আগস্ট ১২, ২০২০ ১৮:১৯ Asia/Dhaka
  • জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ
    জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ

জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে ইরান বিরোধী অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা নবায়নের জন্য মার্কিন প্রচেষ্টা বিরাট চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে। নিজের মান ইজ্জত রক্ষার জন্য ট্রাম্প প্রশাসন এ ক্ষেত্রে অন্তত কিছুটা সফলতা পাওয়ার আশায় খানিকটা পিছু হটে গেছে।

বেশ কয়েকটি দেশের প্রতিবাদের মুখে ইরান বিরোধী অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা নবায়ন সংক্রান্ত খসড়া প্রস্তাব কিছুটা সংশোধন করে আমেরিকা তা নিরাপত্তা পরিষদে উত্থাপন করেছিল। কিন্তু তারপরও সফল না হওয়ায় এখন হোয়াইট হাউজ সব দেশের কাছে অনুরোধ করেছে নিরাপত্তা পরিষদ ইরানের ব্যাপারে অন্য কোনো সিদ্ধান্ত নেয়ার আগেই যেন দেশটির বিরুদ্ধে অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা নবায়ন করা হয়। আমেরিকার সংশোধিত এই খসড়া প্রস্তাবে কেবলমাত্র ইরানের কাছে অস্ত্র বিক্রি ঠেকানোর জন্য সব দেশকে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে।

সংশোধিত মার্কিন খসড়া প্রস্তাবে বলা হয়েছে, একমাত্র অস্ত্র ছাড়া ইরানের যে কোনো পণ্যবাহী জাহাজ অবাধে চলাফেরা করতে পারবে, জাহাজে কোনো তল্লাশি চালানো বাধ্যতামূলক করা হবে না। এমনকি ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনীসহ ইরানের যে কোনো ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের ওপরও আর কোনো নিষেধাজ্ঞা থাকবে না। তবুও যেন  অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকে। তবে মার্কিন এ খসড়া প্রস্তাবে পশ্চিম এশিয়ায় ইরানের নীতির ব্যাপারে ভিত্তিহীন অভিযোগের পুনরাবৃত্তি করে দাবি করা হয়েছে, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা রক্ষার জন্যই ইরানের বিরুদ্ধে অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা নবায়ন করা জরুরি।

এ ব্যাপারে চীন ও রাশিয়ার নীতি স্পষ্ট এবং তাদের বিরোধিতার কারণেই আমেরিকা ইরান বিরোধী ওই নিষেধাজ্ঞা নবায়ন করতে ব্যর্থ হয়েছে। ওই দুই দেশের ভেটো দেয়ার বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে যাওয়ায় এখন মার্কিন প্রস্তাবের প্রতি নিরাপত্তা পরিষদের অন্তত ৯টি দেশের সমর্থন পাওয়ার বিষয়টি অনিশ্চিত হয়ে গেল। ধারণা করা হচ্ছে, নিরাপত্তা পরিষদের সব দেশ বিশেষ করে ইউরোপীয় দেশগুলোর সমর্থন পাওয়ার জন্যই আমেরিকা ওই প্রস্তাবে সংস্কার এনেছিল। মনে করা হচ্ছে ইউরোপও এতে খুব একটা সাড়া দেয়নি।

ব্রিটেনের রাজনৈতিক বিশ্লেষক ক্যাটরিনা মানসুন বলেছেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ইরান বিরোধী যে প্রস্তাব উত্থাপন করেছেন তা অস্বাভাবিক ও কূটনৈতিক রীতি বহির্ভূত। এমনকি আমেরিকার মিত্ররাও ট্রাম্পের প্রস্তাবের প্রতি সমর্থন জানায়নি।

এ অবস্থায় ট্রাম্প প্রশাসন ইরান বিরোধী ওই প্রস্তাবে সমর্থন দেয়ার জন্য নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য দেশগুলোর ওপর প্রবল চাপ সৃষ্টি করেছে। এ কারণে এ পরিষদে কার্যত অচলাবস্থার সম্মুখীন হয়েছে এবং ইরানের ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি। যদিও  আমেরিকাও ভালো করেই জানে যে, তারা যতই চাপ সৃষ্টি করুক না কেন তাতে ব্যর্থ হবে। ব্লুমবার্গ বার্তা সংস্থা এ সংক্রান্ত এক প্রতিবেদনে সতর্ক করে দিয়ে বলেছে, ইরানের বিরুদ্ধে মার্কিন হুমকি অভাবনীয় খারাপ পরিণতি ডেকে আনতে পারে। এতে আরো বলা হয়েছে, মার্কিন মিত্র অর্থাৎ ফ্রান্স ও জার্মানিও যদি ইরান ইস্যুতে চীন ও রাশিয়ার দিকে চলে যায় তাহলে নিরাপত্তা পরিষদে আমেরিকা একঘরে হয়ে পড়বে। যার পরিণতিতে ইরানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণে আমেরিকা চরমভাবে ব্যর্থ হবে। #

পার্সটুডে/রেজওয়ান হোসেন/১২

 

ট্যাগ

মন্তব্য