জানুয়ারি ২২, ২০২২ ১৭:১৪ Asia/Dhaka

সুপ্রিয় পাঠক/শ্রোতা: ২২ জানুয়ারি শনিবারের কথাবার্তার আসরে স্বাগত জানাচ্ছি আমি গাজী আবদুর রশীদ। আশা করছি আপনারা প্রত্যেকে ভালো আছেন। আসরের শুরুতে ঢাকা ও কোলকাতার গুরুত্বপূর্ণ বাংলা দৈনিকগুলোর বিশেষ বিশেষ খবরের শিরোনাম তুলে ধরছি।

বাংলাদেশের শিরোনাম :

  • শাবিতে কাফনের কাপড় পরে শিক্ষার্থীদের মৌন মিছিল-ইত্তেফাক
  • মতামত-বিসিএস উত্তীর্ণ চাকরিপ্রার্থীদের আহাজারি-প্রথম আলোইসি গঠন নিয়ে আরেকটি নাটক
  • করছে সরকার: ড. মোশাররফ- মানবজমিন
  • কাল সংসদে উঠবে নির্বাচন কমিশন গঠন আইন- কালের কণ্ঠ
  • প্রশ্নফাঁসের ঘটনায় উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানসহ ১০ জন গ্রেফতার- যুগান্তর

ভারতের শিরোনাম:

  • কন্যাশ্রী-সহ সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচিতে বাংলাকে ১০০০ কোটি ঋণ দিচ্ছে বিশ্বব্যাঙ্ক-আনন্দবাজার পত্রিকা
  • একা মোদির পক্ষে দেশ বদলানো অসম্ভব, তাঁর মতো আরও আইকন চাই’, দাবি হিমন্ত বিশ্ব শর্মার-দৈনিক সংবাদ প্রতিদিন
  • ‘এখনও মুখ্যমন্ত্রী মুখ নিয়ে সিদ্ধান্ত হয়নি‌’, জানালেন প্রিয়াঙ্কা –আজকাল

বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি খবরের বিস্তারিত:

প্রশ্নফাঁসের ঘটনায় উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানসহ ১০ জন গ্রেফতার-দৈনিক যুগান্তর

প্রশ্নপত্র ফাঁস ও প্রশ্নের উত্তর সরবরাহকারী চক্রের ১০ সদস্যকে গ্রেফতার

বিস্তারিত খবরে লেখা হয়েছে, সরকারি নিয়োগ পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস ও প্রশ্নের উত্তর সরবরাহকারী চক্রের ১০ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা বিভাগ। এদের মধ্যে প্রশ্নপত্র ফাঁসের সঙ্গে একজন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও একজন বরখাস্ত সরকারি কর্মকর্তার সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে ডিএমপি।শুক্রবার রাতে রাজধানীর মিরপুর, তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল ও কাকরাইল এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

মতামত-বিসিএস উত্তীর্ণ চাকরিপ্রার্থীদের আহাজারি-প্রথম আলো

প্রথম আলোর যুগ্ম সম্পাদক ও কবি সোহরাব হাসান তার মতামত কলামে লিখেছেন, ৮ জানুয়ারি বিসিএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েও চাকরি না পাওয়া ৮৪ জন মেধাবী তরুণের কথা লেখার পর ভুক্তভোগী অনেকে যোগাযোগ করেছেন। কেউ ই-মেইল করেছেন, কেউ টেলিফোনে প্রতিকারের উপায় জানতে চেয়েছেন। আবার কয়েকজন চাকরিপ্রার্থী প্রথম আলো অফিসে এসে তাঁদের করুণ অভিজ্ঞতা বর্ণনা করে আকুতি জানিয়েছেন, ‘আমাদের জন্য কিছু একটা করুন। আমরা অন্য চাকরি না নিয়ে বিসিএস পাস করে কি অন্যায় করেছি? সরকার চাকরি দেওয়ার বদলে এখন আমাদের “দেশদ্রোহী” হিসেবে চিহ্নিত করছে। এত বড় অন্যায় কি মেনে নেওয়া যায়? আমরা জনপ্রশাসনে ধরনা দিয়েছি, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে আবেদন করেছি।’

এই তরুণেরা সাধারণ তরুণ নন। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সর্বোচ্চ ডিগ্রি নিয়ে হাজার হাজার পরীক্ষার্থীর সঙ্গে প্রতিযোগিতা করে বিসিএস পরীক্ষায় পাস করেছেন। বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি) তাঁদের নিয়োগের জন্য জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করেছে। তারা তাদের দায়িত্ব পালন করেছে। কিন্তু জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সেই নিয়োগ আটকে দিয়েছে ‘নেতিবাচক পুলিশ রিপোর্টের’ দোহাই দিয়ে। এই চাকরিপ্রার্থীরা মন্ত্রণালয়ের কর্তাব্যক্তিদের সঙ্গে দেখা করে প্রতিকার চাইলে জবাব আসে, তাদের কিছু করার নেই। ওপর থেকে নির্দেশ আছে। বাংলাদেশে এই ওপর যে কত ওপরে, তা একমাত্র ভুক্তভোগীরাই জানেন।

যে দেশে আরাকান স্যালভেশন আর্মির (আরসা) প্রধানের ভাই জাতীয় পরিচয়পত্র পেয়ে যান, সে দেশে পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্ট কীভাবে হয়, কাকে তারা দেশপ্রেমিক ও দেশদ্রোহী বানায়, তা অনুমান করা কঠিন নয়। কৌতূহলোদ্দীপক হলো, নির্দিষ্ট বিসিএসে উত্তীর্ণ হয়ে চাকরিরত ব্যক্তিকেও নেতিবাচক পুলিশ রিপোর্ট দিয়ে নতুন পদে যোগদান আটকে দিয়েছে তারা।

শাবিতে কাফনের কাপড় পরে শিক্ষার্থীদের মৌন মিছিল-ইত্তেফাক/মানবজমিনের এ শিরোনামের খবরে লেখা হয়েছে, উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে কাফনের কাপড় পড়ে মৌন মিছিল করেছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েক শ' শিক্ষার্থী।

শাবি শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদ বিক্ষোভ এবং উপাচার্যের কুশপুত্তলিকা

শনিবার (২২ জানুয়ারি) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের গোলচত্বর হতে মিছিলটি শুরু হয়ে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন দিক প্রদক্ষিণ করে। উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদের পদত্যাগের দাবিতে শিক্ষার্থীরা অনশন চালিয়ে যাচ্ছে। অনশনকারী শিক্ষার্থীরা প্রায় সবাই অসুস্থ হয়ে পড়েছে। ১২ অনশনকারীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ভিসি ভবনের সামনে বসা অপর ১২ অনশনকারীকে ক্যানোলার মাধ্যমে লিকুইড স্যালাইন ও ভিটামিন সাপ্লিমেন্টারি দেওয়া হচ্ছে।

কাল সংসদে উঠবে নির্বাচন কমিশন গঠন আইন-কালের কণ্ঠের শিরোনাম। এদিকে

ইসি গঠন নিয়ে আরেকটি নাটক করছে সরকার বলেছেন ড. মোশাররফ-মানবজমিনের এ শিরোনামের খবরে লেখা হয়েছে, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, নির্বাচন কমিশন গঠন নিয়ে সরকার যে আইন করেছে তা জাতির সঙ্গে আরেকটি নাটক। আমরা বলেছি, আওয়ামী লীগের অধীনে বিএনপি কখনো কোনো নির্বাচনে যাবে না। কেননা আওয়ামী লীগের অধীনে কোনো নির্বাচন কমিশন স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারে না। সুতরাং এসব সংকট সমাধানে আওয়ামী লীগ সরকারের পদত্যাগের কোনো বিকল্প নেই। তাই দেশে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার, খালেদা জিয়ার মুক্তি ও নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

এবার ভারতের কয়েকটি খবরের বিস্তারিত:

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়

আনন্দবাজার পত্রিকার শিরোনাম-কন্যাশ্রী-সহ সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচিতে বাংলাকে ১০০০ কোটি ঋণ দিচ্ছে বিশ্বব্যাঙ্ক।বিস্তারিত খবরে লেখা হয়েছে, পশ্চিমবঙ্গের সুসংহত সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচিতে ১ কোটি ২৫ লক্ষ ডলার (প্রায় ১,০০০) কোটি টাকা অর্থ সাহায্যের সিদ্ধান্ত নিল বিশ্বব্যাঙ্ক। সম্প্রতি রাজ্য সরকারকে চিঠি পাঠিয়ে বিশ্বব্যাঙ্কের তরফে এই সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়েছে।

রাজ্য সরকারের কন্যাশ্রী, স্বাস্থ্যসাথীর মতো উন্নয়ন কর্মসূচিতে এটি বড় আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞেরা।

প্রথম তৃণমূল সরকারের সময় থেকেই মহিলাদের ক্ষমতায়ন এবং সামাজিক সুরক্ষা নিশ্চিত করতে একের পর এক প্রকল্প গ্রহণ করেছে রাজ্য।

‘এখনও মুখ্যমন্ত্রী মুখ নিয়ে সিদ্ধান্ত হয়নি‌’, জানালেন প্রিয়াঙ্কা-আজকালের এ শিরোনামের খবরে লেখা হয়েছে, শুক্রবার প্রিয়াঙ্কা গান্ধী ইঙ্গিত দিয়েছিলেন উত্তরপ্রদেশ নির্বাচনে কংগ্রেসের ‘মুখ্যমন্ত্রী মুখ’ হচ্ছেন তিনি। শনিবার অবশ্য প্রিয়াঙ্কা জানিয়েছেন, এই বিষয়ে দল এখনও কোনও সিদ্ধান্ত নেয়নি। এটা ঘটনা, শুক্রবার নির্বাচনী ইস্তেহার প্রকাশ করে কংগ্রেস। এক অনুষ্ঠানে তা প্রকাশ করেন রাহুল–প্রিয়াঙ্কা। সেই অনুষ্ঠানেই এক প্রশ্নের জবাবে প্রিয়াঙ্কা বলেন, ‘আপনারা কি অন্য কারও মুখ দেখতে পাচ্ছেন? আমার মুখই তো সর্বত্র দেখা যাচ্ছে, তাই না? ব্যাস।’ শনিবার সেই মন্তব্যের ব্যাখ্যা দিয়ে প্রিয়াঙ্কা বলেন, ‘উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর মুখ আমি, এ কথা বোঝাতে চাইনি। লাগাতার প্রশ্নে মেজাজ হারিয়েছিলাম। উত্তরপ্রদেশে কংগ্রেসের মুখ্যমন্ত্রী মুখ এখনও ঠিক হয়নি।

একা মোদির পক্ষে দেশ বদলানো অসম্ভব, তাঁর মতো আরও আইকন চাই’, দাবি হিমন্ত বিশ্ব শর্মার-সংবাদ প্রতিদিনের এ খবরে লেখা হয়েছে, দেশকে তিনি একটা উচ্চতায় নিয়ে যেতে চাইছেন। কিন্তু তিনি একা কী করবেন? দিনের শেষে তো তিনি একা। একজন মোদির (PM Modi) পক্ষে গোটা দেশকে বদলানো সম্ভব নয়। প্রয়োজন তাঁরই মতো আরও কয়েকজন আইকনকে। তাহলেই ভারত হয়ে উঠবে বিশ্বের শ্রেষ্ঠ দেশ। শিলচরে অসম বিশ্ববিদ্যালয়ের এক অনুষ্ঠানে এমনটাই দাবি করলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা।

সংবাদ প্রতিদিনের অপর এক খবরে লেখা হয়েছে, বঙ্গ বিজেপির অন্তর্দ্বন্দ্ব নিয়ে উদ্বিগ্ন কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব, ‘দূত’ পাঠাতে পারে দিল্লি। বঙ্গ বিজেপিতে (Bengal BJP) বিদ্রোহ নিয়ে বিরক্ত ও উদ্বিগ্ন কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব হস্তক্ষেপ করতে পারে। দলের যে কোনও একজন সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক বাংলায় আসতে পারেন। দলের মধ্যে যে বিক্ষোভ চলছে তা সামাল দিতে শাসক এবং বিক্ষুব্ধ দুই গোষ্ঠীর সঙ্গে কথা বলার জন্যই কোনও একজন কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদককে দিল্লি থেকে পাঠানো হতে পারে।#

 পার্সটুডে/গাজী আবদুর রশীদ/‌২২

ট্যাগ