জানুয়ারি ০২, ২০২০ ১৮:২১ Asia/Dhaka

ক. বন্ধুরা, একরাশ প্রীতি ও শুভেচ্ছা নিন। আশা করছি বাংলাদেশ ও ভারতসহ পৃথিবীর যে প্রান্তে বসেই আমাদের অনুষ্ঠান শুনছেন না কেন সবাই ভালো ও সুস্থ আছেন।

শুরুতেই যথারীতি একটি হাদিস। ইমাম মোহাম্মাদ বাকির (আ.)  বলেন:  যে ব্যক্তি সুস্বাস্থ্য চায় সে যেন ক্ষুধার্ত  না হওয়া পর্যন্ত খাবার না খায়।  খাবার খাওয়ার সময় যেন আল্লাহ পাকের নাম নেয় অর্থাৎ বিসমিল্লাহ বলে আহার শুরু করে এবং খাওয়ার ইচ্ছা ও কিছুটা ক্ষুধা থাকা অবস্থায় যেন খাওয়া শেষ করে।

বহলুল: আমরা বোধ হয় খাবার খাওয়ার সময় এই হাদিসের ঠিক উল্টো আচরণ করি। অর্থাৎ পেট পুরোপুরি ভরে যাওয়ার পর আরো কিছু খাওয়ার পরই থামি। যাই হোক, চমৎকার হাদিস এর আলোকে সবাই জীবন গঠনের চেষ্টা করবো।

খ. হ্যা এবারে আসরের প্রথমে হাতে তুলে নিচ্ছি একটা ইমেইল..

ক. না। ভুল  হয়ে গেল। আপনাকে বারবার ইংগিত করছেন বহলুল ভাই খেয়াল করেননি। আসলে আজ আমরা প্রথমেই নজর দেবো রেডিও তেহরানের ওয়েবসাইটের খবরে যেসব মন্তব্য হয়েছে সেদিকে। হ্যাঁ আগামীকাল থেকে 'ফোরদু' পরমাণু স্থাপনায় গ্যাস ঢোকানো শুরু হবে শীর্ষক খবরটি প্রকাশিত হয়েছে ৫ নভেম্বর। এ খবরে বলা হয়েছে, ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি বলেছেন, আগামীকাল থেকে 'ফোরদু' পরমাণু স্থাপনায় গ্যাস ঢোকানো শুরু হবে। পাশ্চাত্যের সঙ্গে স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতায় দেয়া প্রতিশ্রুতিগুলোর বাস্তবায়ন ধাপে ধাপে স্থগিত রাখার প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে এ পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। ইরান আগামীকাল থেকে এই প্রক্রিয়ার চতুর্থ ধাপ শুরু করছে।

খ. ইরান অবশ্য এরইমধ্যে এ কাজ শুরু করেছে। যাই হোক, এ খবরে হোসাইন মো আমির নামের পাঠক বন্ধু মন্তব্য করেছেন, ইরান যদি পরমাণু বোমা বানায় সেজন্য দায়ী হবে ওয়াশিংটন, তেহরান নয় এবং এটি হলো বিশ্বের সাধারণ মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি।

ক. ভাই আমির, আপনার মন্তব্যে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদবিরোধী মনোভাব ফুটে উঠেছে। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, ইরান পরমাণু বোমা বানানোর জন্য পরমাণু কর্মসূচি পরিচালনা করছে না। ইরানের সর্বোচ্চ নেতা পরমাণু বোমা বানানোকে নিষিদ্ধ বা হারাম ঘোষণা করেছেন।  

বহলুল: তবে পরমাণু সমঝোতা থেকে একতরফাভাবে গাজুয়ারি করে আমেরিকার বের হয়ে যাওয়ার মধ্য দিয়ে কিন্তু একে কার্যত ছেলের হাতের মোয়াতে রূপান্তর করা হয়েছে। যার পুরো কৃতিত্বই আমেরিকার।

খ. ঠিকই বলেছেন বহলুল ভাই, ইরান যে পরমাণু অস্ত্র তৈরি করতে চায় না সেকথা বিশ্ববাসীকে প্রমাণ করার জন্যই তেহরান পাশ্চাত্যের সঙ্গে পরমাণু সমঝোতায় সই করেছিল। ওই সমঝোতায় দু’পক্ষের স্বার্থই রক্ষিত হয়েছিল। অর্থাৎ আমেরিকাসহ পশ্চিমা দেশগুলো একথা মেনে নিয়েছিল যে, ইরান পরমাণু অস্ত্র তৈরির চেষ্টা করছে না। অন্যদিকে ইরানও এতে সই করার মাধ্যমে নিজের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞার অবসান ঘটাতে পেরেছিল।

ক. কিন্তু আমেরিকার বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমতায় এসে সেই সমঝোতা থেকে আমেরিকাকে বের করে নিয়ে বর্তমান অচলাবস্থা সৃষ্টি করেছেন। যার ফলে মধ্যপ্রাচ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। যাই হোক, ভাই হোসেইন মোহাম্মাদ আমির চমৎকার মন্তব্যের জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ।

খ. এদিকে রেডিও তেহরানের স্বাস্থ্যকথার একটি পর্বে ড. কামরুন নাহার মুস্তাফা জানিয়েছিলেন, শিশু-কিশোরেরও কাউন্সেলিংয়ের প্রয়োজন। তিনি বলেছিলেন, শিশু ও কিশোরদেরও যে কাউন্সেলিংয়ের প্রয়োজন হতে পারে তা হয়ত অনেকেই চিন্তা করেন না। অথচ সত্য বলতে কি এরও প্রয়োজনীয়তা আছে। ওয়েবসাইটে প্রকাশিত রেডিও তেহরানের এ সাক্ষাৎকারে অল্প কথায় চমৎকার মন্তব্য করেছেন মো শিহাব বাদশাহ। তিনি লিখেছেন, উপকৃত হলাম।

বহলুল: ভাই শিহাব সত্যিই আনন্দিত হলাম। ভবিষ্যতে আরও মন্তব্য করবেন। ধন্যবাদ। এদিকে আজ কবিতা শোনার ইচ্ছা হচ্ছে।

ক. হবেই তো কারণ আজ যে কবিতা নিয়ে বসে আছি। আমরা আজ কবি রাকিবুল এহসান মিনারের কবিতা শুনব যা আবৃত্তি করেছেন দিদারুল ইসলাম। রেকর্ড করা হয়েছে ঢাকার ধান শালিক স্টুডিও'তে। কবিতায় ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক দিয়েছেন দিদারুল ইসলাম। ...

খ. সব মিলিয়ে এক কথায় অপূর্ব। ভবিষ্যতে আরও কবিতা শুনতে চাই।...

ক. এবারে রেডিও তেহরানের ফেসবুক গ্রুপের খবরে পাঠক বন্ধুদের মন্তব্যের দিকে নজর দেবো। নতুন নিষেধাজ্ঞা ইরান সম্পর্কে আমেরিকার হতাশার বহিঃপ্রকাশ শীর্ষক খবরটি প্রকাশিত হয়েছে ৫ নভেম্বর। এ খবরে বলা হয়েছে, ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সাইয়্যেদ আব্বাস মুসাভি বলেছেন, মার্কিন সরকার নতুন করে তেহরানের ওপর যে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে তা ওয়াশিংটনের হতাশারই বহিঃপ্রকাশ।

খ. এ খবরে পাঠক বন্ধু জাকির হোসেন লিখেছেন, ঠিক।  আর শহীদুল ইসলাম লিখেছেন, জ্বি।

বহলুল: অল্প কথায় অনেক বক্তব্য একেই বলে!

ক. এদিকে,  ইরান যে কোন ধরনের সেন্ট্রিফিউজ তৈরি করতে সক্ষম শীর্ষক খবরটিও প্রকাশিত হয়েছে ৫ নভেম্বর। এ খবরে বলা হয়েছে ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের আণবিক শক্তি সংস্থার প্রধান আলী আকবর সালেহি বলেছেন, তার দেশ যেকোনো ধরনের সেন্ট্রিফিউজ বানাতে সক্ষম যার অর্থ হচ্ছে বিজ্ঞানের এক্ষেত্রে প্রত্যাশার চেয়েও বেশি উন্নতি করেছে ইরান।

খ. ফেসবুক গ্রুপে এ খবরে আখতার মাহবুবা লিখেছেন, নীরবে এগিয়ে যেতে হবে। এ ছাড়া বেশির ভাগ পাঠক বন্ধু এ খবরকে ভালো খবর হিসেবে অভিহিত করেছেন এবং খবরের বক্তব্যের সঙ্গে সহমতও পোষণ করেছেন।

বহলুল: সত্য কথা সবাই সুন্দর ভাবে বলেছেন। ধন্যবাদ সবাইকে। এদিকে সময় শেষ হয়ে এসেছে। আজ এখানেই মনে হয় ইতি টানতে হবে! #

ট্যাগ

মন্তব্য