নভেম্বর ৩০, ২০২১ ১৯:২৪ Asia/Dhaka

অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় পাঁচ জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে ইরানের পরমাণু সমঝোতা পুনরুজ্জীবনের বহুল প্রতীক্ষিত সপ্তম দফা আলোচনা শুরুর একই সময়ে ইরানের বিরুদ্ধে মার্কিন অন্যায় নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার জন্য তেহরানের দাবির প্রতি সমর্থন ক্রমেই বাড়ছে।

ভিয়েনায় আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোতে নিযুক্ত রাশিয়ার প্রতিনিধি মিখাইল উলিয়ানভ বলেছেন, মার্কিন নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার বিষয়ে ইরানের দাবি পুরোপুরি যৌক্তিক। অন্যদিকে পরমাণু আলোচনার অন্যতম সদস্য চীনও একই ধরনের অবস্থান নিয়েছে। চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ওয়াং ওয়েন বিন পরমাণু সমঝোতায় অচলাবস্থা সৃষ্টির জন্য আমেরিকাকে দায়ী করে বলেছেন, ইরানের বিরুদ্ধে সব অন্যায় নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নিতে হবে।

২০১৮ সালের ৮মে আমেরিকা পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর ইরানের বিরুদ্ধে কঠোর ও নজিরবিহীন মার্কিন নিষেধাজ্ঞা আরোপের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত চীন ও রাশিয়া ইরানের অধিকারের প্রতি সমর্থন দিয়ে আসছে। অন্যদিকে পরমাণু সমঝোতার অন্যতম শরীক ইউরোপীয় দেশগুলো অর্থাৎ ব্রিটেন, ফ্রান্স ও জার্মানিও অনেকটা নৈতিক কারণে ইরানের অধিকারের প্রতি সমর্থন জানাতে বাধ্য হচ্ছে। এ দেশগুলো চলতি মাসে আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি সংস্থা বা আইএইএর ৬৫ তম অধিবেশনে এক যৌথ বিবৃতিতে পরমাণু সমঝোতা থেকে আমেরিকার বেরিয়ে যাওয়ার নেতিবাচক পরিণতির কথা উল্লেখ করে বলেছে পরমাণু সমঝোতাকে টিকিয়ে রাখার জন্য ইরান বিরোধী মার্কিন নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের কোনো বিকল্প নেই।

ইরান বহুবার স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে আমেরিকাকে অবশ্যই নিষেধাজ্ঞা উঠিয়ে নিতে হবে এবং এবারের চলতি ভিয়েনা আলোচনার মূল্য লক্ষ্য এটাই। ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে টেলিফোনালাপে ঠিক একথাই তাকে বোঝানোর চেষ্টা করেছেন। আমেরিকা আবারো পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাবে না সে নিশ্চয়তা চায় তেহরান। রাশিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ফায়েল ইবিয়াতোফ বলেছেন, ইরান তার সব প্রতিশ্রুতিই পালন করেছে তাই দেশটির বিরুদ্ধে মার্কিন নেতৃত্বে পাশ্চাত্যের অন্যায় নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার সময় এসেছে।

এদিকে ভিয়েনায় বৈঠক শুরুর আগ মুহূর্তে মার্কিন কর্মকর্তারা ইরানকে হুমকি দিয়ে দাবি করেছেন ইরান যদি পরমাণু সমঝোতা মেনে না চলে তাহলে দেশটির বিরুদ্ধে আরো নিষেধাজ্ঞা চাপানো হবে। অবশ্য ওয়াশিংটন এটা ভালো করেই জানে যে ইরান বিরোধী নিষেধাজ্ঞায় কোনো ফল হয়নি বরং আমেরিকাই বিশ্বে কোণঠাসা হয়ে পড়েছে এবং নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার জন্য দাবি ক্রমেই জোরদার হচ্ছে। শেষ পর্যন্ত হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র বলেছেন, ইরানের ব্যাপারে কূটনৈতিক পন্থাই শ্রেয়।

যাইহোক, পরমাণু সমঝোতা টিকিয়ে রাখার জন্য পাঁচ জাতিগোষ্ঠীর করণীয় পরিষ্কার। আর তা হচ্ছে ইরান বিরোধী মার্কিন নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার জন্য তাদেরকে অবশ্যই পদক্ষেপ নিতে হবে। #  

পার্সটুডে/রেজওয়ান হোসেন/৩০ 

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ