অক্টোবর ২৯, ২০২০ ১৬:৩৯ Asia/Dhaka
  • ‘পাশ্চাত্যে নবী (সা.) বিদ্বেষের বিরুদ্ধে রেডিও তেহরানের অন্যরকম পরিবেশনা’

আসসালামু আলাইকুম। রেডিও তেহরান, বাংলা বিভাগের সকল শ্রোতা ও কলাকুশলীকে আমার আন্তরিক প্রীতি ও শুভেচ্ছা। আমি রেডিও তেহরান বাংলা বিভাগের নিয়মিত শ্রোতা।

২৮/১০/২০২০ তারিখে প্রচারিত "শ্রেষ্ঠ মহামানব বিশ্বনবী (সা) ও তাঁরই নূরের এক অনন্য নক্ষত্রের কথা" নামে বিশেষ অনুষ্ঠানটি শুনলাম। বর্তমান সময়ে সবচেয়ে সময় উপযোগী ও তাৎপর্যপূর্ণ অনুষ্ঠান এটি। ঠিক সময়ে অর্থাৎ মহানবী (সা.)-এর জন্ম দিবসের প্রাক্কালে এবং বর্তমান পাশ্চাত্যের ইসলাম ও নবী (সা.)-এর বিদ্বেষের বিরুদ্ধে এ এক অন্যরকম পরিবেশনা।

ধন্যবাদ রেডিও তেহরানকে ঠিক সময়ে ঠিক বিষয় নির্বাচন করার জন্যে।

বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.) মানবতার মুক্তির দিশারী এবং সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ আদর্শ ও পূর্ণ মানব। তিনি ছিলেন মানব জীবনের সব ক্ষেত্রের ও সব পর্যায়ের সর্বোত্তম এবং পূর্ণাঙ্গ আদর্শ। তাই তিনি মহান আল্লাহর পক্ষ থেকে মানবজাতির জন্য সবচেয়ে বড় উপহার। তাঁর শুভ জন্মদিন মানব জাতির জন্য সবচেয়ে বড় আনন্দের দিন এবং এই দিন মুসলমানদের মিলন ও ঐক্যের সবচেয়ে বড় শুভ-লগ্ন। ইরানের ইসলামী বিপ্লবের রূপকার মরহুম ইমাম খোমেনি ১২ থেকে ১৭ রবিউল আউয়ালকে ইসলামী ঐক্য সপ্তাহ হিসেবে ঘোষণা করেন। 

ত্রিভুবনের জ্ঞানের আলো, দরিদ্র, বঞ্চিত ও অসহায়দের সহায়, পাপী উম্মতের শাফায়াতকারী, সাধকদের সূর্য, সব নবীদের নেতা, সাম্য আর ন্যায়বিচারের প্রধান দূত ও বিশ্ব-জগতের জন্য মহান আল্লাহর রহমত। বিশ্বনবী মুহাম্মাদ (সা.)-এর অজস্র যোগ্যতা, গুণ, অবদান আর মহত্ত্বের যাথাযোগ্য করো পক্ষে করা সম্ভব না; একমাত্র মহান আল্লাহই তাঁর প্রিয়তম হাবিব ও শ্রেষ্ঠতম নুরের যথাযথ পরিচিতি তুলে ধরতে সক্ষম। তিনি ছিলেন এমন এক ব্যক্তিত্ব যাকে সৃষ্টি না করলে বিশ্ব-জগতের সৃষ্টি হতো অর্থহীন।

বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.) ছিলেন মানবতার মুক্তির দিশারী এবং সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ আদর্শ। তিনি ছিলেন মানব জীবনের সব ক্ষেত্রের ও সব পর্যায়ের সর্বোত্তম এবং পূর্ণাঙ্গ আদর্শ।

বিশ্বনবী (সা.) ছিলেন সর্বোত্তম চরিত্রের অধিকারী ও মহান আল্লাহর সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ রাসূল। তাঁর পর আর কোনো নবীর আবির্ভাব হবে না এ কারণেই যে মানব জাতির সর্বাঙ্গীন কল্যাণ ও সৌভাগ্যের জন্য যা যা দরকার তার সব নির্দেশনাই তিনি দিয়ে গেছেন এবং তাঁর নির্দেশনাগুলোর যুগোপযোগী ব্যাখ্যা দিয়ে গেছেন তাঁরই বংশে জন্ম নেয়া পবিত্র ইমামগণ।

বহু অমুসলিম মনীষীও দ্ব্যর্থহীন কণ্ঠে স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছেন যে, বিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী ব্যক্তিত্ব হলেন মুহাম্মাদ (সা)। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ এই মহামানবের আদর্শ অনুসরণের মধ্যেই রয়েছে বিশ্ববাসীর সার্বিক কল্যাণ ও মুক্তি।কার্লাইল, বার্নার্ড ‘শ’র মত ব্যক্তিত্বরাও আভাস দিয়েছেন যে আগামী দিনের বিশ্ব হবে ইসলামের বিশ্ব এবং মুসলমানরাই থাকবে বিশ্ব-সভ্যতার নেতৃত্বে।

মহান আল্লাহ আমাদের সবাইকে যেন মহানবী (সা) সম্পর্কে ভালোভাবে জানার সুযোগ দিন এবং তার প্রকৃত অনুসারী হওয়ার তৌফিক দান করুন (আমীন)।

সবাই ভালো ও সুস্থ থাকুন, এ কামনায়। ধন্যবাদান্তে,

এস এম নাজিম উদ্দিন,
ইন্টারন্যাশনাল ডি এক্স রেডিও শ্রোতা সংঘ,
গ্রাম ও ডাক বারুইপাড়া,
জেলা মুর্শিদাবাদ, পশ্চিম বঙ্গ, ভারত।

 

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/২৯

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ

মন্তব্য