ডিসেম্বর ০৭, ২০২১ ১৮:৩৬ Asia/Dhaka

শ্রোতাবন্ধুরা, আপনাদের সবাইকে অনেক অনেক প্রীতি আর শুভেচ্ছা জানিয়ে শুরু করছি আপনাদেরই চিঠিপত্রের আসর প্রিয়জন। আজকের আসর উপস্থাপনায় রয়েছি আমি নাসির মাহমুদ, আমি আকতার জাহান এবং আমি আশরাফুর রহমান।

আশরাফুর রহমান: বরাবরের মতোই একটি হাদিস শুনিয়ে আসর শুরু করতে চাই।  আমিরুল মোমেনীন হযরত আলী (আ.) বলেছেন, "ধার্মিক লোকদের সাথে মেলামেশা করো, তাতে তুমিও তাদের একজন হয়ে যাবে। পাপী লোক থেকে দূরে থেকো, তাতে তুমি (পাপ থেকে) নিরাপদ থাকতে পারবে!"

আকতার জাহান: আমরা সবাই মূল্যবান এ বাণীটির নির্দেশনা অনুসরণ করে মানুষের সাথে মেলামেলা করার চেষ্টা করব- এ আহ্বান রেখে নজর দিচ্ছি চিঠিপত্রের দিকে।

আসরের প্রথম মেইলটি এসেছে বাংলাদেশের জামালপুর জেলার মাদারগঞ্জ উপজেলার পূর্ব নলছিয়া থেকে। আর পাঠিয়েছেন হারুন অর রশীদ। তিনি লিখেছেন, "চেয়ার পেতে বারান্দায় বসেছি। ভোরের কুয়াশা পেরিয়ে সূর্যের সোনালী আলো এসে লাগছে শরীরে। বাইরে লেবু গাছের ডালে দোয়েল পাখিটা এদিক সেদিক করছে খাবারের খোঁজে। স্মার্টফোনে গতকাল লাইভ প্রচারিত রেডিও তেহরান-এর অনুষ্ঠান শুনছি ইন্টারনেটে। পবিত্র কুরআন থেকে মনোমুগ্ধকর তেলাওয়াত হৃদয়কে প্রশান্তিতে ভরিয়ে দিল। এতোটাই ভালো লাগল যে, মন পবিত্রতার বিশুদ্ধ আবহে অপরূপ ভালোলাগায় হারিয়ে গেল কোনো এক স্বর্গরাজ্যে! "

নাসির মাহমুদ: এরপর ১৫ নভেম্বর প্রচারিত চিঠিপত্রের আসর প্রিয়জন সম্পর্কে হারুন ভাই লিখেছেন, "মজলুমদের দোয়া কবুল হওয়া বিষয়ক হাদিসটি শুনে তৃপ্ত হলাম আজকের আসরে। তবে সবচেয়ে ভালো লেগেছে ইশরাক হোসাইন ও সাদমান সাকিবের কণ্ঠে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের অসাধারণ নাতটি। চমৎকার করে গাওয়ার জন্য শিল্পীদ্বয়কে ধন্যবাদ। অনেকদিন পর রেডিও তেহরানের মাধ্যমে কিছুটা সময় আলোর স্নিগ্ধ পরশে সজীবতায় আনন্দে ভাসল হৃদয়। ধন্যবাদ রেডিও তেহরানকে।"

আশরাফুর রহমান: চমৎকার চিঠিটির জন্য শ্রোতাবন্ধু হারুন অর রশীদ আপনাকেও ধন্যবাদ।

আসরের পরের মেইলটি এসেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বীরভূম জেলার কাজীপাড়া থেকে। আর পাঠিয়েছেন মুন্সি দরুদ।

রেডিও তেহরানের সকল কর্মকর্তাকে আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানিয়ে তিনি লিখেছেন, "বিশ্বের অন্যান্য রেডিও স্টেশনগুলো থেকে রেডিও তেহরান সম্পূর্ণ আলাদা। এ বেতারের অনুষ্ঠানগুলোতে বেশ চমক রয়েছে। রেডিও তেহরানের চিঠিপত্রের আসর প্রিয়জন দুর্দান্ত লাগছে। ইরানের পণ্যসামগ্রী অনুষ্ঠানের ১৩০ পর্ব থেকে অনেক কিছু জানতে পারলাম। বেশ ভালো লাগল।"

আকতার জাহান: রেডিও তেহরানের অনুষ্ঠানমালা আপনার ভালো লাগছে জেনে আমাদেরও ভালো লাগল। তো চিঠি লিখার জন্য আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

আসরের এবারের চিঠিটি পাঠিয়েছেন বাংলাদেশের কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর থানার সাদির চর থেকে মোঃ সাগর মিয়া।

আন্তরিক প্রীতি ও শুভেচ্ছা জানাবার পর তিনি লিখেছেন, "রেডিও তেহরানের বাংলা বিভাগ থেকে ১৭ নভেম্বর বুধবারে প্রচারিত সবগুলো অনুষ্ঠান ভালো লাগলেও বিশেষ মনোযোগ দিয়ে শুনেছি স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা বিষয়ক সাপ্তাহিক অনুষ্ঠান স্বাস্থ্যকথা। এতে আলোচনা করা হয় ব্লাড ক্যান্সার নিয়ে, যা আমাদের জানা খুবই জরুরি। অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন রক্ত ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ ডাক্তার কামরুল হাসান। তার সাবলীল আলোচনা আমাদের কাছে অনুষ্ঠানটিকে খুবই উপভোগ্য করে তোলে। চমৎকার অনুষ্ঠানটির জন্য রেডিও তেহরানকে ধন্যবাদ।"

নাসির মাহমুদ: স্বাস্থ্যকথা অনুষ্ঠান সম্পর্কে মতামত জানানোয় মোঃ সাগর মিয়া আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

এবারের মেইলটি এসেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মালদা জেলার নাগেশ্বরপুর সাহাপুর গ্রাম থেকে। আর পাঠিয়েছেন আব্দুর রহিম সেখ। সালাম ও শুভেচ্ছা জানাবার পর তিনি লিখেছেন, "দীর্ঘ ২৫ বছর ধরে আমি আপনাদের অনুষ্ঠান শুনে আসছি। কিন্তু কোনোদিন লেখা হয়নি। আজ প্রথম এই ইমেইলটা করলাম।"

আশরাফুর রহমান: ২৫ বছর পর প্রথম চিঠি! তো কী লিখেছেন তিনি?

নাসির মাহমুদ: এই চিঠিতে তিনি তার ভালো লাগার অনুষ্ঠানগুলোর নাম উল্লেখ করেছেন। তারপর লিখেছেন, "১৫ নভেম্বর রেডিও তেহরান থেকে প্রচারিত চিঠিপত্রের অনুষ্ঠান প্রিয়জন শুনলাম। এতে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার বাড্ডার শ্রোতা আলো আহমেদের ফোনালাপ খুব ভালো লেগেছে।"  

আকতার জাহান: ভাই আব্দুর রহিম সেখ, ২৫ বছরের নিরবতা ভেঙে চিঠি লেখায় আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আশা করি এখন থেকে নিয়মিত লিখবেন।

আচ্ছা আশরাফ ভাই, বেশকিছু চিঠির জবাব তো দেওয়া হলো। এবার একজন শ্রোতার সরাসরি সাক্ষাৎকার শুনলে কেমন হয়?

আশরাফুর রহমান: খুব ভালো হয়। একজন শ্রোতা অবশ্য আমাদের সাথে কথা বলার জন্য টেলিফোনের অপর প্রান্তে অপেক্ষা করছেন। তাহলে প্রথমেই তার সাথে পরিচিত হওয়া যাক।

আশরাফুর রহমান: বাংলাদেশের ঢাকা সেনানিবাস থেকে সোহেল রানা হৃদয় পাঠিয়েছেন এই মেইলটি। তিনি ফ্রেন্ডস ডি-এক্সিং ক্লাবের প্রেসিডেন্ট।

১৮ নভেম্বর প্রচারিত রংধনু সম্পর্কে হৃদয় ভাই লিখেছেন, "ইসলামী শিক্ষার আলোয় জীবনের রং বদলাতে রংধনু আসর দারুণ এক আয়োজন। শিশু-কিশোরদের জন্য আয়োজনটি হলেও সার্বজনীন এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে শিশু থেকে প্রাপ্তবয়ষ্ক সকলের জন্য আলোকময় জীবনের হাতছানি দেয়া হয়। এ পর্বের "ওয়াদা রক্ষা" সংক্রান্ত গল্পটি মানুষের জীবন বদলে দেয়ার জন্য যথেষ্ট। আমরা কথা কথায় ওয়াদা করে থাকি কিন্তু ওয়াদা রাখতে না পারলে যে পাপের ভাগী হতে হবে, সে ব্যাপারে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। দারুণ শিক্ষণীয় এই গল্পটি আমাদের সবার জীবনে ওয়াদা রক্ষার শিক্ষায় স্মরণীয় হয়ে থাকুক এই কামনা করি।"

নাসির মাহমুদ: রংধনু আসর সম্পর্কে মতামত জানানোর জন্য সোহেল রানা হৃদয় ভাই আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। আশা করি আমাদের অন্যান্য অনুষ্ঠান সম্পর্কেও লিখবেন।

টাঙ্গাইলের সাগরদিঘীর দিঘী বেতার শ্রোতা সংঘ মোবারক হোসেন ফনি পাঠিয়েছেন এবারের মেইলটি। তিনি লিখেছেন, 'আমার একটি ছোট প্রশ্ন। সেটি হল- ইরানে নাকি মাইকেও উচ্চস্বরে আযান দেয়া হয় না। এই বিষয়ে বিস্তারিত জানালে খুশি হব।' 

আকতার জাহান: হ্যাঁ, আপনি ঠিকই শুনেছেন। ইরানে মাইকে আযান দেওয়া হলেও যাতে শব্দদূষণ না হয় সেদিকে খেয়াল রাখা হয়। বেশিরভাগ মসজিদের আশপাশের এলাকার মুসল্লিরাই কেবল আযানের শব্দ শুনতে পারেন। এছাড়া, মসজিদের কাছে যদি হাসপাতাল বা ক্লিনিক থাকে তাহলে মাইকের শব্দ কমিয়ে রাখা হয়।     

আশরাফুর রহমান: মোবারক হোসেন ফনি ভাইকে ধন্যবাদ আপনার প্রশ্নটির জন্য। আশা করি আমাদের অনুষ্ঠানমালা সম্পর্কেও মতামত জানাবেন। এবারের মেইলটি পাঠিয়েছেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার নওপাড়ার  ফেমিলি রেডিও লিসনার্স ক্লাবের সভাপতি নিজামুদ্দিন সেখ। তিনি লিখেছেন,

'কুরআনের প্রতি আকর্ষণ' শিরোনামের রংধনুর আসরটি শুনলাম। অনুষ্ঠানটি এমন প্রাণবন্ত ও হৃদয়গ্রাহী ছিল যা শুনে আমি অত্যন্ত অভিভূত ও মুগ্ধ হয়ে গিয়েছিলাম। মিশরের বিশ্বখ্যাত ক্বারী আব্দুল বাসিত আব্দুস সামাদের অনুকরণে ইরানি শিশু ক্বারী মাহমুদ রেজা হাতামির কণ্ঠে পবিত্র কুরআন তেলাওয়াত আমাকে ভীষণভাবে মুগ্ধ করেছে। বিশ্বে সবচেয়ে পঠিত গ্রন্থ পবিত্র কুরআনের বাণী কিভাবে মানুষকে আকৃষ্ট করে তা জানতে পারলাম আপনাদের একটি সত্য ঘটনার উপস্থাপনার মধ্য দিয়ে। আল্লাহপাক আমাদের মানব জাতির কল্যাণ ও নাজাতের একমাত্র পাথেয় পবিত্র কুরআন পড়ার ও বুঝার তাওফিক দান করুন এই কামনায় ইতি টানলাম।"

নাসির মাহমুদ: রংধনু আসর সম্পর্কে চমৎকার মতামতের জন্য নিজামুদ্দিন ভাই আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

রংধনু আসর সম্পর্কে মতামত জানিয়ে বাংলাদেশের গোপালগঞ্জ জেলার মুকসুদপুর থেকে আ. রহমান মুন্সী পাঠিয়েছেন এই মেইলটি। তিনি লিখেছেন, "আমি দীর্ঘ ১০ থেকে ১৫ বৎসর ধরে রেডিও তেহরানের অনুষ্ঠান শুনে আসছি। এই বেতারের প্রতিটি অনুষ্ঠান আমাকে মুগ্ধ করে। বিশেষ করে রংধনু অনুষ্ঠানটি আমার খুব ভালো লাগে। এখান থেকে অনেক কিছু শেখার আছে এবং অনেক কিছু জানার আছে।"

আকতার জাহান: আ. রহমান মুন্সী ভাইকে ধন্যবাদ মেইল করে মতামত জানানোর জন্য।

আসরের এবারের মেইলটি এসেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কোচবিহার জেলার মেখলিগঞ্জ থেকে। আর পাঠিয়েছেন মনীষা রায়।

প্রীতি ও শুভেচ্ছা জানানোর পর তিনি রেডিও তেহরান বাংলা অনুষ্ঠানের দৈনিক পরিবেশনা বিশ্বসংবাদ, দৃষ্টিপাত এবং কথাবার্তা প্রসঙ্গে মতামত জানিয়েছেন। বিশ্বসংবাদ সম্পর্কে তিনি লিখেছেন, ভারত ও বাংলাদেশসহ বিশ্বে ঘটে যাওয়া চলমান ঘটনাবলী নিয়ে তরতাজা খবরগুলো এতো সুন্দর, সাবলীল ও আকর্ষণীয়ভাবে পড়া হয়, যা একবার শুনলে দ্বিতীয়বার আরও শুনতে ইচ্ছে করে। এ প্রসঙ্গে তিনি দুর্গোৎসবের সময়ে বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক ঘটনায় রেডিও তেহরান বাংলা বিভাগের খবরের কথা বিশেষভাবে উল্লেখ করেছেন।

আশরাফুর রহমান: আমাদের তিনটি প্রাত্যহিক পরিবেশনা সম্পর্কে নিরপেক্ষ ও বস্তুনিষ্ঠ মতামত তুলে ধরায় মনীষা রায় আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

আসরের শেষ চিঠিটি এসেছে চাঁপাই নবাবগঞ্জ জেলার ভোলাহাট উপজেলার ছোট জামবাড়িয়া থেকে। আর লিখেছেন মুহাম্মদ আব্দুল হাকিম মিঞা। তিনি লিখেছেন, "রেডিও তেহরানের শ্রোতা সংখ্যা কত তা আমার জানা নেই। তবে প্রিয়জনে চিঠিপত্রের জবাব ও পার্সটুডেতে প্রকাশিত শ্রোতাদের মতামত দেখে অনুমান করা পায় যে, রেডিও তেহরানের পুরুষ শ্রোতার তুলনায় নারী শ্রোতা সংখ্যা খুবই কম।" নারীদের অংশগ্রহণ ও নারী শ্রোতা বৃদ্ধিতে নারীবান্ধব বিশেষ অনুষ্ঠান প্রচার করার জন্য রেডিও তেহরানকে অনুরোধ করেছেন এ শ্রোতাবন্ধু।

নাসির মাহমুদ: নারীদের জন্য আলাদা অনুষ্ঠান প্রচারের বিষয়টি আমাদের বিবেচনায় থাকল। তো চিঠি ও মতামতের জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

আসরের এ পর্যায়ে কয়েকজন শ্রোতার চিঠির প্রাপ্তিস্বীকার করছি।

  • আব্দুস সালাম সিদ্দিক, বড়পেটা, আসাম, ভারত থেকে
  • বিধান চন্দ্র সান্যাল- দক্ষিণ দিনাজপুর পশ্চিমবঙ্গ, ভারত থেকে
  • ভারতের ছত্তিশগড়ের ভিলাই থেকে আনন্দমোহন বাইন
  • তাছলিমা আক্তার লিমা, সাউথ এশিয়া রেডিও ক্লাব (সার্ক) বাংলাদেশ থেকে
  • মো. জিল্লুর রহমান, গেন্ডারিয়া, ঢাকা থেকে
  • এবং মোঃ জুবায়ের হোসেন যশোরের চৌগাছা থেকে

আকতার জাহান: চিঠি লিখার জন্য আপনাদের সবাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ। তো শ্রোতাবন্ধুরা, আজকের আসর থেকে বিদায় নেওয়ার আগে আপনাদের জন্য রয়েছে একটি গান। গানের কথা লিখেছেন এস এম করিম উদ্দিন আর গেয়েছেন ব্রিটেনপ্রবাসী তরুণ শিল্পী শহীদ ফালাহি।

আশরাফুর রহমান: আপনারা গানটি শুনতে থাকুন আর আমরা বিদায় নিই প্রিয়জনের আজকের আসর থেকে।#

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/৭

ট্যাগ