সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২০ ১৯:৫৬ Asia/Dhaka

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন ২০ সেপ্টেম্বর নতুন কোনো ঘটনাই ঘটবে না। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে তিনি নিরাপত্তা পরিষদের ২২৩১ নম্বর প্রস্তাব পড়ে দেখার আহ্বান জানিয়েছেন।

ইরানের বিরুদ্ধে জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞাগুলি পুনর্বহাল করার ব্যাপারে গতরাতে দেওয়া মার্কিন ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতে ড. জাওয়াদ জারিফ তাঁর টুইটার পেইজে এ মন্তব্য করেন। তিনি লিখেছেন: 'মাইক পম্পেও ভুল করছেন। আমেরিকা এখন আর পরমাণু সমঝোতার পক্ষ নয়। সুতরাং নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহালের কাজটি সহজ নয় বরং যথেষ্ট জটিল। বেশ লম্বা সময় ধরে এই সমঝোতা বিন্যস্ত করা হয়েছে'।

ইরানের ওপর অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা আরোপের লক্ষ্যে আমেরিকা গেল মাসে নিরাপত্তা পরিষদে যে প্রস্তাব উত্থাপন করেছিল তা চরমভাবে প্রত্যাখ্যাত হওয়ার পর এখন তারা ইরান বিরোধী সকল নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহাল করার একপেশে হুমকি দিয়ে বেড়াচ্ছে। এটা আসলে পরমাণু সমঝোতাকে পুরোপুরি নিশ্চিহ্ন করে ফেলার পাঁয়তারা মাত্র।

মজার ব্যাপার হলো আমেরিকা এখন জেসিপিওএ'র সদস্য না হয়েও এই সমঝোতার মনগড়া ব্যাখ্যা দিয়ে বেড়াচ্ছে। সে কারণেই নিরাপত্তা পরিষদে তাদের এ সংক্রান্ত সকল তৎপরতাই অবৈধ এবং বলদর্পিতা ছাড়া আর কিছু নয়। জাতিসংঘে রুশ স্থায়ী প্রতিনিধি মিখাইল উলিয়ানভ এ প্রসঙ্গে বলেছেন: জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে নিজেকে স্ব-ঘোষিত অংশগ্রহণকারী হিসাবে উপস্থাপনের মতো আমেরিকার হাস্যকর প্রচেষ্টাকে কেউ গুরুত্ব দিচ্ছে না। ২০১৮ সালের সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাবার পর এখন আর আমেরিকা এই চুক্তির কোনো পক্ষ নয়। সুতরাং এ বিষয়ক কোনো তৎপরতা কিংবা কোনো অনুচ্ছেদ কাজে লাগানোর অধিকারই তাদের নেই।

এদিকে ইরানি উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাইয়্যেদ আব্বাস আরাকচি বলেছেন, মার্কিন একাধিপত্য থেকে পরমাণু সমঝোতাকে রক্ষা করার ব্যাপারে নিরাপত্তা পরিষদের সকল সদস্যই একমত। সুতরাং তাদের সবার উচিত আমেরিকাকে পরমাণু সমঝোতা ধ্বংসে নিজস্ব সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দেওয়ার সুযোগ না দেওয়া।

নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যবৃন্দসহ এই সংস্থার প্রধানও যেহেতু ২২৩১ নম্বর প্রস্তাবের মার্কিন ব্যাখ্যার বিরোধী সুতরাং ২০ সেপ্টেম্বর আমেরিকার স্বার্থে বৃথা চাপ এবং হুমকি প্রদান ছাড়া নয়া কোনো কিছু ঘটার সম্ভাবনা নেই।#

পার্সটুডে/এনএম/১৮

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

 

ট্যাগ

মন্তব্য