আগস্ট ০১, ২০২০ ১৪:৫৭ Asia/Dhaka
  • ইরাকের প্রেসিডেন্টকে ঈদ শুভেচ্ছা রুহানির: সবক্ষেত্রে সহযোগিতা জোরদারে  গুরুত্বারোপ দু’নেতার

ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি ইরাকের প্রেসিডেন্ট বারহাম সালেহর সঙ্গে টেলিফোন সাক্ষাতে সকল ক্ষেত্রে দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতা বিস্তারের ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন। প্রেসিডেন্ট রুহানি এ সাক্ষাতে বিশ্বের মুসলমানদের ঐক্যের প্রতীক ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা জানিয়ে ইরাকের প্রধানমন্ত্রীর সাম্প্রতিক তেহরান সফরের সময় দুদেশের মধ্যে গৃহীত সিদ্ধান্ত ও সমঝোতাগুলো দ্রুত বাস্তবায়নের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

এ সাক্ষাতে ইরাকের প্রেসিডেন্ট বারহাম সালেহও করোনা পরিস্থিতিসহ যেকোনো জটিল বা প্রতিকূল পরিস্থিতিতেও এ অঞ্চলের সব মুসলিম দেশের মধ্যে ঐক্য ও সহযোগিতা বাজায় রাখার ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেছেন, ইরানের সঙ্গে সর্বাত্মক সহযোগিতা বিস্তার করা ইরাকের পররাষ্ট্র নীতির প্রধান ও অবিচ্ছেদ্য অংশ।

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, ইরাক ও ইরানের  প্রেসিডেন্টরা তাদের সাক্ষাতে যে বিষয়টির ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন, সম্প্রতি তেহরানে ইরাকের প্রধানমন্ত্রী মোস্তফা আল কাজেমিকে দেয়া সাক্ষাতেও ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহিল উজমা খামেনেয়ীও একই বিষয়ের ওপর গুরুত্বারোপ করেছিলেন। সর্বোচ্চ নেতা ইরাক সরকারকে দুর্বল করার জন্য যে কোনো প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে ইরানের অবস্থানের কথা উল্লেখ করে বলেছিলেন,  দুদেশের সম্পর্কের ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হচ্ছে সমগ্র এ অঞ্চলে শান্তি, উন্নতি, সমৃদ্ধি ও নিরাপত্তা জোরদার করা এবং ইরাকের সার্বিক অবস্থার উন্নয়ন। ইরাক নিয়ে মার্কিন দৃষ্টিভঙ্গির ব্যাপারে তিনি বলেছেন, আমরা আমেরিকার সঙ্গে ইরাকের সম্পর্কের ব্যাপারে কোনো হস্তক্ষেপ করব না কিন্তু আমরা এটাও চাই আমাদের ইরাকি বন্ধুরা আমেরিকাকে ভাল করে চিনে রাখুক এবং এটা জেনে রাখুক যে কোনো দেশে মার্কিন উপস্থিতি ধ্বংস ও নৈরাজ্য ছাড়া আর কিছুই নিয়ে আসে না। তিনিও সব ক্ষেত্রে ইরাক ও ইরানের মধ্যে সম্পর্ক জোরদারের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। ওই সাক্ষাতে ইরাকের প্রধানমন্ত্রীও সন্ত্রাস বিরোধী যুদ্ধে ইরানের সহযোগিতার প্রশংসা করে বলেন তার দেশের জনগণ কখনো ইরানের এ সহযোগিতার কথা ভুলবে না।

যাইহোক, ইরাকের প্রধানমন্ত্রীর তেহরান সফর অর্থনৈতিক দিক দিয়ে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। দুদেশের কর্মকর্তারা বাণিজ্য বিনিময়ের পরিমাণ ২০০০ কোটি ডলারে নিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে সম্মত হয়েছেন। বর্তমানে ইরান হচ্ছে ইরাকের বিদ্যুত ও গ্যাসের চাহিদা মেটানোর প্রধান উৎস। এ কারণে বলা যায় ইরান ও ইরাকের মধ্যে সহযোগিতার অনেক ক্ষেত্র রয়েছে। এ কারণে দুদেশের প্রেসিডেন্টও এ বিষয়টির ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন।#    

পার্সটুডে/রেজওয়ান হোসেন/১ 

ট্যাগ

মন্তব্য