অক্টোবর ১৯, ২০২১ ০৯:৪০ Asia/Dhaka
  • ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা
    ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা

ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের বিরুদ্ধে শত্রুরা কোনোরকম দুঃসাহস দেখালে তাদেরকে এজন্য অনুতপ্ত হতে হবে। শত্রুর যেকোন ভুল পদক্ষেপের কঠোর জবাব দেয়া হবে তা যেকোনো দেশ বা গোষ্ঠীই হোক না কেন। একথা বলেছেন ইরানের ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি’র অ্যারোস্পেস ডিভিশনের কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আমির  আলী হাজিজাদে।

তেহরানে নিযুক্ত বিভিন্ন দেশের সামরিক অ্যাটাচেদের সঙ্গে গতকাল (সোমবার) এক বৈঠকে তিনি এসব কথা বলেন। শত্রুদের নানামুখী তৎপরতার মুখে ইরান সামরিক খাতে আরো শক্তি ও স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের পথ অনুসরণ অব্যাহত রাখবে বলেও তিনি জানান।

জেনারেল হাজিজাদে বলেন, “আমেরিকার কাছ থেকে হতাশ হয়ে কিছু দেশ ইহুদিবাদী ইসরাইলের কাছে সমর্থন চাইছে এবং তারা মনে করছে ইসরাইল তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে যা সম্পূর্ণ ভুল ধারণা, এমনকি ইসরাইল নিজেই তার নিরাপত্তা দিতে পারছে না। এ অবস্থায় যদি কোনো সরকার বা জাতি মধ্যপ্রাচ্যে চলমান চার দশকের নিরাপত্তাহীনতা ও ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়া যুদ্ধের অবসান চায় তাহলে তাদেরকে স্থানীয়, অভ্যন্তরীণ ও আঞ্চলিক নিরাপত্তা জোরদার করতে হবে।”   

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আমির  আলী হাজিজাদে।

ইরানের বিরুদ্ধে ইরাকের সাবেক স্বৈরশাসক সাদ্দামের চাপিয়ে দেয়া আট বছরের যুদ্ধের প্রতি মার্কিন সমর্থনের কথা উল্লেখ করে জেনারেল হাজিজাদে বলেন, গত চার দশকের বেশি সময় ধরে ইরান মার্কিন সরকার ও তাদের বলদর্পী মিত্রদের বাড়তি চাপ প্রতিরোধ করে এসেছে। ইরান-ইরাক যুদ্ধে ৩০টি দেশ সাদ্দামকে সমর্থন দিলেও তেহরান সে যুদ্ধ প্রচণ্ড শক্তিমত্তা নিয়ে রুখে দাঁড়িয়েছিল।

ইরানের এ কমান্ডার বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে সাম্প্রতিক সময়ে যে চরমপন্থী তাকফিরি সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর জন্ম হয়েছে তাকে আমেরিকা সৃষ্টি করেছে।#

পার্সটুডে/এসআইবি/১৯

 

ট্যাগ