জুন ২৮, ২০২২ ০৯:৩২ Asia/Dhaka

শ্রোতাবন্ধুরা, অনেক অনেক প্রীতি আর শুভেচ্ছা নিন। আশা করি বাংলাদেশ ও ভারতসহ পৃথিবীর যে প্রান্তে বসেই আমাদের অনুষ্ঠান শুনছেন, সবাই ভালো ও সুস্থ আছেন। প্রতি সপ্তাহর মতো আজও ইমেইল ও চিঠিপত্রের ঝাঁপি নিয়ে আপনাদের মাঝে উপস্থিত হয়েছি আমি গাজী আব্দুর রশীদ, আমি আকতার জাহান এবং আমি আশরাফুর রহমান।

আশরাফুর রহমান: আজও আসরের শুরুতেই আমি একটি বাণী শোনাতে চাই। ইমাম যায়নুল আবেদীন (আ.) বলেছেন: "মিথ্যা ছোট হোক আর বড় হোক তা পরিহার করবে, রসিকতার ছলে হোক আর সত্যিকারেই হোক। কারণ, যে ছোট মিথ্যা বলে, সে বড় মিথ্যা বলায় সাহসী হয়ে ওঠে।" 

আকতার জাহান: আমরা সবসময় সত্য কথা বলব এবং মিথ্যা এড়িয়ে চলব- এ অঙ্গীকার করে নজর দিচ্ছি চিঠিপত্র ও ইমেইলের দিকে।

আসরের প্রথম চিঠিটি এসেছে বাংলাদেশের ফরিদপুর জেলার মধুখালী থানার জগন্নাথদী থেকে। আর লিখেছেন মাওলানা গোলাম সরোয়ার। তিনি লিখেছেন, "আমি রেডিও তেহরানের বাংলা বিভাগের একজন পুরাতন শ্রোতা। জীবনের সোনালী দিনগুলো রেডিও তেহরান ছাড়া ভাবতে পারি না। জীবনের পরতে পরতে রেডিও তেহরান শোনার হাজারো স্মৃতি জড়িয়ে আছে।"

গাজী আব্দুর রশীদ:  এরপর গোলাম সরোয়ার ভাই লিখেছেন, "ইসলামী দুনিয়ার মহান নেতা মরহুম আয়াতুল্লাহ খোমেনী'র নেতৃত্বে যখন ইরানে ইসলামী বিপ্লব শুরু হয় তখন আমি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র। তখন থেকেই ইমাম খোমেনীকে আমি ভালোবাসি। আমার বাবার কাঠের বাক্সের মতো বড় একটি রেডিও সেট ছিল। ইরানে ইসলামী বিপ্লবের পর ইরাক-ইরান যুদ্ধের খবর শোনার জন্য আমাদের বাড়ির উঠোনে পাড়া-প্রতিবেশীরা ভীড় করত। সে সময় আমি বাবার পাশে বসে খবর শুনতাম। সেই থেকে রেডিও তেহরান শুরু, যা এখনও অব্যাহত আছে।"

আশরাফুর রহমান: ইরানের ইসলামী বিপ্লব ও রেডিও তেহরান শোনা নিয়ে স্মৃতিচারণমূলক লেখাটির জন্য গোলাম সরোয়ার ভাই আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

ঢাকার গ্রিন রোড থেকে ডিএম ইন্টারন্যাশনাল রেডিও ক্লাবের সভাপতি ডাবলু আনোয়ার পাঠিয়েছেন পরের চিঠিটি। ক্লাবের নিজস্ব প্যাডে লেখা চিঠিতে তিনি লিখেছেন, সেই আশির দশক থেকে রেডিও তেহরান শুনছি। এখনো সাথে আছি, ভবিষ্যতেও থাকব। আমরা রেডিও তেহরানের শ্রোতা বাড়াতে চাই। তবে শ্রোতাদের সঠিকভাবে মূল্যায়ন করতে হবে। প্রিয়জনে প্রতিটি চিঠির জবাবের পাশাপাশি  ডাকযোগে শ্রোতাদের কাছে অনুষ্ঠানসূচি, শুভেচ্ছা কার্ড- এসব পাঠাতে হবে।

আকতার জাহান: ভাই ডাবলু আনোয়ার, আপনার সবগুলো দাবিই যৌক্তিক। এ বিষয়ে আমরা কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার চেষ্টা করব। চিঠি লিখার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

গাজী আব্দুর রশীদ:  শ্রোতাবন্ধুরা, এবার আমরা ভারত থেকে আসা একটি ইমেইল চেক করব। এটি এসেছে পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার নওপাড়া শিমুলিয়া থেকে। আর পাঠিয়েছেন নিজামুদ্দিন শেখ।

তিনি লিখেছেন, "রেডিও তেহরানের বাংলা অনুষ্ঠানের আমি একজন নিয়মিত শ্রোতা। ১৫ মে তারিখে বহরমপুর গ্রান্ট হলে মুর্শিদাবাদ বেতার শ্রোতা পরিবার কর্তৃক আয়োজিত শ্রোতা মিলনমেলায় উপস্থিত হয়ে রেডিও তেহরানের মনিটর নাজিম ভাইয়ের মাধ্যমে রেডিও তেহরানের কুইজ প্রতিযোগিতা ও মাসিক শ্রেষ্ঠ শ্রোতার পুরস্কার গ্রহণ করেছি। সুন্দর পুরস্কারের জন্য রেডিও তেহরানের বাংলা বিভাগের সকল কলাকুশলী ও কর্মকর্তাদের জানাই আন্তরিক ধন্যবাদ।"

আশরাফুর রহমান: একই বিষয়ে কেরালার কোল্লাম জেলা থেকে রাধাকৃষ্ণ পিল্লাই এন, পাঠিয়েছেন পরের মেইলটি। তিনি লিখেছেন, আমি অত্যন্ত আনন্দের সাথে জানাচ্ছি যে, সম্প্রতি IRIB FAN CLUB Bangladesh আয়োজিত কুইজ প্রতিযোগিতার পুরস্কার পেয়েছি। এজন্য আয়োজক প্রতিষ্ঠানকে ধন্যবাদ।  

এরপর তিনি লিখেছেন, আপনাদের প্রোগ্রামগুলো ইরানি জীবনের সমৃদ্ধি এবং বৈচিত্র্যকে প্রতিফলিত করে। যেগুলো শুনে আমি ইরান এবং আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সম্পর্কে অনেক কিছু শিখেছি।

আকতার জাহান: রেডিও তেহরান ও আইআরআইবি ফ্যান ক্লাব আয়োজিত বিভিন্ন প্রতিযোগিতার পুরস্কার পেয়েছেন জেনে ভালো লাগল। বিষয়টি ইমেইলে জানানোয় নিজামুদ্দিন শেখ ও  রাধাকৃষ্ণ পিল্লাই আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

বাংলাদেশের চাঁপাই নবাবগঞ্জ জেলার ভোলাহাট উপজেলার ছোট জামবাড়িয়া থেকে মুহাম্মদ আব্দুল হাকিম মিঞা পাঠিয়েছেন এবারের মেইলটি।

সালাম ও শুভেচ্ছা জানানোর পর তিনি লিখেছেন, "বিশ্বের অনেক বেতার অনুষ্ঠানের মধ্যে রেডিও তেহরানের অনুষ্ঠান শুনে মনে-প্রাণে প্রশান্তি অনুভব করি। সত্য নিরপেক্ষ ও বস্তুনিষ্ঠ খবরের একমাত্র মাধ্যম হলো রেডিও তেহরান। বিশ্বের অনেক বেতার আছে যেখানে শ্রোতাদের মূল্যায়নের তেমন কোনো সুযোগ নেই। কিন্তু রেডিও তেহরান তার সম্পূর্ণ বিপরীত।"

এরপর আব্দুল হাকিম ভাই লিখেছেন, "ভভারেডিও তেহরানের প্রিয়জন আসরে সকল শ্রোতার প্রত্যেকটি চিঠিকেই গুরুত্ব দিয়ে জবাব দেয়া হয় বা তাদের মতামত তুলে ধরে প্রচার করা হয়। মানসম্মত লেখাগুলো রেডিও তেহরানের নিজস্ব অনলাইন সংস্করণ পার্সটুডেতে ছাপানো হয়। ফলে যাদের চিঠিগুলো সেখানে স্থান পায় তারা রেডিও তেহরানের কাছে চিঠি লিখার জন্য আরও উৎসাহিত হয়।"  

গাজী আব্দুর রশীদ: রেডিও তেহরান সম্পর্কে বস্তুনিষ্ঠ মতামত তুলে ধরায় আব্দুল হাকিম ভাই আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

বন্ধুরা, অনুষ্ঠানের এ পর্যায়ে আমরা সরাসরি মতামত জানব ভারতের এক নতুন শ্রোতার কাছ থেকে। টেলিফোনের অপর প্রান্তে যিনি অপেক্ষা করছেন প্রথমেই তার পরিচয় জানা যাক।

আশরাফুর রহমান: বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার গুলশান-১ থেকে মোঃ হাবিবুর রহমান পাঠিয়েছেন এবারের মেইলটি। তিনি লিখেছেন, "অনলাইনে নিয়মিত আছি আপনাদের অনুষ্ঠানের সাথে। আমার কলিগ গোপালগঞ্জের বিধান চন্দ্র টিকাদার দাদা আমাকে সব সময় রেডিও তেহরানের বাংলা অনুষ্ঠান শুনতে পরামর্শ দিয়ে থাকেন। খবর, কথাবার্তা ও প্রিয়জন আমার প্রিয় অনুষ্ঠান।"  

আকতার জাহান : আমাদের অনুষ্ঠান ভালো লাগছে জানিয়ে চিঠি লিখায় আপনাকে এবং অনুষ্ঠানের সন্ধান দেওয়ায় বিধান চন্দ্র টিকাদার দাদাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

গাজী আব্দুর রশীদ: আমার হাতের পরের মেইলটি কিন্তু বিধান চন্দ্র টিকাদার দাদার!

আশরাফুর রহমান:  তাই নাকি! কী লিখেছেন তিনি?

গাজী আব্দুর রশীদ: বিধান দা লিখেছেন, "রেডিও তেহরানের বাংলা বিভাগের ৪০তম বার্ষিকী উপলক্ষে গত ২৭ মে ঢাকার জাতীয় প্রেসক্লাবে আইআরআইবি ফ্যান ক্লাব আয়োজিত বিশেষ অনুষ্ঠানে আমি উপস্থিত থাকতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে করেছি। অনেক দিন পর অনেক তারকা শ্রোতাদের সাথে মিলিত হতে পেরেছিলাম। রেডিও তেহরানের বাংলা বিভাগের জনাব আশরাফুর রহমান ভাইয়ের সাথে সরাসরি দেখা ও সাক্ষাতের সুযোগ হয়েছিল যা একটা বিরাট পাওনা ছিল। প্রতি বছর রেডিও তেহরান বাংলা বিভাগ শ্রোতাদের নিয়ে এমন আয়োজন করুক এটাই আমরা চাই।"

সবশেষে তিনি কিশোরগঞ্জের গুরুদয়াল কলেজের সহকারী অধ্যাপক শাহাদত হোসেন ভাইকে রেডিও তেহরানের বাংলা বিভাগের নতুন মনিটর নিয়োগ করায় তাকেও প্রাণঢালা অভিনন্দন জানিয়েছেন।

আকতার জাহান : রেডিও তেহরানের বাংলা বিভাগের ৪০তম বার্ষিকীর অনুষ্ঠান সম্পর্কে মতামত জানানোয় বিধান চন্দ্র টিকাদার আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বালুরঘাট থেকে বিধান চন্দ্র সান্যাল পাঠিয়েছেন এবারের মেইলটি।

তিনি লিখেছেন, "আজ ৭ জুন রেডিও তেহরানের সান্ধ্যকালীন অধিবেশন শুনলাম। অনুষ্ঠানমালায় ছিল পবিত্র কুরআন তিলাওয়াত, বিশ্বসংবাদ, দৃষ্টিপাত, দর্পন, কথাবার্তা, গল্প ও প্রবাদের গল্প এবং সংক্ষিপ্ত বিশ্ব সংবাদ। সবমিলিয়ে ৭ জুনের অনুষ্ঠান দারুণ উপভোগ করলাম।"

আশরাফুর রহমান: ৭ জুনের অনুষ্ঠান সম্পর্কে মতামত জানানোয় বিধান চন্দ্র সান্যাল, আপনাকে আন্তরিক শুভেচ্ছা।

বাংলাদেশের রাজবাড়ী জেলার খোশবাড়ী গ্রামের রংধনু বেতার শ্রোতা সংঘের সভাপতি শাওন হোসাইন পাঠিয়েছেন পরের মেইলটি। তিনি লিখেছেন, "গত ৩০ মে প্রচারিত প্রিয়জন অনুষ্ঠান আমার মন ছুঁয়ে গেছে। বাংলাদেশ ও ভারতের শ্রোতা বন্ধুদের চিঠি দিয়ে সাজানো অনুষ্ঠান বেশ প্রাণবন্ত ছিল। অনুষ্ঠানের এক পর্যায়ে রেডিও তেহরানের ৪০ বছর পূর্তি উপলক্ষে আমার পাঠানো ভয়েস ম্যাসেজটি প্রচার করা হয় যা শুনে আমি ভীষণ আনন্দিত।"

গাজী আব্দুর রশীদ: রেডিও তেহরান বিশেষ করে প্রিয়জন অনুষ্ঠান সম্পর্কে মূল্যায়নধর্মী লেখাটির জন্য শাওন ভাই আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

আজকের আসরের শেষ মেইলটি এসেছে কিশোরগঞ্জের গুরুদয়াল কলেজ থেকে। আর পাঠিয়েছেন সেখানকার ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোঃ শাহাদাত হোসেন।

তিনি লিখেছেন, "৭ জুনের সান্ধ্য অধিবেশনে ভারতের বিজেপির জাতীয় মুখপাত্র নূপুর শর্মা ও বিজেপির দিল্লি শাখার গণমাধ্যম প্রধান নবীন কুমার জিন্দাল কর্তৃক মহানবী (সা.)-কে নিয়ে অবমাননাকর মন্তব্য করার বিষয়ে খবর ও প্রতিবেদন প্রচার করা হয়। ইরানসহ আরববিশ্ব কটুক্তিকারীদের দেশের বিরুদ্ধে যেসব ব্যবস্থা ও পদক্ষেপ নিয়েছে রেডিও তেহরান ও পার্সটুডে সেসব গুরুত্ব সহকারে প্রচার করায় বাংলাভাষাভাষী মানুষ একদিকে যেমন সঠিক তথ্য পেয়েছে, তেমনি অন্যদিকে তারা দুষ্কৃতিকারীদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে উদ্বুদ্ধ হয়েছে।"

আকতার জাহান : ভাই শাহাদাত হোসেন, আমাদের বিশ্বসংবাদ সম্পর্কে ইমেইলে তাৎক্ষণিক মতামত জানানোয় আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

বন্ধুরা, অনুষ্ঠানের এ পর্যায়ে কয়েজন শ্রোতার চিঠির প্রাপ্তিস্বীকার করছি।

  • নওগাঁ জেলার সাপাহার থানার তিলনা খোঁচাপাড়া থেকে মোঃ আলী আহম্মেদ আরিফ
  • সাতক্ষীরার আশাশুনি থানার গাজীপুর থেকে মোঃ আলামিন হোসেন
  • গোপালগঞ্জের ঘোড়াদাইড় গ্রামের মধুমতি বেতার শ্রোতা সংঘ থেকে ফয়সাল আহমেদ সিপন
  • টনি আজিজ খাঁন, চট্টগ্রাম থেকে
  • এবং আনন্দ মোহন বাইন ভারতের ছত্তিশগড়ের ভিলাই থেকে।

আশরাফুর রহমান: মতামত জানিয়ে ইমেইল পাঠানোয় আপনাদের সবাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ। তো বন্ধুরা, অনুষ্ঠান থেকে বিদায় নেওয়ার আগে আপনাদের জন্য রয়েছে একটি গান। 'এই বিশ্ব বাগানে ফুটেছে যত ফুল' শিরোনামের বিখ্যাত গানটির কথা ও সুর: ফকির রতনের আর শিল্পী: কামরুজ্জামান রাব্বি। 

গাজী আব্দুর রশীদ: তো বন্ধুরা, আপনারা গানটি শুনতে থাকুন আর আমরা বিদায় নিই প্রিয়জনের আজকের আসর থেকে।# 

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/২৮

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

                                                                                                                                          

 

 

ট্যাগ