আগস্ট ০৯, ২০২০ ১৫:৫০ Asia/Dhaka

কাতারে হামলা চালানোর জন্য সৌদি আরব আমেরিকাকে পরামর্শ দিয়েছিল বলে মার্কিন ফরেন পলিসি ম্যাগাজিনে যে খবর প্রকাশিত হয়েছে সে ব্যাপারে কাতার সরকার তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে। দোহা জানিয়েছে রিয়াদের পক্ষ থেকে ওই খবর প্রত্যাখ্যান বা অস্বীকার না করা থেকে বোঝা যায় সত্যি সত্যিই সৌদি আরব কাতারে হামলা চালানোর ইচ্ছা পোষণ করেছিল।

২০১৭ সালের জুন থেকে সৌদি আরব ও কাতারের মধ্যে উত্তেজনা চলে আসছে। সৌদি আরব, কাতার, কুয়েত, ওমান, বাহরাইন ও সংযুক্ত আরব আমিরাত হচ্ছে পারস্য উপসাগরীয় সহযোগিতা পরিষদ বা পিজিসিসি’র সদস্য। সৌদি আরব নিজেকে এ পরিষদের মোড়ল মনে করে এবং আশা করে এ পরিষদের সদস্য সব দেশ পররাষ্ট্র নীতির ক্ষেত্রে রিয়াদের সঙ্গে শলাপরামর্শ বা সমন্বয় করে চলবে। কিন্তু কাতার সৌদি আরবের এ মনোভাবের সরাসরি বিরোধিতা করেছে এবং কুয়েত ও ওমানও কাতারের সঙ্গে সুর মিলিয়েছে।

২০১৭ সালে সৌদি আরব ভেবেছিল ইরান বিরোধী কর্মকাণ্ডসহ পশ্চিম এশিয়ার ঘটনাবলীতে কাতার সৌদি আরবকে সমর্থন ও সহযোগিতা করবে। সালমান বিন আব্দুল আজিজ ও মোহাম্মদ বিন সালমান ২০১৫ সালে ক্ষমতায় আসার পর থেকে তারা ইরানের বিরুদ্ধে উঠেপড়ে লেগেছে এবং ইরানকে এ অঞ্চলের জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি বলে তুলে ধরার চেষ্টা চালাচ্ছে। বিশেষ করে ২০১৭ সালের মে মাসে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের উপস্থিতিতে আরব ও বেশ কিছু মুসলিম দেশের সম্মেলনের পর ইরান বিরোধিতার মাত্রা অতীতের সকল রেকর্ড ছাড়িয়ে যায়। এর কিছুদিন পর ইরান বিরোধী একটি প্রদর্শনীর আয়োজন করে সৌদি সরকার। এর প্রতিক্রিয়ায় কাতারের আমি শেইখ তামিম বিন হামদ আলে সানি ইরানকে আঞ্চলিক বৃহৎ শক্তি হিসেবে অভিহিত করে বলেন ইরানের সঙ্গে তাদের ঘনিষ্ঠ ও ভালো সম্পর্ক বজায় রয়েছে। তিনি আরো বলেন, ইরান হচ্ছে এ অঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ একটি দেশ এবং তারা ইসলামের নীতিমালা অনুযায়ী চলে। সুতরাং এমন একটি দেশকে উপেক্ষা করা যায় না।

খ্যাতনামা বিশ্লেষক সাইমন হ্যান্ডারসন এক নিবন্ধে বলেছেন, সৌদি ও কাতারের মধ্যকার উত্তেজনার একটি বড় কারণ হচ্ছে ইরানের সঙ্গে কাতারের ঘনিষ্ঠতা এবং এ দু’দেশই সৌদি নীতির তীব্র বিরোধী। তিনি বলেন, ইরানের ব্যাপারে কাতারের ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গির কারণে আরব দেশগুলোর জোটের মাধ্যমে ইরানভীতি ছড়ানোর সৌদি চেষ্টা কার্যত ব্যর্থ হয়ে গেছে।

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, কাতারের সৌদি বিরোধী অবস্থান রিয়াদের কাছে এতোটাই অসহ্যকর হয়ে দাঁড়ায় যে তারা কাতারে হামলা চালানোর জন্য আমেরিকাকে অনুরোধ করেছিল। গত ৬ আগস্ট মার্কিন সাময়িকী ফরেন পলিসির নিবন্ধে এ কথা ফাঁস করে দেয়া হয় যে রিয়াদ, মানামা, কায়রো ও আবুধাবি ২০১৭ সালে কাতারের বিরুদ্ধে অবরোধ আরোপ করার পর সৌদি রাজা সেসময় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে টেলিফোন করে কাতারের ওপর সামরিক হামলা চালানোর অনুরোধ করেছিলেন। কিন্তু ট্রাম্প সে প্রস্তাবে রাজি হননি।

ইরানভীতি ছড়িয়ে দেয়া এবং কাতারকে নিয়ন্ত্রণে আনতে ব্যর্থ হওয়ার পর যুদ্ধবাজ সৌদি যুবরাজ সালমান কেন সামরিক পন্থায় অগ্রসর হওয়ার চিন্তা করেছিলেন সেটাই এখন প্রশ্ন। প্রকৃতপক্ষে যুবরাজ সালমান রাজার পদে অধিষ্ঠিত হওয়ার জন্য অস্থির হয়ে পড়েছেন। এ কারণে যুদ্ধের মাধ্যমে তিনি সৌদি জনগণ ও প্রশাসনে নিজের ক্ষমতা প্রদর্শন এবং সৌদি আরবকে মধ্যপ্রাচ্যের শ্রেষ্ঠ সামরিক শক্তি হিসেবে পরিচিত করার চেষ্টা করেছেন। ঠিক একই উদ্দেশ্যে তিনি ২০১৫ সালে ইয়েমেনের বিরুদ্ধে যুদ্ধ শুরু করেন। এরপর ২০১৭ সালে কাতারের বিরুদ্ধে অবরোধ আরোপের পর যুদ্ধ বাধাতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তিনি এখন পর্যন্ত কোনো লক্ষ্যই অর্জন করতে পারেননি।#   

পার্সটুডে/রেজওয়ান হোসেন/ ৯

 

ট্যাগ

মন্তব্য