আগস্ট ০৭, ২০২০ ০৬:১৪ Asia/Dhaka
  • মাইক পম্পেও (ডানে) ও ব্রায়ান হুক (ফাইল ছবি)
    মাইক পম্পেও (ডানে) ও ব্রায়ান হুক (ফাইল ছবি)

মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ইরান বিষয়ক বিশেষ প্রতিনিধি ব্রায়ান হুক পদত্যাগ করতে যাচ্ছেন বলে খবর দিয়েছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও। তিনি বলেছেন, হুক সরে গেলে তার স্থলাভিষিক্তি হবেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ভেনিজুয়েলা বিষয়ক বর্তমান বিশেষ প্রতিনিধি এলিয়ট আব্রামস।

ইরানের বিরুদ্ধে আমেরিকার ‘সর্বোচ্চ চাপ প্রয়োগের’ নীতি বাস্তবায়নের কাজ গভীর মনযোগ দিয়ে সম্পন্ন করার জন্য ব্রায়ান হুককে ২০১৮ সালে নিয়োগ দেয়া হয়েছিল।  

পম্পেও স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার হুকের পদত্যাগের আভাস দিলেও তিনি ঠিক কবে পদত্যাগ করতে যাচ্ছেন তা স্পষ্ট করেননি। তবে ব্রায়ান হুককে ‘নির্ভরযোগ্য উপদেষ্টা’ ও ‘ভালো বন্ধু’ হিসেবে আখ্যায়িত করে পম্পেও দাবি করেন, গত দুই বছরে ইরান সরকারের বিরুদ্ধে কাজ করার ক্ষেত্রে হুক কিছু ‘ঐতিহাসিক সাফল্য’ পেয়েছেন। কিন্তু এত বড় সাফল্য পাওয়ার পরও কেন হুককে সরে যেতে হচ্ছে সে সম্পর্কে কোনো ব্যাখ্যা মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিতে পারেননি।  

ইরানি জনগণের মার্কিন-বিরোধী মনোভাব বৃদ্ধি করা ছাড়া আর কিছু করতে পারেননি হুক

ইরানের ওপর সর্বোচ্চ চাপ প্রয়োগ ও কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপে হুক উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেন। কিন্তু সমালোচকরা বলছেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ইরানকে আলোচনার টেবিলে ফিরিয়ে আনার যে লক্ষ্য নির্ধারণ করেছিলেন তা বাস্তবায়ন করতে হুক চরম ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন। মার্কিন চাপের মুখে ইরান যে কেবল আলোচনায় বসতে রাজি হয়নি তা নয় উল্টো তেহরানের ওয়াশিংটন-বিরোধী মনোভাব আরো দৃঢ় হয়েছে।

পম্পেও ব্রায়ান হুকের পদত্যাগের খবর দেয়ার একদিন আগে বুধবার হুক নিউ ইয়র্ক টাইমসকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, পম্পেও সরকারের সর্বোচ্চ চাপ প্রয়োগের নীতির কারণে ইরান আগের চেয়ে দুর্বল হয়ে গেছে। তিনি বলেন, “আমরা ইরান সরকারের সঙ্গে নতুন একটি চুক্তি করতে চাই। আমাদের চাপের কারণে ইরানের অর্থনীতি ভেঙে পড়েছে।”#

পার্সটুডে/এমএমআই/৭

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

                

ট্যাগ

মন্তব্য