আগস্ট ১০, ২০২০ ০৬:১৪ Asia/Dhaka
  • ব্রায়ান হুক (বামে) ও মাইক পম্পেও
    ব্রায়ান হুক (বামে) ও মাইক পম্পেও

মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ইরান বিষয়ক বিশেষ প্রতিনিধি পরিবর্তনের ঘটনাকে আমেরিকার পররাষ্ট্রনীতির ‘অস্থিরতা ও দিকভ্রম’ অবস্থার প্রমাণ বলে মন্তব্য করেছে তেহরান।

সম্প্রতি মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও’র নির্দেশে তার মন্ত্রণালয়ের ইরান বিষয়ক বিশেষ প্রতিনিধি ব্রায়ান হুক পদত্যাগ করেন। এরপর আমেরিকার ভেনিজুয়েলা বিষয়ক বিশেষ প্রতিনিধি এলিয়ট আব্রামসকে তার দায়িত্বে বহাল রেখে হুকের স্থলাভিষিক্ত হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়।

ভেনিজুয়েলায় নিযুক্ত ইরানের রাষ্ট্রদূত হুজ্জাতুল্লাহ সুলতানি

এ সম্পর্কে ভেনিজুয়েলায় নিযুক্ত ইরানের রাষ্ট্রদূত হুজ্জাতুল্লাহ সুলতানি বলেছেন, আব্রামসকে ইরান বিষয়ক বিশেষ প্রতিনিধি নিয়োগের ঘটনা আমেরিকার সন্ত্রাসী প্রেসিডেন্টের পররাষ্ট্রনীতিতে অস্থিরতা ও হতবিহ্বল অবস্থার প্রমাণ বহন করে। তিনি রোববার এক টুইটার বার্তায় বলেন, আব্রামসের মতো একজন ব্যর্থ প্রতিনিধিকে ইরানের মতো একটি অসম্ভব ও সর্বোচ্চ চাপ প্রয়োগের দায়িত্ব দেয়ায় বোঝা যায় মার্কিন প্রশাসনে কিংকর্তব্যবিমূঢ় অবস্থা বিদ্যমান।

এর আগে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সাইয়্যেদ আব্বাস মুসাভি এক প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, ইরানের কাছে ব্রায়ান হুক ও এলিয়ট আব্রামসের মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই। তিনি বলেন, কিন্তু ইরান এত বড় খাবার যে, কোনো মার্কিন কর্মকর্তার গলা দিয়েই তা নীচের দিকে নামবে না। এ ছাড়া, ইরানের সংসদের জাতীয় নিরাপত্তা ও পররাষ্ট্রনীতি বিষয় স্থায়ী কমিশনের মুখপাত্র আমুয়ি বলেছেন, একজন ব্যর্থ প্রতিনিধির স্থলে আরেকজন ব্যর্থ প্রতিনিধিকে নিয়োগ দিয়েছে আমেরিকা।#«ا

পার্সটুডে/এমএমআই/১০

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

 

ট্যাগ

মন্তব্য