২০১৯-১১-০৮ ১৬:১৫ বাংলাদেশ সময়
  • ইসহাক আল-হাবিবি
    ইসহাক আল-হাবিবি

জাতিসংঘে নিযুক্ত ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের উপ-রাষ্ট্রদূত ইসহাক আল-হাবিবি বলেছেন, মার্কিন সাম্রাজ্যবাদ ও আধিপত্যবাদের বিরোধিতা করার কারণে তার দেশকে চড়া মূল্য দিতে হচ্ছে। মার্কিন একাধিপত্যবাদ সারা বিশ্বের নিরাপত্তার জন্য ভয়াবহ হুমকি হয়ে দেখা দিয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

কিউবার ওপর মার্কিন সরকারের অর্থনৈতিক অবরোধের বিষয়ে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে বক্তৃতা করতে গিয়ে ইরানি কূটনীতিক গতকাল (বৃহস্পতিবার) এই মন্তব্য করেন।

ভাষণে ইসহাক আল-হাবিবি বলেন ১৯৭৯ সালে ইরানে ইসলামি বিপ্লব সফল হওয়ার পর আমেরিকা ইরানের ওপরেও একইভাবে নিষেধাজ্ঞা আরাপ করেছে। তিনি বলেন, গত চার দশক ধরে আমেরিকা একতরফাভাবে ইরানের বিরুদ্ধে জবরদস্তিমূলক ব্যবস্থা নিয়েছে এবং সেটি দিন দিন বেড়েছে। ইসহাক-আল-হাবিবি বলেন, অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা হচ্ছে আমেরিকার হস্তক্ষেপমূলক এবং অদূরদর্শী নীতির প্রমাণ।

কিউবার বিরুদ্ধে আমেরিকা যে একতরফাভাবে অবরোধ আরোপ করেছে তার বিরুদ্ধে গতকাল জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে ভোটাভুটি হয়। এতে বিশ্বের ১৮৭টি দেশ অবরোধের বিপক্ষে এবং মাত্র তিনটি দেশ পক্ষে ভোট দিয়েছে। আমেরিকার এই অর্থনৈতিক অবরোধের বিরুদ্ধে টানা ২৮ বছরের মতো সাধারণ পরিষদে প্রস্তাব পাস হলো।

ইসহাক আল-হাবিবি বলেন, মার্কিন অর্থনৈতিক অবরোধ শুধুমাত্র আন্তর্জাতিক শান্তি ও উন্নয়নকে ক্ষতিগ্রস্ত করে না বরং স্বাভাবিক শান্তি-শৃঙ্খলাও বাধাগ্রস্ত করছে অথচ এগুলো হচ্ছে টেকসই উন্নয়নের জন্য জরুরি।

১৯৬১ সালের কিউবার সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করার পরপরই আমেরিকা দেশটির বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক অবরোধ আরোপ করে। এ সম্পর্কে ইসহাক আল-হাবিবি বলেন, একটি দেশের বিরুদ্ধে ৬০ বছরের অর্থনৈতিক অবরোধ অনেক বড় কঠিন শাস্তি। তিনি বলেন, বাস্তবতা হচ্ছে- ইরান এবং কিউবা আমেরিকার উপনিবেশবাদী নীতিকে প্রতিরোধ করতে গিয়ে অনেক বড় মূল্য দিচ্ছে।#

পার্সটুডে/এসআইবি/৮

ট্যাগ

মন্তব্য