২০১৯-১০-২৪ ১৬:৪২ বাংলাদেশ সময়

পাঠক ! গত কয়েকটি অনুষ্ঠানের মত আজকের অনুষ্ঠান আপনাদের ইরানের সড়কগুলো সম্পর্কে আলোচনা করবো । আজকে আপনারা জানবেন ইরানের রেলপথের ইতিহাস। ১৮৮৬ সালে ইরানের প্রথম রেলপথ তৈরী হয় যেটি তেহরানকে রেই শহরের সাথে সংযুক্ত করেছিল ।

এর দৈর্ঘ্য ছিল প্রায় ৮৭০০ মিটার । এরপর ধীরে ধীরে বিভিন্ন শহরের মধ্যে তৈরী হয় স্বল্প দুরত্বের রেলপথ । সমগ্র ইরানের রেলপথ কাসপিয়ান সাগর তীরবর্তী গায বন্দর থেকে শুরু হয়ে পারস্য উপসাগরবর্তী ইমাম খোমেনী বন্দরে গিয়ে শেষ হয়েছে । উত্তর থেকে দক্ষিণে সম্প্রসারিত এই রেলপথ সারি ও কায়েম শাহর অতিক্রম করে বিভিন্ন সেতু ও সুরঙ্গ দিয়ে আলবোর্জের পাহাড়ী পথ পার হয়ে ফিরোজ পবর্তের ঢাল অতিক্রম করে । তারপর ভারমিনের সমতল ভূমি দিয়ে পৌঁছায় তেহরানে । দক্ষিণ অভিমুখী এই রেল পথ অনেক গ্রাম, শহর, সেতু, সুরঙ্গ অতিক্রম করে তার সর্বশেষ গন্তব্য পারস্য উপসাগরের ইমাম খোমেনী বন্দরে গিয়ে পৌঁছায় । ১৯৩৮ সালে সমগ্র ইরানে রেল যোগাযোগ শুরু হয় । এরপরও অন্যান্য রেলপথ তৈরী হয়েছে যা ইরানের বিভিন্ন অংশকে সংযুক্ত করেছে । মুহাম্মদ তার বন্ধু মহলের মধ্যে জনাব মাসুদ হোসেইনি সাথে পরিচিত হয় । তিনি একজন প্রকৌশলী এবং রেলওয়েতে কাজ করেন । আসুন আজকের আসরের নতুন শব্দ ও সেগুলোর অর্থ জেনে নেওয়া যাক ।

راه آهن - شما کار می کنید - كارمند - جاده - راه - من چیزهایی می دانم - من اطلاع ندارم - چندان - حدود - ১২০ - آن قدمت دارد - قدیمی ترین - شهر ری - آن ساخته شد - اکنون - بخشی از - كلان شهر - آن زمان - طول - 8700 متر - فرانسوی - مجري - طرح - طولانی - بين - چند شهر - خط - خطوط - سراسري - هنوز - آن ساخته نشده بود - سال - 1938- افتتاح - بندر - گز - کنار - دریا - دریای خزر - بندر امام خمینی - ساحل - خلیج فارس - آن متصل می کرد - طول - خیلی زیاد - 1400 - کیلومتر - اکنون - وضعیت - متفاوت - احتمالا" - مختلف - آنها دسترسي دارند - همين طور است - حتی - چند - مسیر - قطار برقی - آن فعاليت مي كند -

রেলপথ / আপনি কাজ করেন / কর্মকর্তা / সড়ক /পথ / আমি কিছুটা জানি / আমার কাছে তথ্য নেই / খুব বেশী /প্রায় /১২০ / সেটি পুরানো / প্রাচীনতম / ইরানের একটি শহরের নাম / সেটি তৈরী হয়েছে / এখন /অংশ বিশেষ / বৃহত্তম শহর /সেই সময় /দৈর্ঘ্য /৮৭০০ মিটার / ফ্রান্সের সাথে সম্পকির্ত এমন কিছু / কাযনির্বাহক বা বাস্তবায়নকারী /প্রকল্প / দীর্ঘ /মধ্যে /রেল লাইন /রেল লাইনসমুহ / সমগ্র / এখন /সেটি তৈরী হয়নি /বছর /১৯৩৮ /শুরু / বন্দর / ইরানের কাসপিয়ান সাগর তীরবর্তী একটি বন্দরের নাম / নিকটে / সাগর / কাসপিয়ান সাগর / ইমাম খোমেনী বন্দর / উপকুল / পারস্য উপসাগর /সেটি সংযুক্ত করতো /দৈর্ঘ্য / অনেক বেশী / ১৪০০ /এখন / পরিস্থিতি / ভিন্ন / সম্ভবত / বিভিন্ন / প্রাপ্যতা / ঠিক এমনটি / এমনকি / কয়েকটি /পথ / বৈদ্যুতিক ট্রেন / কাজ করেআসুন মুহাম্মদ ও জনাব মাসুদে কথোপকথন শোনা যাক । তবে ফার্সিতে শোনার আগে যথারীতি একবার বাংলায় অনুবাদ করে দিচ্ছি

محمد - شما در راه آهن تهران کار می کنید ؟مسعود - بله . من کارمند راه آهن هستم .محمد - من درمورد جاده ها و راههای ایران چیزهایی می دانم ، ولی درمورد راه آهن چندان اطلاع ندارم .مسعود - راه آهن ایران حدود ১২০ سال قدمت دارد . قدیمی ترین راه آهن ايران ، بین تهران و شهر ری ساخته شد .محمد - اما اکنون شهر ری ، بخشی از كلان شهر تهران است .مسعود - بله . اما آن زمان ، طول این راه آهن ৮৭০০ متر بود . یک فرانسوی ، مجري اين طرح بود .محمد - پس این راه آهن خیلی طولانی نبود !مسعود - نه . پس از آن نيز بین چند شهر ديگر نيز خطوط راه آهن ساخته شد .محمد - پس تا آن زمان ، راه آهن سراسری ايران هنوز ساخته نشده بود .مسعود - در سال 1938 راه آهن سراسری ايران افتتاح شد . این راه آهن ، بندر گز - کنار دریای خزر را به بندر امام خمینی در ساحل خلیج فارس متصل می کند .محمد - پس طول آن خیلی زیاد است .مسعود - بله . حدود 1400 کیلومتر .محمد - پس اكنون وضعیت راه آهن ايران بسیار متفاوت است و احتمالا" شهرهای مختلفي به راه آهن دسترسي دارند ؟ مسعود - بله . همین طور است . حتی در چند مسير،  قطار برقي فعاليت مي كند .

মুহাম্মদ - আপনি কি তেহরান রেলওয়েতে কাজ করেন ?মাসুদ - হ্যাঁ । আমি রেলওয়ের একজন কর্মকর্তা । মুহাম্মদ- আমি ইরানের সড়ক ও জনপথ সম্পর্কে কিছুটা জানি, কিন্তু ইরানের রেলওয়ে সম্পর্কে খুব বেশী কিছু জানি না । মাসুদ - ইরানে রেল ব্যবস্থা প্রায় ১২০ বছরের প্রাচীন । ইরানের প্রাচীনতম রেলপথ তেহরান ও রেই শহরের মধ্যে স্থাপন করা হয়েছিল । মুহাম্মদ - কিন্তু এখনতো রেই শহর বৃহত্তর তেহরানের অংশ বিশেষ ।মাসুদ - হ্যাঁ । কিন্তু সে সময় এই রেলপথের দৈর্ঘ্য ৮৭০০ মিটার ছিল । এ প্রকল্পের বাস্তবায়নকারী ছিলেন ফ্রান্সের এক নির্বাহী কর্মকর্তা । মুহাম্মদ -তাহলে এই রেলপথ খুববেশী দীর্ঘ ছিল না !মাসুদ- না । সেটির পরেও অন্যান্য কয়েকটি শহরের মধ্যে রেল লাইন স্থাপন করা হয় । মুহাম্মদ - তাহলে সে সময় পর্যন্ত সমগ্র ইরানে রেলপথ স্থাপিত হয়নি । মাসুদ - ১৯৩৮ সালে সমগ্র ইরানে রেলপথ স্থাপন শুরু হয় । এই রেলপথ কাসপিয়ান সাগরের উপকুলের বন্দর গায কে পারস্যপোসাগরের উপকুলে অবস্থিত ইমাম খোমেনী বন্দরের সাথে সংযুক্ত করেছে । মুহাম্মদ- তাহলেতো সেটি অনেক দীর্ঘ । মাসুদ - হ্যাঁ । প্রায় ১৪০০ কিলোমিটার । মুহাম্মদ - তাহলে এখন ইরানের রেল ব্যবস্থার পরিস্থিতি অনেক ভিন্ন এবং সম্ভবত বিভিন্ন শহরে রেল ব্যবস্থা আছে ? মাসুদ -হ্যাঁ । ঠিক এমনটি । এমনকি কয়েকটি গন্তব্যে বৈদ্যুতিক ট্রেন চালু আছে।

পাঠক ! রেলপথ শুধু ইরানের উত্তর ও দক্ষিণ অংশকেই সংযুক্ত করেনি, তেহরান থেকে মাশহাদ / তেহরান থেকে তাবরীয /তেহরান থেকে ইস্পাহান ও সিরাজের মধ্যেও রেলপথ স্থাপিত হয়েছে । তুরস্ক ও ইরানের সীমান্তে সম্প্রসারিত তাবরীযের রেলপথ ইরানের রেলপথকে ইউরোপের রেলপথের সাথে সংযুক্ত করেছে । এই রেলপথের মাধ্যমে প্রতিবছর অনেক যাত্রী ইউরোপ ও ইরানে ভ্রমণ করে, সেই সাথে অনেক পণ্য আমদানী ও রপ্তানীও হয় । বর্তমানে ইরানে এগারো হাজার কিলোমিটারেরও বেশী রেলপথ আছে । ইরানের রেল শিল্পের অভিজ্ঞ প্রোকৌশলী ও কর্মীরা দুর্গম পবর্ত, বিস্তীর্ণ মরুভূমির মধ্যে দিয়ে রেল লাইনকে ইরানের সর্বত্র সম্প্রসারিত করেছে । তারা নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করে সমগ্র ইরানে রেলপথে যাত্রী ও পণ্য পরিবহনের সুবিধা সম্প্রসারনের জন্য তাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন । ভারসাক সেতু ইরানের রেলপথের একটি দর্শণীয় স্থান । আগামী আসরে আপনাদের এই চমৎকার সেতুটি সম্পর্কে শোনার আমন্ত্রণ জানিয়ে আজকের মত বিদায় নিচ্ছি ।#

পার্সটুডে/নাসির মাহমুদ/মো.আবুসাঈদ/  ২৪

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন। 

ট্যাগ

মন্তব্য