জানুয়ারি ১৭, ২০২২ ১২:২৯ Asia/Dhaka
  • ফারিবা আদেলখা
    ফারিবা আদেলখা

ইরানে গৃহবন্দি একজন সাজাপ্রাপ্ত নারীকে কারাগারে ফেরত পাঠানোর ব্যাপারে ফ্রান্স যে ‘হঠকারী ও ভিত্তিহীন’ বিবৃতি দিয়েছে তার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে তেহরান। ইরান বলেছে, গৃহবন্দিদশার আইন ভঙ্গ করার পর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে এবং এদেশের বিচার বিভাগের কাজে হস্তক্ষেপ করার অধিকার অন্য কোনো দেশের নেই।

ফ্রান্সের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ফারিবা আদেলখা নামের ওই নারীকে কারাগারে ফেরত পাঠানোর সমালোচনা করে তাকে তাৎক্ষণিকভাবে মুক্তি দেয়ার আহ্বান জানানোর পর ইরানের বিচার বিভাগের উপ প্রধান কাজেম গরিবাবাদি এ নিন্দা জানান। ইরানি নাগরিক আদেলখার ফরাসি পাসপোর্ট থাকলেও তেহরান বহুবার বলেছে, দেশটি কোনো ‘দ্বৈত নাগরিকত্ব’কে স্বীকৃতি দেয় না বরং ইরানে জন্মগ্রহণকারী সব মানুষকে ইরানি নাগরিক বলে মনে করে।

কাজেম গারিবাবাদি বলেছেন, “ফারিবা আদেলখা ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের নাগরিক এবং এদেশের বিচার বিভাগের সিদ্ধান্তে তাকে কারাগারে ফেরত পাঠানো হয়েছে। আমরা ইরানের বিচার বিভাগের কাজে বিদেশি রাষ্ট্রের  হস্তক্ষেপের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।”

ইরানের বিচার বিভাগের উপ প্রধান কাজেম গরিবাবাদি

গরিবাবাদি বলেন, আদেলখাকে আদালতের পক্ষ থেকে বারবার সতর্ক করা সত্ত্বেও তিনি গৃহবন্দিদশার আইন ভঙ্গ করে বাসভবনের বাইরে যাতায়াত করে আসছিলেন বলে তাকে কারাগারে ফেরত পাঠানো হয়েছে। তার প্রতি সহানুভূতি দেখিয়ে আদালত তাকে নিজ বাসভবনে গৃহবন্দি থাকার যে সুযোগ দিয়েছিল তিনি তার মর্যাদা রক্ষা করতে পারেননি।

২০১৯ সালের জুন মাসে ফারিবা আদেলখাকে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে আটক করা হয়। ২০২০ সালের মে মাসে তাকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেয় আদালত। একই বছরের অক্টোবরে আদেলখার আবেদনে সাড়া দিয়ে তাকে তেহরানে নিজ বাসভবনে গৃহবন্দি থাকার অনুমতি দেয়া হয়েছিল।#

পার্সটুডে/এমএমআই/১৭

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

 

ট্যাগ