহরান বাংলা বিভাগের সিনিয়র সাংবাদিক সিরাজুল ইসলাম
    বক্তব্য রাখছেন রেডিও তেহরান বাংলা বিভাগের সিনিয়র সাংবাদিক সিরাজুল ইসলাম

ইরানের রাষ্ট্রীয় সম্প্রচার সংস্থার (আইআরআইবি) বিশ্ব কার্যক্রমের বাংলা বিভাগ রেডিও তেহরান কর্তৃক শিশু-কিশোরদের জন্য সাপ্তাহিক অনুষ্ঠান ‘রংধনু আসর’-এর জনপ্রিয়তা বাড়ানোসহ শ্রোতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রচারমূলক কর্মসূচি পালন করেছে দেশ ও বিদেশের অন্যতম বেতার শ্রোতা সংগঠন সাউথ এশিয়া রেডিও ক্লাব (সার্ক) বাংলাদেশ।

২০ নভেম্বর শনিবার বিকেলে রাজধানী ঢাকার মোহাম্মদপুর বায়তুল আমান হাউজিং সোসাইটিতে “আলোকিত জীবন গড়তে এসো ‘রংধনু’র সাথে থাকি” শিরোনামে এই কর্মসূচি পালিত হয়। ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও রেডিও এক্টিভিস্ট দিদারুল ইকবালের পরিচালনায় এবং গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সাবেক সচিব মো: ওসমান গণির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ বেতারের সাবেক পরিচালক ও ক্লাবের প্রধান উপদেষ্টা ড. মির শাহ আলম। প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, রেডিও তেহরান বাংলা বিভাগের সিনিয়র সাংবাদিক ও কথাবার্তা অনুষ্ঠানের বিশ্লেষক সিরাজুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সিনিয়র সাংবাদিক ও কলামিস্ট সৈয়দ রেজাউল করিম বেলাল।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন, মিতালী বিদ্যাপিঠ-এর শিক্ষিকা মর্জিনা বেগম এবং সাউথ এশিয়া রেডিও ক্লাব (সার্ক) বাংলাদেশ এর ভাইস চেয়ারম্যান তাছলিমা আক্তার লিমা।   

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. মির শাহ আলম বলেন, “রেডিও তেহরান বাংলা বিভাগের ‘রংধনু আসর’ অনুষ্ঠানটি শিশু-কিশোরদের আলোকিত জীবন গড়তে একটি আদর্শ অনুষ্ঠান। শিশুরা কিভাবে নৈতিক ভাবে জীবন যাপন করবে সেই তথ্যগুলো এই অনুষ্ঠানে গল্পের মাধ্যমে তুলে ধরা হয়। আমাদের শিশুদের বাবা-মায়েরা যদি তাদের শিশু সন্তানদের নিয়ে রেডিও তেহরানের এই অনুষ্ঠানটি শুনতে পারেন তাহলে এতে শুধু শিশুদের নয়, পরিবারের সকলের জীবন আলোকিত হবে। এটি মূলত শিশুদের অনুষ্ঠান হলেও এখানে যে নৈতিক শিক্ষা দেয়া হয় সেটি সকল বয়সের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।”

প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন ড. মির শাহ আলম

তিনি বলেন, “একটি শিশুর জীবন কাদামাটির মত নরম। কাদামাটিতে আমরা যে জিনিসের ছাপ দেবো পরবর্তীতে সেই ছাপই স্থায়ী আকৃতি ধারণ করে। সুতরাং একটি কোমলমতি শিশুর জীবন আলোকিত করতে তাকে শৈশবে আদর্শিক, মূল্যবোধ, মানবতা, সত্যসন্ধানী, সাহিত্য অনুরাগী এবং খোদা ভক্ত করলে তার জীবন হবে আলোকিত। রেডিও তেহরান রংধনু অনুষ্ঠানটি কোমলমতি শিশ-কিশোরদের জীবনকে আলোকিত করতে প্রচেষ্টা চালায়। দেশ-বিদেশকে জানা, ইসলাম ও কুরআনকে জানাসহ বিভিন্ন বিষয়ে তারা যে প্রচেষ্টা চালাচ্ছে তা অত্যন্ত মহৎ একটি কাজ। সে জন্য দেখা যায় ইরানের প্রত্যেকটি শিশু যখন বেড়ে উঠে তারা দেশপ্রেমিক হয়, আদর্শিক হয় এবং খোদা ভক্ত হয়। তারা তাদের সৃষ্টিকর্তা ও বাবা-মায়ের পাশাপাশি তাদের ধর্মীয় সর্বোচ্চ নেতার প্রতি আনুগত্য থাকে। ইরান বিপ্লবের বা পরির্তনের ৪০ বছর পরেও আমরা দেখছি ইরানের সকল ইতিবাচক বিষয়গুলো তারা স্থায়ীভাবে মনে-মগজে ধারণ করতে পারে এবং দেশের জন্য কাজ করতে পারে। সে দেশের প্রতিটি শিশু বড় হয়ে পেশাগত জীবনের পাশাপাশি ব্যক্তি জীবনেও তাদের মূল বিপ্লবের ধারাটি তাদের মধ্যে স্থায়ী রাখতে পেরেছে।”

ড. মির শাহ আলম আরও বলেন, “রেডিও তেহরানের রংধনু অনুষ্ঠানের প্রযোজকসহ কলাকুশলীদের আমরা ধন্যবাদ জানাচ্ছি এই জন্য যে, তারা শিশু-কিশোরদের আদর্শিক মানুষ হিসেবে গড়ে উঠতে সাহায্য করে। আমি মনে করি পৃথিবীর সব দেশে, সব ভাষার, সব গোত্রে, সব জাতির, সব বর্ণের শিশুদেরই এরকম দেশমাতৃকা থাকা দরকার।”   

প্রধান আলোচক সিরাজুল ইসলাম বলেন, রেডিও তেহরানের রংধনু অনুষ্ঠানটি শিশু-কিশোরদের জন্য তৈরি করা হলেও এখানে এমন কিছু তথ্য, আলোচনা, গল্প, কৌতুক, গান থাকে যা বড় ছোট সবার অনেক কাজে লাগে। শিশুরা যখন পৃথিবীতে জন্মগ্রহণ করে তখন তারা নিষ্পাপ থাকে। যখন তারা আস্তে আস্তে বড় হয় তখন দুনিয়ার অনেক কিছুর সাথে তাদের সম্পর্ক তৈরি হয়, তারা অনেক কিছু শিখতে শিখতে বুঝতে শিখে, অনেক কিছু জানার থাকে, শিশুরা জীবনটাকে কিভাবে গড়বে, কিভাবে ভালো পথে চলবো, কী কী করলে ভালো হওয়া যায়, মানুষের জীবনে অনেক আচার-আচরণ থাকে, ভদ্রতা-জ্ঞান থাকে, কোন কথা বলা যায়, কোন কথা বলা যায় না, এরকম অনেক শিক্ষামূলক আলোচনা থাকে ‘রংধনু’ আসরে। এখানে ছোট ছোট গল্পের মধ্য দিয়ে শিশুদের শিক্ষা দেয়ার ব্যবস্থা করা হয়। কারণ, আমরা ছোটদের কোন পথে গড়ে তুলব সেই দায়-দায়িত্ব মূলত বাবা-মা পালন করে। ভালো শিক্ষা দিয়ে যদি শিশুদের লালন-পালন করা হয়, ভালো পথ দেখিয়ে দেওয়া হয় তাহলে সেই ভালো পথটি শিশু অনুসরণ করবে।”

শিশুদের অভিভাবকদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে সিরাজুল ইসলাম বলেন, “আপনারা নিজেরাও রেডিও তেহরানের রংধনু আসরের সাথে যুক্ত হোন এবং আপনার কোমলমতি সন্তানদেরও এই অনুষ্ঠানের সাথে সম্পৃক্ত করুন। এতে আপনারা যেমন উপকৃত হবেন, আপনাদের সন্তানেরাও সমান ভাবে উপকৃত হবে।”

অনুষ্ঠানে রংধনু আসরের কিছু অনুষ্ঠান বিশেষ করে পশু-পাখির প্রতি দায়িত্ব-কর্তব্য; পরিশ্রম ও চেষ্টা-সাধনার গুরুত্ব; শিয়ালের প্রতারণা; মানুষ ও চিতাবাঘ; দরবেশের গাধা; শরীর চর্চার গুরুত্ব; নেকড়ে ও ছাগলের লড়াই; উত্তম আচরণ বিষয়ক ৩টি ঘটনা; অহংকারী লাল গোলাপ ও বৃক্ষের গল্প থেকে চুম্বক অংশ শোনানো হয় এবং সেখান থেকে শিশুদের উপস্থিত কিছু কুইজের মাধ্যমে পুরস্কার দেয়া হয়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, ওয়াসিক ওসমান, ওয়াসিফা ওসমান, শারমিন আক্তার, শাহানাজ পারভীন, রাফিয়া আফরিন মিতু, ইয়াসমিন আক্তার, মো: পাভেল হোসেন, মো: ইশরাক উদ্দিন, মারিয়া আক্তার খুশি, আকাশ হোসেন, মো: ইমন, জান্নাতুল ফেরদৌস, মো: সামাদ, মিম আক্তার জুই, মাফিয়া, ফাতেমা আক্তার, তানভীর হোসেন ইয়াছিন, সুরাইয়া আক্তার খুশি, ফাতেমা আক্তার জান্নাত, জুবায়েদ হোসেন, আশামনি, কাউসার হোসেন, মোহাম্মদ আলম, রামিছা সুলতানা প্রমুখ।#              

 

বার্তা প্রেরক,

তাছলিমা আক্তার লিমা

ভাইস চেয়ারম্যান, সাউথ এশিয়া রেডিও ক্লাব (সার্ক) বাংলাদেশ।

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/২১

ট্যাগ