মে ১৬, ২০২১ ১৩:১৩ Asia/Dhaka
  •  ‘ফিলিস্তিনে ইসরাইলি বর্বরতা দেখে হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হচ্ছে’

আসসালামু আলাইকুম, আমার প্রিয় রেডিও তেহরানের প্রিয়জন আসরে লিখতে গিয়ে হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হচ্ছে। কারণ দখলদার অভিশপ্ত ইহুদি সৈন্যরা শান্তিপ্রিয় মজলুম ফিলিস্তিনিদের উপর অতর্কিত হামলা করে যাচ্ছে এবং অসংখ্য ভাই-বোনদের হতাহত করে যাচ্ছে যা মিডিয়াম কল্যাণে দেখে হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হচ্ছে।

রেডিও তেহরানের মাধ্যমে দখলদার ইসরাইলিদের অপতৎপরতা ও বর্বরতার তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করছি।

কোথায় বড় বড় মুসলিম দেশ? কোথায় ইসলামের ধারক ও বাহক সৌদি আরব? কোথায় জাতিসংঘ? কোথায় তথাকথিত ওআইসি? সবাই মনে হচ্ছে ঘুমন্ত এবং মুসলিম জাহান নাক ডেকে ঘুমাচ্ছে!

আজ ইহুদিবাদী দখলদারের বিরুদ্ধে কেবল ইরান ও গুটিকয়েক মুসলিম দেশ ছাড়া কারো প্রতিবাদ কিংবা নিরীহ ফিলিস্তিনিদের প্রতি কোন সমবেদনা প্রকাশ করতে দেখিনি। অথচ পূরো মুসলিম সমাজ হলো একটি দেহের মতো।

ঈমানের দাবি হলো- পৃথিবীর কোথাও কোনো মুসলমান কষ্টের সম্মুখীন হলে এবং বিপদগ্রস্ত হলে মুসলমান হিসেবে তার বিপদে এগিয়ে যাওয়া আমাদের ঈমানি দায়িত্ব। কোনো মুসলমানের কষ্ট, বেদনা ও উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় সত্যিকার মুমিন কখনও নির্বিকার থাকতে পারে না। ঈমানেরও দাবি হচ্ছে, সুখে-দুঃখে এক মুমিন অন্য মুমিনের পাশে থাকবে। তাদের কষ্ট লাঘবে সদা তৎপর থাকবে।

রাসুল (সা.) মুসলিম জাতিকে একটা দেহের সঙ্গে তুলনা করে বলেছেন, পারস্পরিক ভালোবাসা, দয়া-মায়া ও স্নেহ-মমতার দিক থেকে গোটা মুসলিম সমাজ একটি দেহের মতো। যদি দেহের কোনো বিশেষ অঙ্গ অসুস্থ হয়ে পড়ে, তাহলে অন্যান্য অঙ্গ-প্রত্যঙ্গেও তা অনুভত হয়; সেটা জাগ্রত অবস্থায় হোক কিংবা জ্বরাক্রান্ত অবস্থায়।’

তিনি আরও বলেছেন, একজন মুমিন অন্য মুমিনের জন্য একটি ইমারত সদৃশ্য, যার এক অংশ আরেক অংশকে মজবুত করে। অর্থাৎ সবল মুমিনদের সাহায্য-সহযোগিতায় অসহায় ও দুর্বলরা সবল হয়ে উঠবে, তাদের দুর্দশা কেটে যাবে। এটিই সত্য ধর্ম ইসলামের শিক্ষা।

মুসলমানদের ঐক্যের ভিত্তি হচ্ছে ঈমান। ঈমানদাররা নৈতিক ও আধ্যাত্মিকভাবে ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে ঐক্যবদ্ধ থাকার প্রেরণা পেয়ে থাকে। তাদের মধ্যে ঈমানের পরিমাণ যত বেশি থাকবে, তারা তত বেশি ঐক্যবদ্ধ হতে অনুপ্রাণিত হবে। আল্লাহ তায়ালা বলেন, প্রকৃতপক্ষেই ঈমানদাররা পরস্পরের ভাই (সুরা হুজুরাত : ১০)। রাসুল (সা.) মুমিনকে ভালোবাসা ঈমানের মাপকাঠি হিসেবে সাব্যস্ত করে বলেছেন, ঈমান ছাড়া তোমরা জান্নাতে প্রবেশ করতে পারবে না, পরস্পরকে ভালোবাসা ছাড়া তোমরা মুমিন হতে পারবে না।

রাত যত গভীর হয় ভোর ততই নিকটবর্তী হয়। আমরা আশাবাদী আল্লাহর মদদ আসন্ন। দখলদার ইহুদি জাতি মুনাফিক মুসলিমদের সহায়তা নিয়ে নিরীহ ফিলিস্তিনিদের প্রতি যতই জুলুমের স্ট্রিমরোলার চালাক না কেন মুসলিমদের সুনিশ্চিত বিজয় কেউ রুখতে পারবে না ইনশাআল্লাহ।

পরিশেষে পৃথিবীর সকল প্রান্তে নির্যাতিত নিরীহ ও নিরস্ত্র মুসলিম ভাই-বোনদের প্রতি সমবেদনা ও সংহতি প্রকাশ করছি এবং ঈমানী পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার দোয়া করছি।

 

শাহজালাল হাজারী

কুয়েত সিটি, কুয়েত।

 

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/১৬

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন। 

 

ট্যাগ