অক্টোবর ১৭, ২০২১ ১৭:০১ Asia/Dhaka

ইরানের সামরিক বাহিনীর প্রধান মেজর জেনারেল মোহাম্মাদ বাকেরি চার দিনের পাকিস্তান সফর শেষ করে বলেছেন, প্রতিরক্ষা, নিরাপত্তা ও সামরিক ক্ষেত্রে সহযোগিতা বিস্তারের বিষয়ে ইসলামাবাদের সঙ্গে নতুন করে সমঝোতা হয়েছে।

তিনি পাকিস্তানের শীর্ষ সামরিক ও রাজনৈতিক কর্মকর্তাদের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে সমঝোতার কথা উল্লেখ করে বলেছেন, সামরিক বিষয় ছাড়াও দুদেশের সমুদ্র সীমায় যৌথ নৌ মহড়া অনুষ্ঠান এবং সন্ত্রাসীদের মোকাবেলায় তথ্য বিনিময়ের বিষয়ে সহযোগিতা বাড়ানোর বিষয়ে সমঝোতা হয়েছে। ইরানের সামরিক বাহিনীর প্রধান আরো জানান, দুই বছর আগে অনুষ্ঠিত ইরান, চীন ও রাশিয়ার ত্রিদেশীয় যৌথ নৌ মহড়ার সময়ও পাকিস্তানের যুদ্ধ জাহাজ উপস্থিত ছিল। তিনি, ইসলামাবাদ সফরের গুরুত্বপূর্ণ ফলাফলের কথা উল্লেখ করে বলেছেন, পাকিস্তানের সঙ্গে আমাদের দীর্ঘ সীমান্ত থাকায় এ দেশটি আমাদের কাছে বিশেষ গুরুত্ব বহন করে। 

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, এ অঞ্চলের বর্তমান স্পর্শকাতর পরিস্থিতিতে ইরান ও পাকিস্তানের মধ্যকার সামরিক সম্পর্ক খুবই জরুরি ও গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ কারণে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে এ দুই দেশের নৌ বাহিনীর কর্মকর্তাদের মধ্যে দফায় দফায় সফর বিনিময় হয়েছে যা থেকে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক জোরদার ও আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা রক্ষায় এই দুই দেশের পারস্পরিক সহযোগিতার গুরুত্ব ফুটে উঠেছে।  অবশ্য সমুদ্রে সহযোগিতা বিস্তারে পাকিস্তানের পাশাপাশি ভারত, চীন ও রাশিয়ার সঙ্গেও ইরানের সম্পর্ক বজায় রয়েছে। বিশেষ করে পাকিস্তানের সঙ্গে সহযোগিতা এ অঞ্চলের সমুদ্র বাণিজ্য ও জাহাজ চলাচলে নিরাপত্তা রক্ষায় বিরাট ভূমিকা রাখবে।

পাকিস্তানে ইরানের রাষ্ট্রদূত সাইয়্যেদ মোহাম্মদ হোসেইনি বলেছেন, পাকিস্তান সরকার সেদেশের গোয়াদর বন্দরের সঙ্গে ইরানের বন্দর আব্বাসের মধ্যে সংযোগ স্থাপনের জন্য বিশেষ পরিকল্পনা তুলে ধরেছে। এ ছাড়া ইরাক, ওমান ও আমিরাতের সমুদ্র বন্দরের সঙ্গেও সংযোগ স্থাপনের জন্য একই ধরনের পরিকল্পনা তুলে ধরতে যাচ্ছে ইসলামাবাদ। পাকিস্তানের নৌ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে করাচি ও গোয়াদর বন্দর থেকে ইরানের বন্দরে জাহাজ চলাচল শুরু হবে।

সম্প্রতি ইরানও সাংহাই সহযোগিতা সংস্থার স্থায়ী সদস্য হওয়ায় পাকিস্তানসহ এই জোটের অন্য সদস্য দেশের সঙ্গে বাণিজ্য যোগাযোগ আরো ঘনিষ্ঠ হওয়ার সুযোগ তৈরি হয়েছে। এতে একদিকে যেমন চীন ও রাশিয়ার মতো শক্তিশালী দেশের সঙ্গে যুক্ত হতে পেরেছে ইরান অন্যদিকে পারস্য উপসাগরের পানিসীমায়ও এই জোটের সব সদস্য দেশের বাণিজ্য সুবিধা বহুগুণে বেড়েছে।

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, সমুদ্র ক্ষেত্রে পাকিস্তানের সঙ্গে ইরানের সহযোগিতা বিস্তার দুদিক থেকে  গুরুত্বপূর্ণ। প্রথমত, এতে করে অভিন্ন হুমকি মোকাবেলায় এ অঞ্চলের অন্য সব দেশের সঙ্গে সহযোগিতা বাড়বে এবং দ্বিতীয়ত, বিদেশিরা এ অঞ্চলে সামরিক হস্তক্ষেপের সুযোগ পাবে না।  #

পার্সটুডে/রেজওয়ান হোসেন/১৭

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন

ট্যাগ