মে ১০, ২০২২ ১৫:৫৫ Asia/Dhaka

শ্রোতাবন্ধুরা, এই মুহূর্তে আপনারা যারা রেডিও, ওয়েবসাইট কিংবা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আমাদের অনুষ্ঠান শুনছেন তাদের সবাইকে অনেক অনেক প্রীতি আর শুভেচ্ছা জানিয়ে শুরু করছি চিঠিপত্রের সাপ্তাহিক আসর 'প্রিয়জন'। আজকের আসরে আপনাদের সঙ্গে রয়েছি আমি নাসির মাহমুদ, আমি আকতার জাহান এবং আমি আশরাফুর রহমান।

আশরাফুর রহমান: প্রত্যেক আসরের মতো আজও অনুষ্ঠানের শুরুতেই আমি একটি হাদিস শোনাতে চাই। বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.)-এর দৌহিত্র ইমাম হুসাইন (আ.) বলেছেন, "হে মানুষ, তোমার পুঁজি তোমার আয়ুষ্কাল। তোমার আয়ু থেকে যতদিন চলে যাচ্ছে ততই তোমার মূলধন সমাপ্তির দিকে ধাবিত হচ্ছে।"

আকতার জাহান: খুবই মূল্যবান একটি বাণী শুনলাম। আমরা সবাই এই বাণীটির আলোকে নিজেদের জীবনকে গড়ার চেষ্টা করব- এ আহ্বান জানিয়ে নজর দিচ্ছি চিঠিপত্রের দিকে।

আসরের প্রথমেই তেহরানের ঠিকানায় ডাকযোগে আসা একটি চিঠি হাতে তুলে নিচ্ছি। এটি এসেছে ভারতের ছত্তিশপড়ের ভিলাই থেকে। আর পাঠিয়েছেন পরিবারবন্ধু এসডব্লিউএল ক্লাবের সভাপতি ও সিনিয়র শ্রোতা আনন্দ মোহন বাইন।

নাসির মাহমুদ: এ শ্রোতাবন্ধুর আটটি চিঠি আমরা একসাথে পেয়েছি। করোনাকালে ডাকযোগে এই প্রথম কারো চিঠি এলো তেহরানের ঠিকানায়।

আশরাফুর রহমান: একদম ঠিক বলেছেন নাসির ভাই। তো এ শ্রোতাবন্ধু কী লিখেছেন তা জানতে ইচ্ছে করছে খুব।

আকতার জাহান: বিশ্বসংবাদ, দৃষ্টিপাত অনুষ্ঠানের প্রশংসা করার পর তিনি প্রিয়জন অনুষ্ঠান সম্পর্কে মতামত জানিয়েছেন। লিখেছেন, "প্রিয়জনে শুনলাম একঝাঁক শ্রোতার পত্র। তবে সবই প্রশংসার, এটা ভালো লক্ষণ নয়। রিসিপশন রিপোর্ট পাঠানো ডিএক্সারদের নামও উল্লেখ করা হলো। 'দুয়ারে আইসাছে পালকি' গানটি যেন খাওয়া শেষে পাতে রসগোল্লার মতো। এমন প্রিয়জন সত্যিই শ্রোতাদের মন কেড়ে নেয়।"

নাসির মাহমুদ: এ শ্রোতাবন্ধু ভালো একটি বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। সত্যি বলতে কী! আমরা কেবল প্রশংসাসূচক চিঠি চাই না, মাঝেমধ্যে গঠনমূলক সমালোচনাও থাকা উচিত চিঠিতে। তো, ডাকযোগে চিঠি পাঠানোর জন্য আনন্দ মোহন বাইন আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

বাংলাদেশের চাঁপাইনবারগঞ্জের ভোলাহাট থানার ছোট জামবাড়িয়া থেকে মুহাম্মদ আব্দুল হাকিম মিঞা একটি ইমেইল পাঠিয়েছেন।

তিনি লিখেছেন, রেডিও তেহরানের বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মধ্যে প্রতি সোমবারের চিঠিপত্রের আসর প্রিয়জন আমার নিকট খুবই পছন্দের একটি অনুষ্ঠান। এখান থেকে দেশ-বিদেশের অনেক শ্রোতার চিঠির জবাব দেওয়া হয় এবং গুরুত্বপূর্ণ চিঠির মতামত তুলে ধরা হয়। যার মাধ্যমে অনেক অজানা বিষয়ে জানার সুযোগ হয়। তাইতো প্রিয়জনের কাছে মনের মাধুরী দিয়ে উত্তর পাবার আশায় ইমেইলে চিঠি লিখে থাকি।

চিঠির শেষাংশে এ শ্রোতাবন্ধু তিনটি প্রশ্ন করেছেন। তার প্রথম প্রশ্নটি হলো- রেডিও তেহরানের বাংলা অনুষ্ঠানের সাথে কতজন কলাকুশলী, সাংবাদিক ও ভাষ্যকার কাজ করেন?

আশরাফুর রহমান: রেডিও তেহরানের বাংলা বিভাগের সঙ্গে সরাসরি সম্পৃক্ত ১৫ জন কলাকুশলী। এর মধ্যে পরিচালকসহ দুজন ইরানি। ঢাকা ও কোলকাতায় দুজন সংবাদদাতাও রয়েছেন। বাকি ১১ জন্য অনুবাদ, উপস্থাপনা, অনুষ্ঠান নির্মাণসহ নানা কাজের সঙ্গে সম্পৃক্ত।   

আকতার জাহান: আব্দুল হাকিম ভাইয়ের প্রশ্নের উত্তর দেওয়া হলো। আশা করি তার কৌতুহল মিটেছে। 

আসরের পরের মেইলটি এসেছে ভারতের ওড়িশার ভুবনেশ্বর থেকে। আর পাঠিয়েছেন আলোক দাস।

তিনি লিখেছেন, "২২ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার রেডিও তেহরান থেকে প্রচারিত বিশ্ব সংবাদসহ দৃষ্টিপাত অনুষ্ঠান খুব ভালো লেগেছে। দর্পন অনুষ্ঠানে 'পাকিস্তান ও আফগানিস্তান' শীর্ষক উপস্থাপনা বিশেষভাবে শিক্ষণীয় হয়েছে। ইতিহাসের পাতা থেকে কিছু অজানা তথ্য পাওয়া গেছে। একই সঙ্গে কথাবার্তা ও গল্প ও প্রবাদের গল্প অনুষ্ঠানটি খুবই চমৎকার লেগেছে।"

নাসির মাহমুদ: শ্রোতাবন্ধু আলোক দাসকে ধন্যবাদ, মতামতসমৃদ্ধ চিঠিটির জন্য।

এবারের মেইলটি এসেছে বাংলাদেশের গোপালগঞ্জের জলিরপাড় থেকে। আর পাঠিয়েছেন বিধান চন্দ্র টিকাদার। তিনি লিখেছেন, "প্রতিদিনের মতো আজকেও আমার প্রিয় রেডিও তেহরানের বাংলা অনুষ্ঠান খুব মন দিয়ে শুনলাম। আমি এখন অফিসের কাজে আমার কয়েকজন সহকর্মীকে নিয়ে পাহাড়ি জনপদ বান্দরবানে আছি। আর হোটেল রুমে বসে সেই সহকর্মীদের নিয়ে একসাথে রেডিও তেহরানের বাংলা অনুষ্ঠান শুনলাম। আমার সহকর্মীরা এমন সুন্দর অনুষ্ঠান শুনে খুবই প্রশংসা করল। তাদেরকেও নিয়মিত রেডিও তেহরানের বাংলা অনুষ্ঠান অনলাইনে শোনার পদ্ধতি দেখিয়ে দিলাম।"

আশরাফুর রহমান: সহকর্মীদের সঙ্গে রেডিও তেহরানের অনুষ্ঠানকে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার জন্য বিধান চন্দ্র টিকাদার আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর থানার গোবরিয়া গ্রাম থেকে জাহাঙ্গীর আলম পরদেশী পাঠিয়েছেন আসরের পরের মেইলটি। এটি অবশ্য প্রিয়জনে তার লেখা প্রথম চিঠি। তিনি লিখেছেন, "রেডিও তেহরানের আমি একজন নতুন শ্রোতা। সম্প্রতি কিশোরগঞ্জের গুরুদয়াল সরকারি কলেজের ভূগোল বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জনাব মোঃ শাহাদত হোসেন স্যার-এর উৎসাহ ও অনুপ্রেরণায় রেডিও তেহরানের সাথে আমার যুক্ত হওয়া এবং অনুষ্ঠান শোনা। রেডিও তেহরানের অনুষ্ঠান শোনা শুরু করে সত্যিই আমি আনন্দিত। এমন সব সুন্দর অনুষ্ঠান শোনার সুযোগ করে দেয়ায় রেডিও তেহরানকে অনেক অনেক ধন্যবাদ জানাই। সেইসাথে শাহাদত স্যারকেও ধন্যবাদ জানাই।"

আকতার জাহান: একজন নতুন শ্রোতা ও পত্রলেখক হিসেবে আপনাকেও আন্তরিক শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। আশা করি নিয়মিত অনুষ্ঠান শুনবেন এবং চিঠি লিখবেন।

নাসির মাহমুদ: বন্ধুরা, অনুষ্ঠানের এ পর্যায়ে রয়েছে এক শ্রোতাবন্ধুর সাক্ষাৎকার। টেলিফোনের অপর প্রান্তে যিনি অপেক্ষা করছেন প্রথমেই তার পরিচয় জানা যাক।  

নাসির মাহমুদ: শ্রোতাবন্ধুরা, আপনাদের নিশ্চয়ই মনে আছে যে, আইআরআইবি ফ্যান ক্লাব, কিশোরগঞ্জ- 'মজলুম জনগোষ্ঠীর পাশে ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরান' শীর্ষক প্রবন্ধ প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছিল।  ওই প্রতিযোগিতায় প্রথম পুরস্কার পেয়েছেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার নওপাড়ার শ্রোতা নিজামুদ্দিন সেখ। তার লেখার কিছু অংশ প্রিয়জনের আজকের আসরে তুলে ধরছি। তিনি লিখেছেন,

আশরাফুর রহমান: "ইরানের ইসলামি বিপ্লব মুসলিম জাতিগুলোর মধ্যে আত্মবিশ্বাস জোরদারের অনুপ্রেরণা হয়ে ওঠে। মুসলিম জাতিগুলোর সচেতন শিক্ষিত সমাজের অনেকেই এটা উপলব্ধি করতে থাকেন যে পাশ্চাত্যের ব্যর্থ মতবাদ ও সংস্কৃতির কাছে মাথা বিকিয়ে দেওয়ার মতো লজ্জাজনক আর কিছুই হতে পারে না। ইসলামকে আঁকড়ে ধরার মাধ্যমেই যে মুসলিম জাতিগুলো সম্মান অর্জন করতে পারে ইরানের ইসলামি বিপ্লব তাও বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরেছে। ফিলিস্তিন ও কাশ্মীরসহ বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলের মুক্তি আন্দোলনগুলো গভীরভাবে প্রভাবিত হয় ইরানের ইসলামি বিপ্লবের মাধ্যমে। বিশেষ করে মধ্যপ্রাচ্য, তথা পশ্চিম এশিয়ায় বিপ্লবের গভীর প্রভাব আন্তর্জাতিক সম্পর্কের পুরোনো সমীকরণকে বদলে দেয়।"

আকতার জাহান: নিজাম ভাইয়ের লেখার অংশবিশেষ পড়ে শোনানো হলো। পরবর্তী আসরে আরেকজন বিজয়ীর লেখা তুলে ধরার ইচ্ছে রইল।

আসরের পরের মেইলটি এসেছে বাংলাদেশের কুড়িগ্রাম জেলার ভূরুঙ্গামারীর শাপলা শর্টওয়েভ রেডিও লিসেনার্স ক্লাব থেকে। আর পাঠিয়েছেন ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস।

রেডিও তেহরানের নতুন ধারাবাহিক 'সুখের নীড়' সম্পর্কে তিনি লিখেছেন, "সুখের নীড় নিঃসন্দেহে শ্রোতাদের পরিবারগুলোকে একেকটি সুখী পরিবার হিসেবে গড়ে তোলার জন্য অনুপ্রেরণাদায়ক অনুষ্ঠান। 'সুখের নীড়'-এর বিগত পাঁচটি পর্বে আমরা ইরানি পরিবারের বৈশিষ্ট্য, সুখ-শান্তিপূর্ণ আদর্শ পরিবার গঠনের উপায়, ইরানের একান্নবর্তী পরিবারের আদর্শ এবং ৭৫ বছর বয়সী এক পরিবার প্রধানের সাত পুত্র ও দুই কন্যা নিয়ে সুখে শান্তিতে বসবাসের চমৎকার অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত সম্পর্কে জেনেছি।"  

নাসির মাহমুদ: 'সুখের নীড়' অনুষ্ঠানটি থেকে আদর্শ পরিবার গঠনের অনুপ্রেরণা পাচ্ছেন জেনে ভালো লাগল। তো চিঠি লিখার জন্য আব্দুল কুদ্দুস ভাই আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

বাংলাদেশের  কিশোরগঞ্জের গুরুদয়াল কলেজের সহকারী অধ্যাপক মোঃ শাহাদত হোসেন পাঠিয়েছেন পরের মেইলটি।  

তিনি লিখেছেন, "রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রেক্ষাপটে পাশ্চাত্যের মিডিয়াগুলো ইউক্রেনকে ‘নির্যাতিত জাতি’ এবং জেলেনস্কিকে ‘মহান নেতা’ হিসেবে তুলে ধরছে।  তবে এর বিপরীতে রেডিও তেহরান নির্মোহভাবে খবর ও প্রতিবেদন প্রচার করে যাচ্ছে। রেডিওতে প্রচারিত এবং পার্সটুডেতে প্রকাশিত খবর ও প্রতিবেদন থেকে আমরা জানতে পারছি যে, ইউক্রেন কিভাবে আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের তাঁবেদারি করতে গিয়ে ইরাক ও আফগানিস্তানে সেনা পাঠিয়ে মানুষ হত্যা করেছে। "

আশরাফুর রহমান: ইউক্রেন ইস্যুতে রেডিও তেহরানের ভূমিকার প্রশংসা করে একটি বড়সড় লেখা পাঠিয়েছেন শাহাদত ভাই। তার পুরো লেখাটি পার্সটুডেতে প্রকাশ করা হয়েছে। আগ্রহীরা দেখে নিতে পারেন। তো, সময়োপযুগী বিষয়ে মতামত জানানোয় শাহাদত হোসেন ভাই আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার বারুইপাড়া থেকে মুহাম্মদ নাজিম উদ্দিন পাঠিয়েছেন আসরের শেষ মেইলটি।

তিনি লিখেছেন, "রেডিও তেহরান বাংলা বিভাগের সৌজন্যে নানাবিধ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে আমরা যেমন ইরানের নানা বিষয় সম্বন্ধে জানতে পারছি; সেই সাথে জানতে পারছি, কুরআন ও সুন্নাহর আলোকে দ্বীন ইসলামের নানাবিধ আলোচনা। ইরানের প্রতিরক্ষা যুদ্ধের ধারাবাহিক আলোচনার সাথে, মধ্যপ্রাচ্যের নানাবিধ খবর, খবরের বিশ্লেষণ ও তার নানাদিক নিয়ে আলাপচারিতা।"

'পারস্য উপসাগর থেকে বঙ্গোপসাগর, রেডিও তেহরান সঙ্গী হোক, আপনার আমার' এই স্লোগানকে বাস্তবায়ন করতে রেডিও তেহরান শ্রোতাবান্ধব নানা কর্মসূচি গ্রহণে করেছে বলেও চিঠিতে উল্লেখ করেছেন এই সিনিয়র শ্রোতা।

আকতার জাহান: রেডিও তেহরান সম্পর্কে মূল্যায়নধর্মী লেখাটির জন্য নাজিম উদ্দিন ভাই আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

শ্রোতাবন্ধুরা, অনুষ্ঠানের এ পর্যায়ে কয়েকজন ডিএক্সারের নাম-ঠিকানা জানিয়ে দিচ্ছি যারা আমাদের অনুষ্ঠানের শ্রবণমান জানিয়ে ইমেইল করেছেন।

  • বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা থেকে রিফাত জামিল ইউসুফজাই  
  • কুষ্টিয়া থেকে মোখলেছুর রহমান
  • মোঃ আবদুল মান্নান চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে
  • ভারতের ছত্তিশড়ের ভিলাই থেকে আনন্দমোহন বাইন
  • পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ দিনাজপুর থেকে বিধান চন্দ্র সান্যাল
  • এবং রাশিয়ার সারাটোভ থেকে দিমিত্রি এলাগিন  

নাসির মাহমুদ: কষ্ট করে শর্টওয়েভে অনুষ্ঠান শুনে রিসিপশন রিপোর্ট পাঠানোর জন্য আপনাদের সবাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

তো, শ্রোতাবন্ধুরা, অনুষ্ঠান থেকে বিদায় নেওয়ার আগে আপনাদের জন্য রয়েছে একটি কবিতা। 'হযরত মুহাম্মদ (সা.)' শিরোনামের কবিতাটি লিখেছেন কবি আল মাহমুদ আর আবৃত্তি করেছেন আবৃত্তি বাংলাদেশ-এর সভাপতি মুস্তাগিছুর রহমান মুস্তাক।

আশরাফুর রহমান: কবিতাটি শুনলেন। তো শ্রোতাবন্ধুরা, আপনারা ভালো ও সুস্থ থাকুন আবারো এ কামনা করে বিদায় নিচ্ছি প্রিয়জনের আজকের আসর থেকে।#

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/মো.আবুসাঈদ১০

ট্যাগ