জুন ২৩, ২০২২ ১৮:১৮ Asia/Dhaka

রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ একদিনের ইরান সফরে এসে গতকাল (বুধবার) বিকেলে তিনি প্রেসিডেন্ট সাইয়্যেদ ইব্রাহিম রায়িসির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ তার ইরানি সমকক্ষ পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির আব্দুল্লাহিয়ানের আমন্ত্রণে একদিনের ইরান সফরে এসেছেন। এই সাক্ষাতে তিনি ইরানের সঙ্গে রাশিয়ার দীর্ঘমেয়াদি সহযোগিতা চুক্তি, উভয় দেশের ওপর পশ্চিমা দেশগুলোর কঠোর নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে দ্বিপক্ষীয় অর্থনৈতিক সহযোগিতা বৃদ্ধির উপায় নিয়ে আলোচনা ও মতবিনিময় করেন। এছাড়া, সিরিয়া ও আফগানিস্তানে আঞ্চলিক সহযোগিতার বিষয়েও ইরানি প্রেসিডেন্টের সঙ্গে  আলোচনা করেন রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ।

সেইসঙ্গে ভিয়েনায় পাঁচ জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে ইরানের চলমান পরমাণু আলোচনা নিয়েও ইরানি কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী। আমেরিকা ইরানের পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাওয়া সত্ত্বেও যেসব দেশ এই সমঝোতা বাস্তবায়নে অঙ্গীকারবদ্ধ রয়েছে সেগুলোর মধ্যে রাশিয়া অন্যতম।

রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরফ গত ৩ জুন  ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে টেলিফোনালাপে সব ক্ষেত্রে  দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতার বিষয়ে সন্তোষ প্রকাশ করার পর তিনি এ সফরে এলেন। 

ইরানের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি সংস্থা বা আইএইএ'র নির্বাহী বোর্ডের প্রস্তাব পাসের আগে সংঘটিত ওই কথোপকথনে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এই প্রস্তাবের বিরুদ্ধে তার দেশের দৃঢ় বিরোধিতার ওপর জোর দিয়ে বলেছিলেন, ইরান এবং আইএইএ-এর মধ্যে সহযোগিতার এজেন্ডায় থাকা বিষয়গুলো অবশ্যই প্রযুক্তিগতভাবে সমাধান করতে হবে।

ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরান এবং রাশিয়ার মধ্যে দ্বিপাক্ষিক ক্ষেত্রে বিশেষ করে অর্থনৈতিক, সামরিক এবং নিরাপত্তা সম্পর্কের পাশাপাশি আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক ইস্যুতে যেমন পাশ্চাত্যের একপেশে নীতির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে কৌশলগতভাবে অভিন্ন স্বার্থ রয়েছে এবং সাম্প্রতিক বছরগুলিতে দুই দেশের মধ্যে ঘনিষ্ঠ সহযোগিতার অন্যতম প্রধান কারণ এটি।

এছাড়া, আঞ্চলিক রাজনীতি এবং নিরাপত্তা ইস্যুতে বিশেষ করে সিরিয়ার সংকট এবং পশ্চিম এশিয়ায় মার্কিন হস্তক্ষেপের বিষয়ে ইরান ও রাশিয়ার অভিন্ন অবস্থান রয়েছে। সিরিয়ার সংকটের সময়ে দামেস্ক সরকারের আহ্বানে ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বর মাস থেকে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে ইরান ও রাশিয়া সহযোগিতার হাত সম্প্রসারণ করে এবং এর ফলে এ অঞ্চলে অস্থিতিশীলতা বিস্তার রোধে সহায়ক ভূমিকা পালন করেছে।   

ইরান ও রাশিয়ার মধ্যে ক্রমবর্ধমান রাজনৈতিক সম্পর্কের পাশাপাশি দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্যিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্কও বাড়ছে। ইরান-রাশিয়ার বাণিজ্যের পরিমাণ ২০২১ সালে ৪.৫ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে, যেখানে ২০১৯ সালে তা ছিল মাত্র ১.৬ বিলিয়ন ডলার।#

পার্সটুডে/ বাবুল আখতার/২৩

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ