মে ২২, ২০২২ ১৮:২৪ Asia/Dhaka

ইহুদিবাদী ইসরাইল সিরিয়ার বিরুদ্ধে কিছু দিন পরপর হামলা চালিয়েই যাচ্ছে। গত শুক্রবারও রাজধানী দামেস্কের দক্ষিণে ইসরাইলের ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় সিরিয়া সেনাবাহিনীর তিন অফিসার নিহত হয়েছে। সিরিয়ার মাসিয়াফ এলাকায় হামলার ঠিক এক সপ্তাহ পর ইসরাইল ফের হামলা চালালো।

পর্যবেক্ষকরা সিরিয়ার বিরুদ্ধে ইসরাইলের এসব হামলাকে কয়েকটি দিক থেকে মূল্যায়ন করেছেন।

প্রথমত, ইউক্রেনে সংকট চলার একই সময়ে ইসরাইলও সিরিয়ায় হামলা জোরদার করেছে। বলা যায় সারা বিশ্বের নজর যখন ইউক্রেন যুদ্ধের দিকে তখন ইসরাইলও বর্তমান সুযোগকে কাজে লাগিয়ে সিরিয়ার বিরুদ্ধে হামলা চালাচ্ছে।

দ্বিতীয়ত, যেহেতু স্বল্প সময়ের মধ্যে ইউক্রেন যুদ্ধ অবসানের কোনো সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না সে কারণে রাশিয়া সিরিয়া থেকে তাদের সেনা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। অন্যদিকে ইউক্রেন ইস্যুতে ইসরাইল পাশ্চাত্যকে সমর্থন করায় মস্কো ও তেলআবিবের মধ্যে তীব্র মতপার্থক্য দেখা দিয়েছে। এ অবস্থায় ইসরাইলের ধারণা যেহেতু রাশিয়া ইউক্রেন নিয়ে ব্যস্ত এবং রুশ সেনা প্রত্যাহারের কারণে সিরিয়ার বিরুদ্ধে হামলা ঠেকাতে রাশিয়া এ মুহূর্তে অপারগ সে কারণে এ সুযোগে ইরানও সিরিয়ায় তাদের সামরিক শক্তি জোরদার করতে পারে। কিন্তু ইসরাইলের এ ধারণা মোটেও সঠিক নয়। কেননা গত ১৩মে রাশিয়া এস ৩০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা দিয়ে ইসরাইলি যুদ্ধ বিমানের হামলা ঠেকিয়ে দিয়েছিল। যদিও রাশিয়ার পাল্টা হামলায় ইসরাইলের জঙ্গি বিমানের কোনো ক্ষতি হয়নি এবং  এর আগেও রাশিয়া ইসরাইলের বিরুদ্ধে তাদের ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ব্যবহার করেছে। ধারণা করা হচ্ছে রাশিয়ার এ পদক্ষেপের প্রতিক্রিয়ায় ইসরাইল গত শুক্রবার সিরিয়ায় হামলা চালিয়েছে।

তৃতীয়ত, সাম্প্রতিক সামরিক মহড়া চালানোর একই সময়ে ইসরাইল সিরিয়ার বিরুদ্ধে গত শুক্রবার ওই হামলা চালিয়েছে। ইসরাইলের স্থল, নৌ ও বিমান বাহিনীর অংশগ্রহণে যৌথ মহড়া চলছে এবং ইসরাইল দাবি করেছে এটা এ যাবতকালে তাদের সবচেয়ে বড় সামরিক মহড়া।

চতুর্থ বিষয় হচ্ছে, বারবার হামলা চালিয়ে ইসরাইল সিরিয়ার সেনাবাহিনীর আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার সক্ষমতাকে দুর্বল করার চেষ্টা করছে। 

পঞ্চমত, ইসরাইল এমন সময় সিরিয়ার বিরুদ্ধে বারবার হামলা চালাচ্ছে যখন ফিলিস্তিনিদের সাথে ইসরাইলিদের সংঘাতের মাত্রা অনেক বেড়েছ। কেননা ফিলিস্তিনিরা গত দুই মাসের কম সময়ের মধ্যে অন্তত পাঁচবার শাহাদাত পিয়াসি হামলা চালিয়েছে। এসব হামলায় অন্তত ১৮ ইসরাইলি নিহত এবং আরো অনেকে আহত হয়েছে। এ কারণে ইসরাইল খুবই আতঙ্কগ্রস্ত ও হতাশার মধ্যে ডুবে আছে। এ অবস্থায় সিরিয়ার বিরুদ্ধে ইসরাইলের আগ্রাসনকে ওই হতাশা থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা বলে অনেকে মনে করছেন।#

পার্সটুডে/রেজওয়ান হোসেন/২২

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ