আগস্ট ১৯, ২০২২ ১৬:১৮ Asia/Dhaka
  • হাদি মাতার
    হাদি মাতার

মুরতাদ লেখক সালমান রুশদির ওপর হামলাকারী হাদি মাতার বলেছেন, ইরানের সঙ্গে তার কোনো সম্পর্ক নেই। ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের সঙ্গে হাদি মাতারের সম্পর্ক রয়েছে বলে মার্কিন কর্মকর্তাদের মিথ্যাচারের পর তা প্রত্যাখ্যান করলেন খোদ হাদি মাতার। 

বিশ্বের মুসলমানদের কাছে একজন অতিঘৃণ্য ব্যক্তি হচ্ছেন সালমান রুশদি। এর কারণ হলো তিনি মানবতার মুক্তির দূত হজরত মুহাম্মদ (সা.)-কে অবমাননা করে বই লিখেছেন। বইটির নাম 'স্যাটানিক ভার্সেস'।

কারাগারের ভেতরে বসে দেওয়া সাক্ষাৎকারে হাদি মাতার বলেছেন, তিনি একাই এই হামলা চালিয়েছেন। এর সঙ্গে অন্য কারো সম্পর্ক নেই।

সালমান রুশদিকে ঘৃণা করতেন জানিয়ে তিনি আরও বলেছেন, সালমান রুশদি স্যাটানিক ভার্সেস বই লিখে পবিত্র ইসলাম ধর্ম এবং সব মুসলমানের ধর্মবিশ্বাসকে আঘাত করেছেন। মুসলমানদের হৃদয়ে আঘাত করেছেন।

সম্প্রতি খোদাদ্রোহী সালমান রুশদির ওপর নিউ ইয়র্কের একটি অনুষ্ঠানে চাকু দিয়ে হামলা করেন হাদি মাতার। বর্তমানে তিনি মার্কিন কারাগারে আটক রয়েছেন।

১৯৮৮ সালের সেপ্টেম্বর মাসে রুশদির লেখা ‘স্যাটানিক ভার্সেস’ বা ‘শয়তানের পদাবলী’ নামক বই প্রকাশিত হয়। বইটিতে মানবতার মুক্তির দূত মহানবী (সা.)-এর অবমাননা করে এই মুরতাদ ভারতীয় লেখক। সারাবিশ্বের মুসলমানরা এ ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানান এবং রুশদির মৃত্যুদণ্ড কামনা করে বিক্ষোভ মিছিল করেন।

ভারতসহ বিশ্বের বহু দেশে বইটি নিষিদ্ধ করা হয়। এরপর এক সময়কার উপনিবেশবাদী দেশ ব্রিটেন সালমান রুশদিকে রাজনৈতিক আশ্রয় দেয় এবং তখন থেকে গত তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে পশ্চিমা দেশগুলোর আশ্রয়-প্রশ্রয়ে ছিল এই মুরতাদ লেখক। ব্রিটেন, ফ্রান্স ও আমেরিকার শীর্ষ নেতারা তার ওপর হামলার নিন্দা জানিয়েছে।#

পার্সটুডে/এসএ/১৯

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

ট্যাগ