জানুয়ারি ০৯, ২০২০ ১৫:৪০ Asia/Dhaka

ক. বন্ধুরা, অনেক অনেক প্রীতি ও শুভেচ্ছা নিন। আশা করছি আপনারা যে যেখানে বসেই অনুষ্ঠান শুনছেন না কেন সবাই ভালো ও সুস্থ আছেন। অন্য সব আসরের মতো আজও আমরা শুরুতেই একটি হাদিস শোনাবো।

ইমাম আলী ইবনে মুসা রেজা (আ.) বলেছেন, বিপদাপদে ধৈর্য ধরা একটি সুন্দর গুণ। আর এর চেয়ে উত্তম হচ্ছে হারাম বিষয়াদির বিপরীতে ধৈর্যধারণ করা। অর্থাৎ ধৈর্য সহকারে হারাম কাজ থেকে দূরে থাকা এবং সেগুলো বর্জন করা। মুমিনের জন্য সব হারাম বর্জন করা ফরয বা অপরিহার্য।
খ. আসুন আমরা সবাই সত্যপথের অনুসারী হই এবং সত্য বাণীর আলোকে পথচলা শুরু করি। আসরের শুরুতেই একটি চিঠি হাতে তুলে নিয়েছি।
বহলুল: চিঠি নাকি ইমেইল মানে ভুল করলেন নাকি?
ক. না না। মোটেও ভুল করা হয়নি। সত্যিই চিঠি নেয়া হয়েছে। এটি এসেছে ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট আবাসিক এলাকা থেকে। আর এটি পাঠিয়েছেন এফ এইচ অয়ন। চিঠি তিনি পোস্ট করেছেন ২৬ সেপ্টেম্বর এবং সম্প্রতি এটি আমাদের হাতে পৌঁছেছে। গত মার্চ মাস থেকে রেডিও তেহরানের অনুষ্ঠান শুনছেন উল্লেখ করে রেডিও তেহরানের অনুষ্ঠান ওয়েবসাইটের মাধ্যমে শোনেন বলে জানিয়েছেন। তিনি ইরানের ইসলামি বিপ্লবের রূপকার ইমাম খোমেনি (রহ) এর কথা প্রথমেই স্মরণ করেছেন। 
খ. এ ছাড়াও তিনি চিঠিতে স্মরণ করেছেন শহীদ আয়াতুল্লাহ ড. মোর্তজা মোতাহারি, শহীদ ড. মোস্তফা চামরান, শহীদ হুজ্জাতুল ইসলাম জাওয়াদ বাহোনারকে। এ ছাড়া, তিনি ইরানি শহীদ পরমাণু বিজ্ঞানীদের কথা স্মরণের পাশাপাশি ইরানের বর্তমান প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি, পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাওয়াদ জারিফ প্রমুখের নাম নিয়েছেন। এ ভাই লিখেছেন,এদের অক্লান্ত পরিশ্রম ও সাহসিকতার জন্যই ইরান আজ আঞ্চলিক এবং বিশ্ব শক্তিতে পরিণত হয়েছে। 
বহলুল: চমৎকার। ধন্যবাদ ভাই নয়ন। তবে চিঠি মনে হয় এখন শেষ হয় নি?

ক. হ্যাঁ। রেডিও তেহরান থেকে প্রকাশিত যে সব অনুষ্ঠান ভালো লাগে তার মধ্যে তিনি বিশ্ব সংবাদকে প্রথমে রেখেছেন। এ তালিকায় প্রিয়জন এবং কোরআনের আলোও রয়েছে। 
খ. ভাই অয়ন, অনেকদিন পর মন ভরে যাওয়ার মতো চিঠি পেলাম আপনার কাছ থেকে। যোগাযোগ প্রযুক্তির উন্নতির ফলে মানুষ আজকাল চিঠিপত্র লেখা ভুলে যেতে বসেছে। এ অবস্থায় আপনার চিঠিটি আমাদেরকে সত্যিই আপ্লুত করেছে। আর আপনার চিঠিতে দু'টো প্রশ্ন ছিল তার জবাব আমরা আর আজকের আসরে দিচ্ছি না। আগামী কোনো এক আসরে দেয়ার ইচ্ছা রইল।  আপনার কাছ থেকে আরো চিঠি এবং ইমেইল পাওয়ারও আশায় রইলাম। চিঠি লেখার জন্য আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। 
বহলুল: হ্যাঁ চমৎকার একটি চিঠি। এরকম চিঠি পেলে মন ভরে যায়। তা এবারে কিন্তু এক শ্রোতা ভাইয়ের সঙ্গে কথা বলবো। 
ক. হ্যাঁ। ভারতের পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগণার, সাভাইপুর গ্রামের শ্রোতা ভাই মো আবু তালিব বিশ্বাসের কথা শুনবো। তার এ সাক্ষাৎকার নিয়েছেন রেডিও তেহরানের কোলকাতা প্রতিনিধি আবদুল হাকিম। রেডিও তেহরানের কোন অনুষ্ঠান ভালো লাগে সে কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন ....
বহলুল: রেডিও তেহরানের খবর শোনার পর নিজেকে আর একা মনে হয় না! চমৎকার।
খ. এতোক্ষণ পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগণার পুরনো শ্রোতা ভাই মো আবু তালিব বিশ্বাসের কথা শুনছিলেন। এখানে জানিয়ে রাখছি, ভবিষ্যতে কোনো এক আসরে আমরা তার আরো কথা শুনব।  .....
বহলুল: হ্যাঁ আর দেরি নয়।
ক. না না এক্কেবারেই দেরি করা সম্ভব নয়। তাহলে প্রথমেই নজর দেই রেডিও তেহরানের ওয়েবসাইটের খবরের দিকে। হ্যাঁ ৫ নভেম্বর প্রকাশিত একটি খবরের শিরোনাম এরকম- এস৪০০-এর  দ্বিতীয় চালান পেতে দেরি হতে পারে। এ খবরে বলা হয়েছে, তুরস্কের একজন শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তা বলেছেন, রাশিয়ার কাছ থেকে এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার দ্বিতীয় চালান পেতে দেরি হতে পারে। ২০২০ সালের মধ্যে এ ক্ষেপণাস্ত্রের চালান তুরস্কের কাছে হস্তান্তর করার কথা ছিল কিন্তু প্রযুক্তির শেয়ারিং এবং যৌথভাবে উৎপাদনের বিষয়ে দ্বিপক্ষীয় আলোচনা চলার কারণে তা আপাতত স্থগিত করা হতে পারে বলে ওই কর্মকর্তা জানিয়েছেন।
খ. রেডিও তেহরানের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এ খবরে দু'টি মন্তব্য এখানের তুলে ধরছি। বন্ধু গিয়াস লিখেছেন, প্যাট্রিয়ট মানে আমেরিকার তৈরি প্যাট্রিয়ট ক্ষেপণাস্ত্র হয় প্রদর্শনীর বস্তুতে পরিণত করুন আর না হয় আর্বজনা ফেলার ঝুড়িতে রাখুন। অন্যদিকে বন্ধু মজলুম আহমেদ লিখেছেন, সৌদি আরবে প্যাট্রিয়ট ব্যর্থ হয়েছে। তাই ভারত প্যাট্রিয়ট ক্রয় থেকে বিরত রয়েছে। ইসরাইলী বিমান, ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র রাশিয়ান এস-৩০০/৪০০ সনাক্ত করতে ও ধ্বংস করতে পারে। কিন্তু ইয়েমেন থেকে আসা ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোন সৌদি আরবে মোতায়েন প্যাট্রিয়ট শনাক্ত ও ধ্বংস করতে পারেনি। তাই ভারতের মতো প্যাট্রিয়ট ক্রয় থেকে বিরত থাকুন।
বহলুল: আমার তো তাই মনে হচ্ছে। প্যাট্রিয়ট তোর দিন শেষ। তা এবারে তা হলে বিদায় নেয়ার পালা।  
ক. ঠিক বলেছেন বহলুল ভাই।  সময় শেষ হয়ে এসেছে। 
খ. যারা চিঠি লিখেছেন, খবরে মন্তব্য করেছেন এবং এতোক্ষণ অনুষ্ঠান শুনেছেন তাদের সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়ে আজ এখানেই বিদায় নিচ্ছি।#

ট্যাগ

মন্তব্য