ফেব্রুয়ারি ১৫, ২০২২ ১৫:৫৯ Asia/Dhaka

শ্রোতাবন্ধুরা, আপনাদের সবাইকে অনেক অনেক প্রীতি আর শুভেচ্ছা জানিয়ে শুরু করছি আপনাদেরই চিঠিপত্রের আসর প্রিয়জন। আজকের আসরে আপনাদের স্বাগত জানাচ্ছি আমি নাসির মাহমুদ আমি আকতার জাহান এবং আমি আশরাফুর রহমান।

আশরাফুর রহমান: বরাবরের মতোই একটি হাদিস শুনিয়ে আসর শুরু করতে চাই। মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, "চারটি জিনিসের পাশে চারটি জিনিস থাকে: যে রাজা হয়, সে স্বেচ্ছাচারিতা করে, যে পরামর্শ করে না সে অনুতপ্ত হয়, যেমন আচরণ করবে তেমনই আচরণ পাবে, আর অভাব হলো বড় মৃত্যু।"

আকতার জাহান: আমরা সবাই এই মূল্যবান হাদিসটির শিক্ষা নিজেদের জীবনে কাজের লাগানোর চেষ্টা করব- এ কামনা করে নজর দিচ্ছি চিঠিপত্রের দিকে।

বাংলাদেশের চাঁপাই নবাবগঞ্জ জেলার ভোলাহাট উপজেলার ছোট জামবাড়িয়া থেকে মুহাম্মদ আব্দুল হাকিম মিঞা পাঠিয়েছেন আসরের প্রথম মেইলটি।

রেডিও তেহরানের সকল কলাকুশলী ও শ্রোতাবন্ধুকে শীতের শিশির ভেজা সকালের প্রীতি আর শুভেচ্ছা জানিয়ে চিঠিটি শুরু করেছেন তিনি। লিখেছেন, "রেডিও তেহরান তার নিজস্ব অনলাইন সংস্করণ পার্সটুডেতে শ্রোতাদের গঠনমূলক মতামতসমৃদ্ধ চিঠিগুলো নিয়মিত প্রকাশ ও প্রচার করে শ্রোতাদেরকে রেডিও তেহরানের অনুষ্ঠান শোনা ও চিঠিপত্র লিখার প্রতি প্রতিনিয়ত অধিক মনোযোগী ও আগ্রহী করে তুলছে। বাংলাদেশ ও ভারতের বেশ কিছু নিয়মিত শ্রোতার চিঠি নিয়মিত প্রকাশ করা হয়। চিঠিগুলো পড়ে খুব ভালো লাগে। এ চিঠির মাধ্যমে সব শ্রোতাকে অনুষ্ঠান শুনে মতামত লিখার আহ্বান জানাচ্ছি।"

নাসির মাহমুদ: আমরা আশা করি শ্রোতা বন্ধুরা আপনার আহ্বানে সাড়া দিয়ে বেশি বেশি চিঠি লিখবেন। তো আবদুল হাকিম ভাই, ইমেইল আর মতামতের জন্য আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

আসরের পরের চিঠিটি পাঠিয়েছেন, বাংলাদেশের কিশোরগঞ্জের আইআরআইবি ফ্যান ক্লাবের অর্থ সম্পাদক শরিফা আক্তার পান্না।

তিনি লিখেছেন, ১৬ জানুয়ারি, রোববার রেডিও তেহরান থেকে প্রচারিত প্রতিটি অনুষ্ঠানই ভালো লেগেছে। তবে অধিক ভালো লেগেছে ইসলামি ও ইরানি পরিবার বিষয়ক নতুন ধারাবাহিক ‘সুখের নীড়’। গত দুটি আসরের মত এ আসরও আমাদের খুব ভালো লেগেছে। এমন একটি চমৎকার অনুষ্ঠান প্রচার করে রেডিও তেহরান মানুষকে সচেতন করছে, সুখের নীড় গড়ে তুলতে সাহায্য করছে। সেজন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানাই।"

আশরাফুর রহমান: বোন শরিফা আক্তার পান্না, সুখের নীড় অনুষ্ঠানটি আপনার ভালো লেগেছে জেনে আমাদেরও ভালো লাগছে। আশা করি আমাদের অন্যান্য অনুষ্ঠান সম্পর্কেও লিখবেন।

ভারতের আসামের বড়পেটা জেলার কান্দুলিয়া থেকে সকাল-সন্ধ্যা রেডিও লিসেনার্স ক্লাবের সভাপতি আব্দুস সালাম সিদ্দিক পাঠিয়েছেন পরের মেইলটি।

শীতের হিমেল সোনাঝরা সকালের একরাশ প্রীতিময় শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা জানিয়ে চিঠিটি শুরু করেছেন তিনি। এরপর লিখেছেন, ২৪ জানুয়ারি প্রচারিত প্রিয়জন অনুষ্ঠানে নবীন-প্রবীন শ্রোতাদের অনেক মূল্যবান মতামতসমৃদ্ধ এক/একটি মূল্যবান চিঠি পড়া হলো যা শুনে আমি অভিভূত, আনন্দিত ও পুলকিত হয়ে পড়লাম। আর ভাবতে লাগলাম যে, শ্রোতা বন্ধুরা কতো ভালোবেসে সোহাগমাখা মণিমুক্তা সদৃশ এক একটি চিঠি লিখেছেন! চিঠির পাশাপাশি কবিতার সংযোজনও লক্ষ্য করলাম যা প্রিয়জন অনুষ্ঠানটিকে করেছে আরও সমৃদ্ধ। সুন্দর অনুভবের অসাধারণ উপস্থাপনায় মনোমুগ্ধকর প্রিয়জন অনুষ্ঠানটি উপহার দেবার জন্য রেডিও তেহরানকে অনেক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।"

আকতার জাহান: প্রিয়জন অনুষ্ঠানটি সম্পর্কে এমন অভিমত নিঃসন্দেহে আমাদেরকে অনুপ্রাণিত করবে। তবে প্রশংসাসূচক মন্তব্যের পাশাপাশি গঠনমূলক সমালোচনা ও পরামর্শও কিন্তু আমরা পেতে চাই। তো, চিঠি ও মতামতের জন্য আবদুস সালাম সিদ্দিক ভাই আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

আসরের পরের মেইলটি এসেছে বাংলাদেশের জামালপুর জেলার মাদারগঞ্জ উপজেলার পূর্ব নলছিয়া থেকে। আর পাঠিয়েছেন হারুন অর রশীদ। লিখেছেন, "ব্যস্ততা কাটিয়ে আনমনে যখন স্মৃতিতে ভেসে ওঠে 'প্রিয়জন' তথা রেডিও তেহরানের কথা তখন মানসপটে জ্বলজ্বল করে কিছু প্রিয়মুখ, কিছু গুণী কলাকুশলীদের কথা। ব্যাকুল হৃদয়ে মুহূর্তেই চলে যাই রেডিও তেহরানের ওয়েব সাইটে কিংবা ফেসবুক পেজের বিগত লাইভ প্রোগ্রামগুলোতে। ইচ্ছে মতন অনুষ্ঠান শুনে আনন্দে তৃপ্ত হই। ভালো লাগে এই ভেবে প্রযুক্তির গদ্যময় এই সময়েও রেডিও তেহরান এখনো শ্রোতাদের সরব উপস্থিতিতে মুখর। সবকিছু মিলিয়ে রেডিও তেহরানের প্লাটফর্ম এখন টুইটুম্বুর। দেশ-বিদেশের নবীন-প্রবীণ শ্রোতাদের আন্তরিকতা, সৌজন্যতা আর ভ্রাতৃত্ববোধের অমর বন্ধন গড়ে তুলে রেডিও তেহরান এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।"

নাসির মাহমুদ: রেডিও তেহরান সম্পর্কে চমৎকার মূল্যায়নের জন্য হারুন অর রশীদ ভাই আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

শ্রোতাবন্ধুরা, আসরের এ পর্যায়ে আপনাদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছি বাংলাদেশি এক সিনিয়র শ্রোতাকে। প্রথমেই তার পরিচয় জানা যাক।

নাসির মাহমুদ: ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার ইসলামপুর থেকে তরুণ মৈত্র পাঠিয়েছেন এবারের মেইলটি।

তিনি লিখেছেন, "পৃথিবীর বিভিন্ন বেতারকেন্দ্র থেকে শর্টওয়েভ যখন হারিয়ে যাচ্ছে তখন রেডিও তেহরান বাংলা বিভাগ নবরূপে সুসজ্জিত হয়ে শ্রোতাদের কাছে ফুলের ডালির মতো সাজানো অনুষ্ঠান উপহার দিয়ে চলছে। বেতারটি গত ৪০ বছর ধরে খবরের পাশাপাশি যেসব অনুষ্ঠান প্রচার করছে তা শ্রোতাদেরকে আলোকিত মানুষ হিসেবে গড়তে সাহায্য করছে। আমি প্রত্যাশা করি যুগ যুগ ধরে রেডিও তেহরান বাংলা বিভাগ বাঙালির হৃদয়ে মনি কোঠায় ধরে রাখবে।"

আশরাফুর রহমান: শ্রোতাবন্ধু তরুণ মৈত্রকে ধন্যবাদ চমৎকার মতামতটির জন্য। ভারতের পর আবারো বাংলাদেশের চিঠির দিকে নজর দিচ্ছি। এটি পাঠিয়েছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী আবু তাহের।

তিনি লিখেছেন, "আইআরআইবি ফ্যান ক্লাব বাংলাদেশ-এর প্রথম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে ইরান কালচারাল সেন্টারে হয়ে গেল আলোচনাসভা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ইরানের কালচারাল কাউন্সিলর ড. সাইয়্যেদ হাসান সেহাত। অনুষ্ঠানে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এসেছিলেন রেডিও তেহরান-এর নিয়মিত শ্রোতা, কুইজ এবং প্রবন্ধ পুরস্কার বিজয়ী ও শুভাকাঙ্ক্ষীরা। সব মিলিয়ে তৈরি হয় এক আবেগঘন পরিবেশ।  সময় স্বল্পতার কারণে সবাই বক্তব্য দিতে না পারলেও যারা বক্তব্য দিয়েছিলেন তাদের বক্তব্যে উঠে এসেছে রেডিও তেহরান নিয়ে নানা ধরনের স্মৃতিচারণমূলক কথা এবং ব্যক্ত করেছেন নিজের অনুভূতি।" 

আকতার জাহান:  আইআরআইবি ফ্যান ক্লাব বাংলাদেশ-এর প্রথম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার পর অনুভূতি জানিয়ে ইমেইল করায় আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। আশা করি আমাদের অনুষ্ঠানমালা সম্পর্কেও লিখবেন।

বাংলাদেশের চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার জয়নালপুর থেকে মধুমালা রেডিও ক্লাবের সভাপতি মোঃ শাহাদাত হোসেন পাঠিয়েছেন পরের মেইলটি। তিনি লিখেছেন, "রেডিও তেহরান নিয়মিত শোনার ফলে জানতে পাচ্ছি বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ। ইসলাম সম্পর্কেও নির্ভুল তথ্য পাচ্ছি। ২০ জানুয়ারি শিশু-কিশোরদের জন্য প্রচারিত অনুষ্ঠান রংধনু আসরে বিশ্বনবীর শিশুপ্রীতি বিষয়ে অনেক কিছু জেনেছি।"

সবশেষে এ শ্রোতাবন্ধু জানতে চেয়েছেন- ইরানের জাতির পিতা কে?

নাসির মাহমুদ: ভারতীয় উপমহাদেশের মতো 'জাতির পিতা'র কালচার ইরানে নেই। এদেশের জাতীয় নেতা বা ইসলামী বিপ্লবের রূপকার হচ্ছেন মরহুম ইমাম খোমেনী। আর বর্তমান সর্বোচ্চ নেতা হচ্ছেন আয়াতুল্লাহিল উজমা খামেনেয়ী।

আশরাফুর রহমান: আসরের পরের মেইলটি পাঠিয়েছেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার বারুইপাড়া থেকে মুহাম্মদ নাজিম উদ্দিন। তিনি লিখেছেন, গত ২৩ জানুয়ারি তারিখে মানবজাতির শ্রেষ্ঠ মহামানবী হযরত ফাতিমা যাহরা সালামুল্লাহি আলাইহা'র পবিত্র জন্মদিন উপলক্ষে রেডিও তেহরান থেকে একটি বিশেষ অনুষ্ঠান প্রচার করা হয়েছে। ওইদিনের আলোচনায় এই মহামানবীর নানা দিক তুলে ধরে ইসলামের এক গৌরবময় ব্যক্তিত্বের প্রতি রেডিও তেহরানের যথার্থ সম্মান ও শ্রদ্ধা জ্ঞাপন আমাদের মুগ্ধ করেছে। ইরানে ইসলামী বিপ্লব বিজয়ে পর থেকেই হযরত ফাতিমা যাহরা সালামুল্লাহি আলাইহার শুভ জন্মদিনকে 'নারী দিবস' হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। একজন মহামানবীর আদর্শকে সমুজ্জ্বল রাখতে ও তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শনের এ অনন্য নজির স্থাপন করার জন্যে ইসলামী প্রজাতন্ত্র ইরানের প্রতি কুর্নিশ জানাই।"

আকতার জাহান:  নবীনন্দিনী হযরত ফাতিমা যাহরা (সা. আ,)-এর শুভ জন্মবার্ষিকীর অনুষ্ঠান শুনে নাজিমউদ্দিন ভাই বেশ বড়সড় একটি মেইল পাঠিয়েছেন। তার পুরো লেখাটি আমাদের ওয়েবসাইটে আপডেট করা হয়েছে। আগ্রহীরা পড়ে নিতে পারেন।

আজকের আসরের শেষ চিঠিটি এসেছে বাংলাদেশের কুড়িগ্রাম জেলার ভূরুঙ্গামারী উপজেলার উত্তর ধলডাঙ্গার শাপলা শর্টওয়েভ রেডিও লিসেনার্স ক্লাব থেকে। আর পাঠিয়েছেন আব্দুল কুদ্দুস (মাস্টার)।

তিনি লিখেছেন, "প্রিয় বেতার রেডিও তেহরানের বাংলা অনুষ্ঠানে 'স্বাস্থ্য কথা'র পরপর চারটি পর্ব শুনলাম। এতে ব্রেইন স্ট্রোক সম্পর্কে অনেক অজানা তথ্য আহরিত হলো। ব্রেইন স্ট্রোকের কারণ, এর লক্ষণ ও প্রতিকার নিয়ে সবিস্তারে আলোচনা করলেন কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক ও হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. মো. তাইফুর রহমান। অত্যন্ত সময়োপযোগী ও তথ্যপূর্ণ তার সাক্ষাৎকারটি ভীষণ ভালো লাগল। বিশেষ করে ১৯ জানুয়ারি আলোচনার শেষ পর্বে জানলাম যে, জীবনে সুস্থ থাকার জন্য ঘুম একটি অপরিহার্য বিষয়। আমাদের সঠিক সময়ে ঘুমানোর উপকারিতা এবং দেরিতে ঘুমানোর ভয়াবহ ক্ষতি সম্পর্কে জ্ঞানার্জন একদিকে যেমন চলমান জীবনে কার্যকরী ভূমিকা রাখবে তেমনি রেডিও তেহরানের স্বাস্থ্যকথা অনুষ্ঠানটি প্রচারেরও সার্থকতা বয়ে আনবে। আমি মনে করি নিঃসন্দেহে 'স্বাস্থ্যকথা' অনুষ্ঠানটি রেডিও তেহরানের শ্রোতাদের কাছে এক অনন্য সংযোজন।"

নাসির মাহমুদ: স্বাস্থ্যকথা অনুষ্ঠানটি শ্রোতাদের উপকারে আসছে জেনে ভালো লাগল। বেশ সাজিয়েগুছিয়ে চিঠিটি লিখার জন্য আবদুল কুদ্দুস ভাই আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

অনুষ্ঠানের এ পর্যায়ে কয়েকটি ইমেইলের প্রাপ্তিস্বীকার করছি। এগুলো যারা পাঠিয়েছেন তারা হলেন:

  • বাংলাদেশের পাবনা জেলার চাটমোহর থানার হরিপুর থেকে মোঃ মুকুল হোসেন
  • কিশোরগঞ্জের গুরুদয়াল কলেজ থেকে মোঃ শাহাদত হোসেন
  • কুষ্টিয়ার খাদিমপুর বাজার থেকে মোখলেছুর রহমান
  • ঢাকা সেনানিবাস থেকে সোহেল রানা হৃদয়
  • ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার বহরমপুর থানার নওপাড়া শিমুলিয়া থেকে জাকির হোসেন
  • এবং পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বালুরঘাট থেকে বিধান চন্দ্র সান্যাল

আশরাফুর রহমান:  চিঠি লিখার জন্য আপনাদের সবাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ। তো বন্ধুরা, অনুষ্ঠানের এ পর্যায়ে আপনাদের জন্য রয়েছে একটি আরবী নাতে রাসুল। এটি গেয়েছেন লেবাননি বংশোদ্ভুত মুসলিম সুইডিশ গায়ক, গীতিকার এবং সঙ্গীত নির্মাতা মেহের জেইন।  

আকতার জাহান:  তো শ্রোতাবন্ধুরা, আপনারা গানটি শুনতে থাকুন আর আমরা বিদাই নিচ্ছি প্রিয়জনের আজকের আসর থেকে।  

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/১৫

ট্যাগ