জানুয়ারি ২৫, ২০২০ ১৬:০৯ Asia/Dhaka

সুপ্রিয় পাঠক/শ্রোতা: ২৫ জানুয়ারি শনিবারের কথাবার্তার আসরে স্বাগত জানাচ্ছি আমি গাজী আবদুর রশীদ। আশা করছি আপনারা প্রত্যেকে ভালো আছেন। আসরের শুরুতে ঢাকা ও কোলকাতার গুরুত্বপূর্ণ বাংলা দৈনিকগুলোর বিশেষ বিশেষ খবরের শিরোনাম তুলে ধরছি। এরপর গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি খবরের বিশ্লেষণে যাবো। বিশ্লেষণ করবেন সহকর্মী সিরাজুল ইসলাম।

বাংলাদেশের শিরোনাম: 

  • বিএনপির বিজয় ঠেকাতে প্রার্থীদের ওপর হামলা করা হচ্ছে: ফখরুল-দৈনিক ইত্তেফাক
  • করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ৪১, বিশ্বজুড়ে উদ্বেগ-দৈনিক মানবজমিন
  • প্রশ্নে জর্জরিত পম্পেও অভিশাপ দিলেন সাংবাদিককে-দৈনিক যুগান্তর

ভারতের শিরোনাম:    

  • ভারতেও করোনা ভাইরাস আতঙ্ক! আক্রান্ত সন্দেহে হাসপাতালে ১১ জন-দৈনিক সংবাদ প্রতিদিন
  • কাশ্মীরে বন্দি নেতাদের ছেড়ে দেওয়া হোক, ভারতের উপর চাপ বাড়িয়ে বলল আমেরিকা-দৈনিক আনন্দবাজার পত্রিকা
  • পাকিস্তান ও বাংলাদেশি মুসলিমদের দেশ থেকে ছুড়ে ফেলা উচিত, শিবসেনার মন্তব্যে তীব্র বিতর্ক -দৈনিক আজকাল

পাঠক/শ্রোতা! এবারে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি খবরের বিশ্লেষণে যাব। 

কথাবার্তার বিশ্লেষণের বিষয়:

১. শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গণতন্ত্রের চর্চা হচ্ছে- একথা বলেছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। আপনার পর্যবক্ষেণ কী?

২. ইরাকে গতকাল (শুক্রবার) অন্তত ২৫ লাখ মানুষের বিক্ষোভ হয়েছে যারা মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন। আপনি কী মনে করেন, ইরাক থেকে মার্কিন প্রশাসন সেনা সরিয়ে নেবে?

প্রশ্নে জর্জরিত পম্পেও অভিশাপ দিলেন সাংবাদিককে-দৈনিক যুগান্তর

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও ও সাংবাদিক মেরি লুইস কেলি

একের পর এক প্রশ্নে জর্জরিত হয়ে সাংবাদিককে তীব্র ভাষায় ভর্ৎসনার পাশাপাশি অভিশাপ দিয়েছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও।

শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল পাবলিক রেডিওর এক সাংবাদিক তাকে ইউক্রেন ও কিয়েভ থেকে ফেরত নিয়ে আসা মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে নিয়ে প্রশ্ন করার পর ক্ষেপে যান তিনি। এসময় প্রশ্নকারী নারী সাংবাদিকের প্রতি চিৎকার-চেঁচামেচি, ক্রুদ্ধ দৃষ্টি ও কটু-অশোভন ভাষাও ব্যবহার করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের এই শীর্ষ কূটনীতিক।

এমন একসময় তিনি মেজাজ হারালেন যখন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিশংসনের বিচার চলছে সিনেটে। সাক্ষাৎকারে তাদের অধিকাংশ কথাই হয়েছে ইরান নিয়ে। কিন্তু শেষে এসে ইউক্রেন নিয়ে পম্পেওকে প্রশ্ন করেন সাংবাদিক মেরি লুইস কেলি। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ট্রাম্পের সম্ভাব্য প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেনের বিরুদ্ধে তদন্ত করতে কিয়েভকে চাপে রাখতে ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন তিনি। বিরোধী ডেমোক্র্যাটদের এমনটিই অভিযোগ।

ইউক্রেনে ওয়াশিংটনের সাবেক রাষ্ট্রদূত মারিয়া ইয়োভানোভিচকে সুরক্ষা দিতে ব্যর্থতার অভিযোগ রয়েছে ট্রাম্পের ঘনিষ্ঠ সহচর পম্পেওর বিরুদ্ধে। প্রেসিডেন্টের ব্যক্তিগত আইনজীবী রুডি গিলিয়ানির নোংরা প্রচারের শিকার হওয়ার পর গত বসন্তে ওই রাষ্ট্রদূতকে আকস্মিকভাবে যুক্তরাষ্ট্রে ফেরত আনা হয়েছে। পম্পেওর কাছে সাংবাদিক কেলির প্রশ্ন ছিল– মারিয়া ইয়োভানোভিচের কাছে দুঃখপ্রকাশ করা কি আপনার দায়িত্ব ছিল না? এর পর উত্তেজনাপূর্ণ বাক্যবিনিময়ের পর পম্পেও বলেন, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতিটি কর্মকর্তাকে সমর্থন করেছেন তিনি। তখন কেলি রাকঢাক না রেখেই প্রশ্ন করেন, কখন আপনি প্রকাশ্যে মারিয়াকে সমর্থন দিয়েছেন? জবাবে পম্পেও বলেন, আজ আমি যা বলতে যাচ্ছি, তার সবই বলে ফেলেছি। কিন্তু কাহিনি এখানেই শেষ হয়নি। কেলি বলেন, তিনি পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে ধন্যবাদ দিয়েছেন। কিন্তু কক্ষ থেকে বের হওয়ার আগে পম্পেও তার দিকে ক্রুদ্ধ দৃষ্টিতে তাকিয়েছেন। এর পর কেলিকে কোনো রেকর্ডার ছাড়াই পম্পেওর ব্যক্তিগত থাকার কক্ষে নিয়ে যান এক কর্মী। সেখানে পম্পেও তার জন্য অপেক্ষায় ছিলেন। কেলি বলেন, তিনি আমার সঙ্গে চিৎকার-চেঁচামেচি করেন। যতক্ষণ সময় নিয়ে আমি তার সাক্ষাৎকার নিয়েছি, এ ঘটনা ততক্ষণই চলছিল।

করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪১, বিশ্বজুড়ে উদ্বেগ-দৈনিক মানবজমিন

চীনের করোনা ভাইরাস নিয়ে এখন বিশ্বজুড়ে উদ্বেগ

চীনের করোনা ভাইরাস নিয়ে এখন বিশ্বজুড়ে উদ্বেগ। একদিনের মধ্যে সেখানে এই ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ২৬ থেকে বেড়ে আজ শনিবার এসে দাঁড়িয়েছে ৪১। মারা গেছেন একজন ডাক্তারও। বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলছে, বিশ্বজুড়ে এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়ে গেছে ১৩০০। বিশ্বজুড়ে যাতে এই মহামারি ছড়িয়ে পড়তে না পারে সে জন্য সতর্কতা অবলম্বন করছে স্বাস্থ্য বিষয়ক কর্তৃপক্ষ। উহান শহরে হুবেই সিনহুয়া হাসপাতালে প্রথম এই ভাইরাস ধরা পড়ে। সেখানে আক্রান্তদের চিকিৎসা দিচ্ছিলেন ডাক্তার রিয়াং উডং (৬২)।

করোনা ভাইরাসে মৃত্যু সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪১ জনে

যে ৪১ জন মারা যাওয়ার কথা বলা হয়েছে, তার মধ্যে এই চিকিৎসক অন্তর্ভুক্ত কিনা তা স্পষ্ট নয়। রিপোর্টে বলা হয়েছে, মৃত ৪১ জনের মধ্যে ৩৯ জনই হুবেই প্রদেশের কেন্দ্রীয় অঞ্চলের। শনিবার ন্যাশনাল হেলথ কমিশন বলেছে, এই ভাইরাসে চীনে আক্রান্তের মোট সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১২৮৭। এরই মধ্যে করোনা ভাইরাস সনাক্ত করা হয়েছে থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম, সিঙ্গাপুরে, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, তাইওয়ান, নেপাল, ফ্রান্স, যুক্তরাষ্ট্র ও অস্ট্রেলিয়ায়।

প্রধানমন্ত্রীকে গাম্বিয়ার ধন্যবাদ-দৈনিক ইত্তেফাক

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানালো গাম্বিয়া

রাখাইনে গণহত্যার বিষয়ে আন্তর্জাতিক বিচার আদালতের দায়ের করা মামলায় (আইসিজে) সমর্থন এবং রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন গাম্বিয়ার আইনমন্ত্রী আবুবকর মারি । গত বৃহস্পতিবার আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে রোহিঙ্গাদের পক্ষে অন্তর্বর্তীকালীন আদেশ ঘোষণার পর ভয়েস অফ আমেরিকাকে দেয়া এক প্রতিক্রিয়ায় গাম্বিয়ার আইনমন্ত্রী এই কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

প্রতিক্রিয়ায় গাম্বিয়ার আইনমন্ত্রী আবুবকর মারি বলেন, আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার মামলা নিয়ে বাংলাদেশ প্রচুর সমর্থন দিয়েছে। এছাড়া লাখ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়েছে বাংলাদেশ। এজন্য আমরা বাংলাদেশ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। ২০১৭ সালের আগস্টে রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর পূর্ব-পরিকল্পিত ও কাঠামোগত সহিংসতা জোরদার করে মিয়ানমার সেনাবাহিনী। দেশটির সেনাবাহিনী রাখাইনে হত্যাকাণ্ড, সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, ঘরবাড়িতে অগ্নিসংযোগ শুরু করলে জীবন বাঁচাতে নতুন করে সাত লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে আসে। গত বছরের নভেম্বরে আইসিজেতে মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে গণহত্যা বন্ধে ব্যবস্থা নিতে মামলাটি দায়ের করেছিলো পশ্চিম আফ্রিকার দেশ গাম্বিয়া। এই মামলায় গত বৃহস্পতিবার আন্তর্জাতিক আদালতের অনর্বতীকালীন আদেশে বলা হয়, রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর চালানো নির্যাতন গণহত্যার শামিল।

অর্থনীতি বিষয়ক খবর-৪১৯৮টি ঋণখেলাপি প্রতিষ্ঠান কোনো অর্থই পরিশোধ করেনি-দৈনিক যুগান্তর

আট হাজার ২৩৮টি ঋণখেলাপি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৪ হাজার ১৯৮টি ঋণের কোনো অর্থই পরিশোধ করেনি। ব্যাংক ও আর্থিক সংস্থাগুলো তাদের কাছ থেকে কোনো অর্থ আদায়ই করতে পারেনি। ওইসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেই নিজেদের দায়িত্ব শেষ করেছে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান। এসব মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য তারা কোনো ব্যবস্থাও নিচ্ছে না। ফলে খেলাপিদের কাছে পড়ে আছে মোটা অঙ্কের অর্থ। বুধবার সংসদে উপস্থাপিত ঋণখেলাপিদের তালিকা বিশ্লেষণ করে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। এতে আরও দেখা যায়, ৪ হাজার ৪০টি প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ওই সময় (সেপ্টম্বর ১৯) পর্যন্ত মাত্র ২৫ হাজার ৮৩৬ কোটি ৪ লাখ টাকা আদায় করা সম্ভব হয়েছে। যা মোট ঋণের মাত্র ৩০ শতাংশ। গত বুধবার জাতীয় সংসদে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ৮ হাজার ২৩৮টি ঋণখেলাপি প্রতিষ্ঠানের তালিকা প্রকাশ করেন। বাংলাদেশ ব্যাংকের ক্রেডিট ইনফরমেশন ব্যুরোতে (সিআইবি) রক্ষিত গত সেপ্টেম্বরভিত্তিক তথ্যের ভিত্তিতে ওই তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে।

প্রকাশিত তালিকা বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, ওই সময় পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ছিল ৯৬ হাজার ৯৮৬ কোটি ৩৮ লাখ টাকা। ওই সময়ে ব্যাংকগুলো থেকে বিতরণ করা ঋণের পরিমাণ ছিল ৯ লাখ ৬৯ হাজার ৮৮২ কোটি ২২ লাখ টাকা।

এর মধ্যে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ছিল ১ লাখ ১৬ হাজার ২৮৮ কোটি ৩১ লাখ টাকা। অর্থাৎ মোট ঋণের মধ্যে প্রায় ১২ শতাংশ ছিল খেলাপি। মোট খেলাপি ঋণের মধ্যে ৮ হাজার ২৩৮টি প্রতিষ্ঠানের কাছেই ছিল ৮১ শতাংশ ঋণ। অর্থাৎ খেলাপি ঋণের সিংহভাগই ওই তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছে আটকা।

এদিকে আইনের ফাঁক গলিয়ে অনেক খেলাপিই তালিকার বাইরে রয়ে গেছেন। তাদের অনেককে খেলাপি বলা যাবে না মর্মে আদালত থেকে আদেশ পেয়েছেন। অনেকে কোনোরকম অর্থ পরিশোধ ছাড়াই খেলাপি ঋণ নবায়ন করে নিয়েছেন।

ব্যাংক পরিচালকদের ঋণ পৌনে ২ লাখ কোটি টাকা-দৈনিক যুগান্তর

বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক

দেশের ৫৫টি ব্যাংক থেকে বেসরকারি ব্যাংকগুলোর পরিচালকরা এক লাখ ৭১ হাজার ৬১৬ কোটি ১২ লাখ ৪৭ হাজার টাকা ঋণ নিয়েছেন। যা ব্যাংকগুলোর বিতরণ করা মোট ঋণের ১১ দশমিক ২১ শতাংশ। বুধবার জাতীয় সংসদে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ব্যাংক থেকে পরিচালকদের নেয়া ঋণের তথ্য প্রকাশ করেছেন। একই সঙ্গে তিনি ঋণখেলাপিদের তালিকাও প্রকাশ করেন জাতীয় সংদদে। বাংলাদেশ ব্যাংকের ঋণ তথ্যভাণ্ডারের গত সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তথ্যের ভিত্তিতে সংসদে ওই তালিকা প্রকাশ করা হয়। তালিকা অনুযায়ী ঋণখেলাপি প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ৮২২৩টি।

উল্লেখ্য, ব্যাংকগুলোর পরিচালকদের ঋণের তথ্য এই প্রথমবারের মতো সংসদে প্রকাশ করা হয়েছে। এর আগে শুধু ঋণখেলাপিদের তালিকা প্রকাশ করা হতো। কিন্তু ব্যাংকের পরিচালকদের নামে নেয়া ঋণের কোনো তথ্য প্রকাশ করা হয়নি। তবে এবার সংসদে ব্যাংক পরিচালকদের ঋণের তথ্য প্রকাশ করা হলেও কোন পরিচালক কোন ব্যাংক থেকে কী পরিমাণ ঋণ নিয়েছেন, সে তথ্য উল্লেখ করা হয়নি। তবে কয়েকটি ব্যাংক থেকে অন্য ব্যাংকের পরিচালকরা কী পরিমাণ ঋণ নিয়েছেন, সংসদে সে তথ্য দেয়া হয়েছে।

বিএনপির বিজয় ঠেকাতে প্রার্থীদের ওপর হামলা করা হচ্ছে : ফখরুল-দৈনিক ইত্তেফাক

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

আওয়ামী লীগ রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়া হয়ে বিএনপির বিজয়কে বাধাগ্রস্ত করার ষড়যন্ত্র করছে বলে দাবি করেছেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। শুক্রবার বনানীতে আরাফাত রহমান কোকোর কবর জিয়ারত শেষে তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, সিটি নির্বাচনে প্রতিযোগিতা থেকে সরিয়ে দিতে শারীরিকভাবে আক্রমন করা হচ্ছে। নানাভাবে ষড়যন্ত্র করে নির্বাচন থেকে দূরে রাখার চেষ্টা করছে আওয়ামী লীগ। বর্তমান সরকার রাজনৈতিকভাবে শূন্য হয়ে, দেউলিয়া হয়ে বিএনপির বিজয়কে বাধাগ্রস্থ করার চেষ্টা করছে। ধানের শীষের পক্ষে যে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে তাতে তাবিথ আউয়াল এবং ইশরাকের বিজয় ঠেকাতে পারবে না।

বিএনপি হারের ভয়ে সরে দাঁড়ানোর পথ খুঁজছে: কাদের-দৈনিক যুগান্তর

বিএনপির সিটি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর অজুহাত খুঁজছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। শনিবার রাজধানীর ব্র্যাক সেন্টারে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর অজুহাত খুঁজছে। নির্বাচন নিয়ে বিএনপি যেসব অভিযোগ করছে, তার বিন্দুমাত্র সত্যতা নেই বলেও জানান ওবায়দুল কাদের।

বিএনপির সমালোচনা করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপি আসলেই একটি নালিশনির্ভর দল। বাংলাদেশের রাজনীতির ইতিহাসে বিএনপির মতো অমন ব্যর্থ রাজনৈতিক দল আর আসেনি। দলটি আন্দোলনে যেমন ব্যর্থ হয়েছে, নির্বাচনেও তেমনিভাবে ব্যর্থ। ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে নিশ্চিত পরাজয় দেখে বিএনপি নেতারা এখন নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ার অজুহাত খুঁজছেন।

পুলিশ হেফাজতে এক বছরে ১৬ মৃত্যু- অধিকাংশ ঘটনায়ই মামলা করেন না ভুক্তভোগীরা -স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বললেন, তদন্তের নির্দেশ দিয়েছি-দৈনিক ইত্তেফাক

বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল

পুলিশ হেফাজতে মৃত্যুর ঘটনা বাড়ছে। বিচার চেয়েও কোনো প্রতিকার পাচ্ছে না ভুক্তভোগী পরিবার। অনেক ক্ষেত্রে বিচার চেয়ে মামলা দায়ের করার পর পরিবারকে দেওয়া হচ্ছে হুমকি। এ কারণে পুলিশের নির্যাতনের বিরুদ্ধে ভুক্তভোগী পরিবারগুলো বিচার প্রত্যাশা থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। পুলিশি নির্যাতনে আহত হলেও ভুক্তভোগীরা মামলা করেন না। তবে এ সব ঘটনায় পুলিশের বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত কমিটি অনেক পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করে থাকে বলে পুলিশ সদর দপ্তর জানিয়েছে। অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যদের চাকরিচ্যুত, পদোন্নতি স্থগিত ও পদাবনতির মতো শাস্তি দেওয়া হচ্ছে।

মানবাধিকার সংগঠন আইন ও সালিশ কেন্দ্রের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, শুধু ২০১৯ সালেই সারাদেশে পুলিশের হেফাজতে ১৬ জনের মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। এদের মধ্যে গ্রেফতারের আগে নির্যাতনে চার জনের মৃত্যু হয়েছে। গ্রেফতারের পর শারীরিক নির্যাতনে ছয় জনের মৃত্যু হয়েছে। থানার হাজতখানায় দুই জন আত্মহত্যা করেন। দুই জন অসুস্থ হয়ে মারা যান। বাকি দুই জন নির্যাতনে অসুস্থ হয়ে চিকিত্সাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

এবার ভারতের কয়েকটি খবর তুলে ধরছি

 পাকিস্তান ও বাংলাদেশি মুসলিমদের দেশ থেকে ছুড়ে ফেলা উচিত, শিবসেনার মন্তব্যে তীব্র বিতর্ক-দৈনিক আজকাল

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে শিবসেনা একসময় মোদি সরকারের বিরোধিতা করেছিল। এবার তাদের মুখেই শোনা গেল অন্য সুর। শনিবার দলীয় মুখপত্র ‘সামনা’–য় রীতিমতো হুঁশিয়ারি দিয়ে শিবসেনা বলেছে, পাকিস্তান এবং বাংলাদেশের মুসলিমদের এই দেশ থেকে বাইরে ছুড়ে ফেলা উচিত এবং এ ব্যাপারে কোনও সন্দেহ নেই। গোটা দেশ যখন সিএএ নিয়ে বিক্ষোভ–প্রতিবাদে উত্তাল। ঠিক সেই সময়ে এমন মন্তব্যে প্রবল সমালোচনার মুখে পড়েছে শিবসেনা।

একই দৈনিকের অন্য একটি খবরে লেখা হয়েছে, ‘নাগাল্যান্ড, মণিপুর, মেঘালয় এবং মিজোরামে সিএএ কার্যকর হবে না’, মন্তব্য বিজেপি মন্ত্রী হেমন্তের‌

এ খবরে লেখা হয়েছে, নাগাল্যান্ড, মণিপুর, মেঘালয় এবং মিজোরামের মতো রাজ্যগুলিতে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন কার্যকর করা হবে না। পরিস্কার জানিয়ে দিলেন বিজেপি শাসিত অসমের অর্থমন্ত্রী হেমন্ত বিশ্বশর্মা। সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে বিতর্কিত মন্তব্য করলেন খোদ বিজেপি মন্ত্রীই। অসমের মন্ত্রীর বক্তব্য, এই রাজ্যগুলিতে কোনও হিন্দু বাঙালি জনগোষ্ঠী নেই। আর তাই এখন শুধুমাত্র অসম, ত্রিপুরা ও সিকিমকে সিএএ–এর আওতায় আনা হয়েছে। এদিকে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার বলছে, গোটা দেশেই কার্যকর করা হবে সিএএ।

কাশ্মীরে বন্দি নেতাদের ছেড়ে দেওয়া হোক, ভারতের উপর চাপ বাড়িয়ে বলল আমেরিকা-দৈনিক আনন্দবাজার পত্রিকা

নির্দিষ্ট অভিযোগ ছাড়াই উপত্যকায় যে সমস্ত রাজনীতিককে বন্দি করা হয়েছে, এ বার ধীরে ধীরে তাঁদের ছেড়ে দেওয়ার পথে এগোক ভারত সরকার। ভারতের উপর কার্যত চাপ বাড়িয়ে মার্কিন সরকারের দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়া সংক্রান্ত প্রিন্সিপাল ডেপুটি অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারিঅ্যালিস ওয়েলস এই মন্তব্য করেছেন। সম্প্রতি ১৫ দেশের কূটনীতিকদের সঙ্গে জম্মু-কাশ্মীর থেকে ঘুরে গিয়েছেন অ্যালিস।দিল্লিতে রাইসিনা আলোচনাতেও অংশ নিয়েছিলেন। তার পর দেশে ফিরে এমন মন্তব্য করলেন তিনি।

ভারতেও করোনা ভাইরাস আতঙ্ক! আক্রান্ত সন্দেহে হাসপাতালে ১১ জন-দৈনিক সংবাদ প্রতিদিন।#

পার্সটুডে/গাজী আবদুর রশীদ/২৬
 

ট্যাগ

মন্তব্য